নাস্তিক আখ্যা দিয়ে অধ্যাপক রতন সিদ্দিকীর বাসায় উগ্রপন্থী মুসুল্লীদের হামলা

নাস্তিক আখ্যা দিয়ে বাংলা একাডেমি পুরস্কারপ্রাপ্ত নাট্যকার অধ্যাপক ড. রতন সিদ্দিকীর বাসায় একদল উগ্রপন্থী মুসলমান হামলা চালিয়েছে। এ সময় অধ্যাপক এবং তাঁর গাড়িচালককে লাঞ্ছিত করা হয়। এ নিয়ে মামলা করার প্রস্তুতি চলছে। তবে পুলিশের বক্তব্য, জুমার সময় বাসার গেটের সামনে মোটরসাইকেল রাখাকে কেন্দ্র করে মুসল্লিদের সঙ্গে ‘তর্কাতর্কি হয়েছে’। শুক্রবার (১ জুলাই) জুমার নামাজের সময় রাজধানীর উত্তরা ৫ নম্বর সেক্টরের ৬/এ নং সড়কের বাসায় এই হামলার ঘটনাটি ঘটেছে। অধ্যাপক রতন সিদ্দিকীর মেয়ে পূর্ণাভা হক সিদ্দিকী বলেন, ‘আজ জুমার নামাজের সময় কয়েকশ’ মানুষ আমাদের বাড়ির গেটে হামলা করে, গেট ভেঙে ফেলার চেষ্টা করে।

আমার বাবা ও তার ড্রাইভারের গায়ে হাত তোলে। এ সময় আমার মা ও বাড়ির দারোয়ানকেও গালিগালাজ করে।’ তিনি আরো বলেন ‘একটি চক্র বাসার গেটের সামনে নিয়মিত বাজার বসায়, গেটের সামনে সবজির ভ্যান দাঁড়িয়ে থাকে। এসব কারণে আমরা বাড়িতে গাড়ি নিয়ে ঢুকতে পারি না।

আজও গাড়ি ঢুকতে দিচ্ছিলো না। গেটের সামনে একটি মোটরসাইকেল রাখা ছিল, বাবা মোটরসাইকেলটি সরাতে বলেন। তারা বলেন সরাবেন না। এরপর হঠাৎ করেই নাস্তিক নাস্তিক বলে চিৎকার করে বাসার গেটে হামলা শুরু করে। এ সময় অনেকেই হিন্দু, হিন্দু বলে চিৎকার করেন। এদের মধ্যে কেউ ঢিল ছোড়েন, তারপর গেট ভাঙার চেষ্টা করেন। তাদের মধ্যে কেউ কেউ নারায়ে তাকবির বলে স্লোগান দিতে থাকেন।’

অধ্যাপকের মেয়ে আরও বলেন, “তারা বলেন, এই বাসার সামনে কোনো কুকুর থাকতে পারবে না। কুকুরকে খাওয়ানো যাবে না। হুমকি দেয়, আমাদের মেয়েদের বের হতে দেবে না। কুকুরগুলো মেরে তাড়িয়ে দেবে। জুমার নামাজের পর থেকে আড়াইটা পর্যন্ত এ রকম চলতে থাকে। কেউ আসেনি সাহায্য করতে।” স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, এলাকার মুসল্লি, ভ্যানওয়ালা ও কিছু বস্তির ছেলেরা মিলে ধর্মীয় উম্মাদনা সৃষ্টি করে পরিকল্পিতভাবে এই হামলা চালিয়েছে।

হামলার বিষয়ে রতন সিদ্দিকী বলেন, ‘‘আজকে দুপুরের সময় এক দল মুসল্লি ‘নারায়ে তাকবির’ স্লোগান দিয়ে আমার বাসায় হামলা করে। তারা আমার কলাপসিবল গেইট ভাঙার চেষ্টা করে। এক ঘণ্টা চলার পর পুলিশ-র‌্যাব এসে তাদেরকে সরিয়ে দেয়। প্রায় শ দুয়েক লোক ছিল।’ পথনাটক পরিষদের সভাপতি মিজানুর রহমান বলেন, অধ্যাপক ড. রতন সিদ্দিকীর বাসায় আক্রমণ হলে তাৎক্ষণিকভাবে আমরা ওনার বাসায় আসি এবং এখন পর্যন্ত অবস্থান করছি।

ধর্ম অবমাননার গুজব ছড়িয়ে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই হিন্দু শিক্ষককে ফাঁসানোর চক্রান্ত

রতন সিদ্দিকী ভালো আছেন। মুসল্লিদের দু-একজন তাকে ধাক্কা দিয়েছেন। এ বিষয়ে ডিএমপির উত্তরার বিভাগের উপপুলিশ কমিশনার মোর্শেদ আলম বলেন, “মূলত রতন সিদ্দিকীর বাসা মসজিদের পাশে, আজকে জুমার দিন ছিল, সবাই বাসার সামনে মোটরসাইকেল, ভ্যান রেখে নামাজ পড়ছিল। এ নিয়ে মুসল্লিদের সঙ্গে তর্কাতর্কি হয়।” প্রসঙ্গত, ড. রতন সিদ্দিকী জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের দায়িত্বপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ছিলেন। তিনি উদীচী কেন্দ্রীয় সংসদের সহসভাপতি ও বাংলাদেশ প্রগতি লেখক সংঘের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। এছাড়া তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় বাংলা বিভাগ এ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের আজীবন সদস্য। নাটকে অবদান রাখায় ২০২০ সালে বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার লাভ করেছেন। তার স্ত্রী ফাহমিদা হক কলিও একজন লেখক ও নাট্যব্যক্তিত্ব।

SourceP: anweshan.news

Leave a Reply

Translate »