লাইফস্টাইল শুষ্ক ত্বক ও আদ্রতা হারানো ত্বকের পার্থক্য

অনেকেই শুষ্ক ত্বক এবং ডিহাইড্রেটেড ত্বকের পার্থক্যটা বুঝতে পারেন না। প্রতীকী ছবি। মডেল: চমক। ছবি: মঞ্জুরুল আলমঅনেকেই শুষ্ক ত্বক এবং ডিহাইড্রেটেড ত্বকের পার্থক্যটা বুঝতে পারেন না। প্রতীকী ছবি। মডেল: চমক। ছবি: মঞ্জুরুল আলম

শুষ্ক ত্বক, তৈলাক্ত ত্বক ও সংবেদনশীল ত্বক—সাধারণত ত্বকের এই তিন ধরন দেখা যায়। ত্বকে যখন জলীয়ভাব কমে যায়, তখন তা ডিহাইড্রেটেড হয়ে যায়। অনেকেই শুষ্ক ত্বক এবং ডিহাইড্রেটেড ত্বকের পার্থক্যটা বুঝতে পারেন না। ফলে শুষ্ক ত্বকের প্রসাধনীগুলো ব্যবহার করতে থাকেন। কিন্তু শীতে ত্বকের সুরক্ষায় ত্বকের ধরনের পার্থক্যটা বুঝে নেওয়াটা খুব জরুরি। না হলে ত্বকের নানান সমস্যা হতে পারে।

সাধারণত ত্বকে তৈলাক্তভাব কমে গেলেই তা রুক্ষ, শুষ্ক, প্রাণহীন হয়ে পড়ে। ত্বকে ভাঁজ বা রিঙ্কল দেখা দেয়সাধারণত ত্বকে তৈলাক্তভাব কমে গেলেই তা রুক্ষ, শুষ্ক, প্রাণহীন হয়ে পড়ে। ত্বকে ভাঁজ বা রিঙ্কল দেখা দেয়। শীতের সময়টাতে যখনই ত্বকে ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করবেন, তখনই তা মুহূর্তে শুষে নেবে। যেকোনো আবহাওয়াতেই এমনটা দেখা যায়।

 

ডিহাইড্রেটেড স্কিন বা আদ্রতা হারানো ত্বক শীতকালে বেশি দেখা যায়। যদি কেউ ত্বকে ময়েশ্চারাইজার এই সময়ে ব্যবহার না করেন, তাহলে তার ত্বক ফেটে যেতে পারে। ত্বক ফেটে গেলে তাকেই আর্দ্রতা হারানো ত্বক বা ডিহাইড্রেটেড স্কিন বলছেন রূপ বিশেষজ্ঞরা। এছাড়াও আরও বেশ কিছু লক্ষণ থাকে ডিহাইড্রেটেড ত্বকের।

কীভাবে বুঝবেন ত্বক শুষ্ক হয়ে গিয়েছে নাকি আদ্রতা হারিয়েছে

প্রথমে ত্বকে চিমটি কাটুন। এবার লক্ষ্য করুন কতটুকু সময় পর আপনার ত্বক আগের জায়গায় ফিরে আসে। যদি স্বাভাবিক সময়ে, মানে খুব দ্রুত ত্বক আবার আগের মতো হয়ে যায়, তাহলে বুঝতে হবে আপনার ত্বক শুষ্ক হয়েছে। আর যদি চামড়া আগের জায়গায় ফিরে আসতে অনেকটা সময় নেয়, তাহলে বুঝতে হবে আপনার ত্বক আর্দ্রতা হারিয়েছে। এক্ষেত্রে ত্বকের ধরন অনুযায়ী রূপ বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ নিতে পারেন।

 

 

Leave a Reply

Translate »