বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সদ্য নিয়োগপ্রাপ্ত তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারীদের পক্ষ থেকে উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মোঃ শারফুদ্দিন আহমেদকে  সংবর্ধনা প্রদান 

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের

সদ্য নিয়োগপ্রাপ্ত তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারীদের পক্ষ থেকে

তাদের চাকুরি নিয়মিতকরণ করায় মাননীয় উপাচার্য মহোদয়কে সংবর্ধনা প্রদান

ইতিহাস হয়ে থাকবে মাননীয় ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ডা. শারফুদ্দিন আহমেদ স্যারেরএই মহৎ উদ্যোগএক সাথে ৯০০ কমচারী চাকুরী স্থায়ী করেছেন আমরা স্যারের এই মহৎ উদ্যোগের জন্য সবাই দুই হাত তুলে সৃষ্টিকর্তার কাছে প্রার্থনা করব সে যেন সারা জীবন সুস্থভাবে বেচে থাকেন।

বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরণে ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রত্যাশা বাস্তবায়নে সবাইকে

আরো বেশি বেশি করে কাজ করতে হবে: উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মোঃ শারফুদ্দিন আহমেদ

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সদ্য নিয়োগপ্রাপ্ত তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারীদের পক্ষ থেকে অত্র বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মোঃ শারফুদ্দিন আহমেদ মহোদয়কে সংবর্ধনা দেওয়া হয়। দ্রুততম সময়ের মধ্যে তাদের চাকুরি নিয়মিতকরণ করায় মাননীয় উপাচার্য মহোদয়কে এই সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে।

এ উপলক্ষে আজ ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০২২ইং তারিখ বিকাল ৩টায় অত্র বিশ্ববিদ্যালয়ের এ ও বি ব্লকের মধ্যবর্তীস্থল বটতলায় আয়োজিত এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সহকারী পরিচালক মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান জুয়েল। বক্তব্য রাখেন ৩য় শ্রেণীর কর্মচারী মোঃ জায়েদুল হক, ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারী মোঃ লোকমান হোসেন, মোঃ জাকির প্রমুখ। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে জানানো হয় তৃতীয় ও ৪র্থ শ্রেণীর প্রায় ৯ শত কর্মচারীর চাকুরী নিয়মিত করা হয়েছে।

এরফলে এই বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত কর্মচারীদের দীর্ঘদিনের প্রত্যাশা পূরণ হয়েছে। চাকুরী নিয়মিত করায় বিশ্ববিদ্যালয়ে এক আনন্দমুখর পরিবেশের সৃষ্টি হয়েছে এবং কর্মচারীদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার সৃষ্টি হয়েছে। কর্মচারীদের চাকুরী নিয়মিত করায় মাননীয় উপাচার্য মহোদয়ের প্রতি কর্মচারীবৃন্দ কতৃজ্ঞতা প্রকাশ করেন এবং মাননীয় উপাচার্য মহোদয় ও তাঁর পরিবারবর্গের সদস্যদের জন্য দোয়া কামনা করেন।

অনুষ্ঠানে সংবর্ধিত মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মোঃ শারফুদ্দিন আহমেদ বলেন, বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হলে বাংলাদেশ সৃষ্টি হতো না। আমরা আজকের অবস্থানে কেউ থাকতাম না। জাতির পিতার নামে প্রতিষ্ঠিত এই বিশ্ববিদ্যালয়কে নিয়ে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ছিল দেশের রোগীরা যাতে দেশেই সেবা নিতে পারেন, চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে যেতে না হয়। বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রত্যাশাও তাই। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সেই প্রত্যাশা বাস্তবায়নে সবাইকে আরো বেশি বেশি করে কাজ করতে হবে। যাদের চাকুরী এখনো নিয়মিত করা যায়নি তাদেরও চাকুরি নিয়মিত করা হবে। তবে সবাইকে কাজের মাধ্যমে সঠিক যোগ্যতার প্রমাণ দিতে হবে।

মাননীয় উপাচার্য বলেন, আমাদেরকে অবশ্যই বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে ধারণ করে চলতে হবে। যারা বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাস করে না তাদের বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে।

কাজে খুশি হয়ে কর্মীকে মার্সিডিজ উপহার!

মাননীয় উপাচার্য বলেন, বর্তমান প্রশাসন দায়িত্ব নেওয়ার পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়কে নিয়ে রোগীদের প্রত্যাশা আরো বৃদ্ধি পেয়েছে। অতীতের যেকোনো সময়ের তুলনায় বর্তমানে ভিআইপি রোগীদের সেবা গ্রহণের প্রবণতা বৃদ্ধি পেয়েছে। প্রতিদিন বহির্বিভাগে প্রায় ৯ হাজার রোগী সেবা নিচ্ছেন। বর্তমানে রোগীদের ভোগান্তি দূর হয়েছে। আর একটা কথা অবশ্যই মনে রাখতে হবে, আমরা কেউ যেনো রোগীদের সাথে কোনোরকম খারাপ আচরণ না করি।

 

Leave a Reply

Translate »