নূপুর শর্মার পোস্টে মন্তব্য, সাতক্ষীরায় হিন্দু যুবককে গলায় জুতার মালা পরিয়ে লাঞ্ছিত

ইসলাম ধর্মের প্রবর্তক নবী মোহাম্মদের শিশু আয়েশাকে ছয় বছর বয়েসে বিয়ে এবং পাখাওয়ালা ঘোড়ায় চড়ে মেরাজ গমন নিয়ে মন্তব্য করে আলোচিত ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) নেত্রি নূপুর শর্মার এক পোস্টে মন্তব্য করার কারণে সাতক্ষীরায় দেবাশীষ কুমার মালো এক হিন্দু যুবক গলায় জুতার মালা পরিয়ে লাঞ্ছিত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এর পাশাপাশি তাঁকে হাত জোর করে ক্ষমা চাইতে বাধ্য করেছে উগ্রপন্থীরা। গত ২০ জুন জেলার শ্যামনগর উপজেলার নকিপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, কয়েকদিন আগে নূপুর শর্মার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেয়া এক পোস্টে দেবাশীষ কুমার মালো মন্তব্য করে।

এ মন্তব্যের বিষয়টা স্থানীয় উগ্রপন্থী মুসলমানদের নজরে আসলে দেবাশীষ ইসলাম ধর্মের নবীকে নিয়ে কটূক্তি করেছে বলে গুজব ছড়ানো হয়। গত ২০ জুন স্থানীয় উগ্রপন্থী মুসলমানরা দেবাশীষের বাড়িতে হামলা চালিয়ে তাঁকে বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে এসে প্রকাশ্য দিবালোকে গলায় জুতার মালা পরিয়ে লাঞ্ছিত করে। এছাড়া, নূপুর শর্মার স্টাটাসে মন্তব্য করার জন্যে তাঁকে হাতজোর করে ক্ষমা চাইতে বাধ্য করা হয়।

উগ্রপন্থীদের একটি চক্র দেবাশীষের গলায় জুতার মালা পরানো এবং মাফ চাওয়ার দৃশ্য ধারণ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল করে দেয়। দেবাশীষকে লাঞ্ছিত করার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে আইন শৃঙ্খলাবাহিনীর পক্ষ থেকে উদ্যোগ নেয়া হয় নি বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

উল্লেখ্য, গত ১৮ জুন শনিবার নুপুর শর্মার পক্ষে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে স্টাটাস দেওয়ার হুজুগে নড়াইলে মীর্জাপুর ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাস এবং একই কলেজের রাহুল নামের এক হিন্দু শিক্ষার্থীকে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর উপস্থিতিতে মারধর এবং গলায় জুতার মালা পরিয়ে লাঞ্ছিত করার আরেকটি ঘটনা ঘটে।

ধর্ম নিয়ে মন্তব্য : প্রতিবাদের মুখে ক্ষমা চাইলেন সাই পল্লবী

গত কয়েক বছর ধরে ইসলাম ধর্ম অবমাননা এবং ধর্মানুভুতিতে আঘাতের গুজব ছড়িয়ে উগ্রপন্থী ও ধর্মান্ধ মুসলমানদের একটি চক্র হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের উপর নির্যাতন, লাঞ্ছিত, সাম্প্রদায়িক সহিংসতার ঘটনা ঘটিয়ে যাচ্ছে। সংখ্যালঘু অধিকার কর্মীদের অভিযোগ, বিচারহীনতার সংস্কৃতি এবং রাষ্ট্রের ধর্মীয় উগ্রবাদ তোষণের কারণে এ ধরনের ন্যাক্কারজনক ঘটনার পুনরাবৃত্তি হচ্ছে।

Leave a Reply

Translate »