শেখ রাসেল অনলাইন কুইজ প্রতিযোগিতা ২০২২ সম্পর্কে A-Z | How to participate Sheikh Russel quiz competition 2022

শেখ রাসেল অনলাইন কুইজ প্রতিযোগিতা ২০২২; A-Z বিস্তারিত

সরকারী উদ্যোগে অনলাইন কুইজ প্রতিযোগিতা ২০২১ তথা গত বছরের ন্যায় এই বছরেও শেখ রাসেল কুইজ প্রতিযোগিতা ২০২২ অনুষ্ঠিতিব্য হতে যাচ্ছে। তাই আজকের এই পোস্টের নিচে আমরা শেখ রাসেল সম্পর্কে তথ্য, গল্প , প্রশ্ন ও অনলাইন শেখ রাসেল কুইজ প্রতিযোগিতা ২০২২ সম্পর্কে A-Z বিস্তারিত আলোচনা করেছি।

যারা অংশগ্রহণ করতে পারবে:

গ্রুপ ক: ৮-১২ বছর
গ্রুপ খ: ১৩-১৮ বছর

নিবন্ধন:

২৮ আগস্ট থেকে ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২২, রাত ১২টা পর্যন্ত অনলাইনে (quiz.sheikhrussel.gov.bd) নিবন্ধন করা যাবে।

অনলাইন প্রতিযোগিতা:

গ্রুপ ক:: ৮-১২ বছর
৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, সন্ধ্যা ৭টা থেকে ৮টার মধ্যে যে কোনো ১০ মিনিট।
গ্রুপ খ:: ১৩-১৮ বছর
০১ অক্টোবর ২০২২, সন্ধ্যা ৭টা থেকে ৮টার মধ্যে যে কোনো ১০ মিনিট।

পুরস্কার:

গ্রুপ ক: ৮-১২ বছর
৫টি ল্যাপটপ (কোর আই ৭, ১১ জেনারেশন)
গ্রুপ খ:: ১৩-১৮ বছর
৫টি ল্যাপটপ (কোর আই ৭, ১১ জেনারেশন)

নিয়মাবলি:
  • কুইজ প্রতিযোগিতাটি শুধু ৮ থেকে ১৮ বছর বয়সীদের জন্য উন্মুক্ত।
  • একজন প্রতিযোগী একবারই অংশগ্রহণ করতে পারবেন।
  • প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের জন্য বরাদ্দকৃত সময় ১০ মিনিট।
  • সকল প্রশ্নের মান সমান। ভুল উত্তরের জন্য কোনো নম্বর কাটা যাবে না।
  • সকল প্রশ্নের উত্তরের জন্য চারটি বিকল্প থেকে একটি সঠিক উত্তর বাছাই করতে হবে (এমসিকিউ)।
  • কম সময়ে সর্বোচ্চ সংখ্যক উত্তরদাতা থেকে বিজয়ী নির্বাচন করা হবে।
  • চূড়ান্ত বিজয়ীদের ক্ষেত্রে বয়স যাচাই সাপেক্ষে পুরস্কার প্রদান করা হবে।
  • ভুল/মিথ্যা তথ্য দিয়ে অংশগ্রহণ করলে তাকে প্রতিযোগিতা থেকে বাতিল বলে গণ্য করা হবে।
কুইজের বিষয়:

শেখ রাসেলের জন্ম, দুরন্ত শৈশব, শিক্ষা জীবন, স্বপ্ন, ভ্রমণ, পছন্দ, খেলাধুলা, তাঁর উপর রচিত গ্রন্থ, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কাটানো মুহূর্তসহ বিভিন্ন বিষয় থেকে প্রশ্ন নির্ধারণ করা হবে।

1. শেখ রাসেল কুইজে কারা অংশগ্রহণ করতে পারবেন?

যাদের বয়স ০৮ থেকে ১৮ বছর শুধুমাত্র তারাই শেখ রাসেল কুইজে অংশগ্রহণ করতে পারবেন। কুইজে অংশগ্রহনকারী ছোট ভাইবোনদের বয়সসীমা অনুযায়ী “ক” ও “খ” গ্রুপ করা হয়েছে। যথাঃ

গ্রুপ “ক”: ৮-১২ বছর,
গ্রুপ “খ”: ১৩-১৮ বছর।

2. শেখ রাসেল কুইজের নিবন্ধন শুরু ও শেষ হবার তারিখ ও সময়

শেখ রাসেল কুইজে অংশগ্রহনের জন্য নিবন্ধন শুরু ও শেষ হবার তারিখ ও সময় হলো ২৮ আগস্ট থেকে ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ রাত ১২টা পর্যন্ত অনলাইনে নিবন্ধন করতে পারবেন। অনলাইন কুইজ প্রতিযোগিতায় নিবন্ধন করতে এই পোস্টটি শেষ পর্যন্ত পড়া চালিয়ে যান। আমরা শেষে অনলাইন কুইজ প্রতিযোগিতায় নিবন্ধন করার লিংক দিয়ে রেখেছি।

3. অনলাইন শেখ রাসেল কুইজ প্রতিযোগিতার সময়সীমা

সময়ের সংকীর্নতা, অংশগ্রহণকারীদের বয়সভেদে ও অন্যান্য সুবিধার দিক লক্ষ্য করে অনলাইন শেখ রাসেল কুইজ প্রতিযোগিতার সময়সীমা গ্রুপ “ক” ও গ্রুপ “খ” এর জন্য আলাদা আলাদা করা হয়েছে। আর মূলত ১ ঘন্টার ভিতরে কুইজে অংশগ্রহন করার সুযোগ থাকবে।

সেক্ষেত্রে সময়সীমার বিশ্লেষন নিম্নরুপ;

গ্রুপ ‘ক’ (৮-১২ বছর) এর জন্য: ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, সন্ধ্যা ৭টা থেকে রাত ৮টার মধ্যে যে কোনো ১০ মিনিট।
গ্রুপ ‘খ’ (১৩-১৮ বছর) এর জন্য: ০১ অক্টোবর ২০২২, সন্ধ্যা ৭টা থেকে রাত ৮টার মধ্যে যে কোনো ১০ মিনিট।

4. শেখ রাসেল কুইজের সকল বিষয়/প্রতিযোগিতার প্রশ্নাবলি

শেখ রাসেল কুইজ প্রতিযোগিতা ২০২২ প্রশ্ন বা শেখ রাসেল কুইজের সকল বিষয়/প্রতিযোগিতার প্রশ্ন যে সম্পর্কে হবে তা নিচে তুলে ধরা হলো।

শেখ রাসেল কুইজ প্রতিযোগিতায় যে সকল বিষয় থেকে প্রশ্ন করা হবে তাহলোঃ শেখ রাসেলের জন্ম, তার দুরন্ত শৈশব, শিক্ষা জীবন, স্বপ্ন, ভ্রমণ, পছন্দ, খেলাধুলা, তাঁর উপর রচিত গ্রন্থ এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কাটানো মুহূর্তসহ বিভিন্ন বিষয় থেকে প্রশ্ন নির্ধারণ করা হবে।

5. শেখ রাসেল কুইজের সকল নিয়মাবলি

কুইজে অংশগ্রহণকারীদের জন্য কুইজের যেসকল নিয়মাবলি মেনে চলতে হবে তার তালিকা নিচে তুলে ধরা হলো।

শেখ রাসেল কুইজের সকল নিয়মাবলিঃ

  1. কুইজ প্রতিযোগিতাটি শুধু ৮ থেকে ১৮ বছর বয়সীদের জন্য উন্মুক্ত।
  2. প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের জন্য বরাদ্দকৃত সময় ১০ মিনিট।
  3. সকল প্রশ্নের মান সমান। ভুল উত্তরের জন্য কোনো নম্বর কাটা যাবে না।
  4. সকল প্রশ্নের উত্তরের জন্য চারটি বিকল্প থেকে একটি সঠিক উত্তর বাছাই করতে হবে (এমসিকিউ)।
  5. কম সময়ে সর্বোচ্চ সংখ্যক উত্তরদাতা থেকে বিজয়ী নির্বাচন করা হবে।
  6. চূড়ান্ত বিজয়ীদের ক্ষেত্রে বয়স যাচাই সাপেক্ষে পুরস্কার প্রদান করা হবে।
  7. একজন প্রতিযোগী একবারই অংশগ্রহণ করতে পারবেন।
  8. ভুল/মিথ্যা তথ্য দিয়ে অংশগ্রহণ করলে তাকে প্রতিযোগিতা থেকে বাতিল বলে গণ্য করা হবে।

6. শেখ রাসেল কুইজের বিজয়ীদের জন্য পুরস্কার

শেখ রাসেল কুইজের চূড়ান্ত বিজয়ীদের জন্য পুরস্কার এর ব্যবস্থা আছে। তবে অবশ্যই তা বয়স যাচাই করে পুরস্কার প্রদান করা হবে।

গ্রুপ “ক”: (৮-১২ বছর)- ৫টি ল্যাপটপ (Core i7, 11 Generation)
গ্রুপ “খ”: (১৩-১৮ বছর)- ৫টি ল্যাপটপ (Core i7, 11 Generation)

শেখ রাসেল অনলাইন কুইজ প্রতিযোগিতা ২০২২ রেজিষ্ট্রেশন প্রসেস:

শেখ রাসেল দিবস উপলক্ষে অনলাইন কুইজ প্রতিযোগিতা ২০২২ এ নিবন্ধন প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। রেজিস্ট্রেশনের জন্য বয়সভেদে ‘ক’ ও ‘খ’ গ্রুপ অনুযায়ী রেজিস্ট্রেশনের আলাদা লিংক রয়েছে। আবেদন/রেজিস্ট্রেশনের নিয়মাবলি নিচে স্ক্রিনশট আকারে দেওয়া হলো।

বিঃদ্রঃ “ক” ও “খ” উভয় গ্রুপের রেজিস্ট্রেশন প্রসেস একই। তাই এখানে শুধু ‘ক’ বিভাগের জন্য স্ক্রিনশট করে রোডম্যাপ করে দেওয়া হয়েছে।

প্রথমে quiz.sheikhrussel.gov.bd সাইটে যান, এবং শেষে দেখুন আপনার বয়স অনুযায়ী গ্রুপ ক: ৮-১২ বছর রেজিস্ট্রেশন ও গ্রুপ খ: ১৩-১৮ বছর রেজিস্ট্রেশন বাটন দেওয়া আছে। অতঃপর বয়স অনুযায়ী রেজিস্ট্রেশন করুন।

রেজিস্ট্রেশন ফর্মটিতে আপনার সঠিক ও নির্ভূল তথ্য দিয়ে পূরন করে সাইন আপে ক্লিক করলে পরবর্তী পেইজ আসবে এবং সেখানে লেখা থাকবে “রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন হয়েছে, লগ ইন করুন“। নিচের দেওয়া স্ক্রিনশটের মতো দেখাবে।

তারপর রেজিস্ট্রেশন ফর্মে সাবমিট করা “ইমেইল বা নাম্বার এবং পাসওয়ার্ড” অনুযায়ী এখানে সাইন ইন বাটনে ক্লিক করে প্রোফাইল এ যেতে হবে। আপনার প্রোফাইল আসলে আপনার সম্পর্কে বিস্তারিত জীবন বিত্তান্ত সেট করতে হবে। আপনি “প্রোফাইল আপডেট করুন” এ ক্লিক করে সকল ইনপুট ফিল্ড পূরন করে সেভ করে ফেলবেন।

এখন আপনার প্রোফাইলে চলে আসলে, আপনার ব্যক্তিগত সকল তথ্য দিয়ে প্রোফাইল আপডেট করতে হবে। অন্যথায় আপনি এই শেখ রাসেল কুইজে অংশগ্রহন করতে পারবেন না। কারন আপনার দেওয়া সকল তথ্য অনুযায়ী শেখ রাসেল কুইজ সার্টিফিকেট তৈরি করা হবে এবং আপনাকে তা প্রদান করা হবে।

তাই রেজিস্ট্রেশনের পরেই আপনার ব্যক্তিগত তথ্য/ জীবন বৃত্তান্ত দিয়ে প্রোফাইলটি অবশ্যই সাজিয়ে নিবেন। কি কি তথ্য দিয়ে প্রোফাইল সাজাতে হবে তা নিচে দেখুন।

শেখ রাসেল সম্পর্কিত সকল প্রশ্ন ও উত্তর

এখন নিচে শেখ রাসেল সম্পর্কিত সকল প্রশ্ন ও উত্তর, শেখ রাসেলের জীবনী তুলে ধরব। যেন আপনারা শেখ রাসেল কুইজ প্রতিযোগিতায় শেখ রাসেলকে কেন্দ্র করে আসা সকল প্রশ্নের উত্তর মুহূর্তেই দিতে পারেন।

Sheikh Rasel Quiz Questions and Answers Below;

  1. শেখ রাসেল কে?

    শেখ রাসেল হলো বাংলাদেশের রাজনৈতিক নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সর্বকনিষ্ঠ পুত্র। বর্তমান বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ও বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা ও তার বোন শেখ রেহানার আপন ভাই এই শেখ রাসেল।

    বঙ্গবন্ধু তাঁর প্রিয় লেখক খ্যাতিমান দার্শনিক ও নোবেল বিজয়ী ব্যক্তিত্ব বার্ট্রান্ড রাসেলের নামানুসারে পরিবারের নতুন সদস্যের নাম রাখেন ‘রাসেল’।

  2. শেখ রাসেলের জন্ম কবে, কোথায়?

    শেখ রাসেল ঢাকায় ১৯৬৪ সালের ১৮ অক্টোবর মাসে ঐতিহাসিক বঙ্গবন্ধু ভবনে জন্ম গ্রহণ করেন।

  3. শেখ রাসেলের দুরন্ত শৈশব কিভাবে কেটেছে?

    দুরন্ত প্রাণবন্ত ছেলে শেখ রাসেল শৈশব থেকেই ছিলেন পরিবারের সবার অতি আদরের। কিন্তু মাত্র দেড় বছর বয়স থেকেই প্রিয় পিতার সঙ্গে তাঁর সাক্ষাতের একমাত্র স্থান হয়ে ওঠে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার ও ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট। তবে সাত বছর বয়সে ১৯৭১ সালে তিনি নিজেই বন্দি হয়ে যান।

  4. শেখ রাসেলের শিক্ষা জীবন

    রাসেল ইউনিভার্সিটি ল্যাবরেটরি স্কুলের ছাত্র ছিলেন। এবং চতুর্থ শ্রেণির পর্যন্ত লেখাপড়া করার সুযোগ পান।

  5. শেখ রাসেলের মৃত্যু কবে এবং কোথায় হয়েছিল?

    ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট কালরাতে দেশি-বিদেশি চক্রান্তে পরিবারের সদস্যদের সাথে শেখ রাসেলকেও হত্যা করে হানাদার বাহিনীরা।

  6. শেখ রাসেল দিবস ২০২২ কবে?

    ১৮ই অক্টোবর ২০২২ইং রোজ মঙ্গলবার।

  7. শেখ রাসেল সম্পর্কে সকল প্রশ্ন ও উত্তর কোথায় পাওয়া যাবে?

    উত্তর: ম্যাগাজিনবিডিতে। এই পোস্টের শেষে ১০০+ শেখ রাসেল সম্পর্কে প্রশ্ন ও উত্তর এর লিংক দেওয়া আছে।

  8. শেখ রাসেল কুইজের প্রশ্ন কোথায় ও কিভাবে তার উত্তর দেব?

    শেখ রাসেল কুইজের প্রশ্ন ও উত্তর পেতে আপনাকে quiz.sheikhrussel.gov.bd তে গিয়ে রেজিস্ট্রার করার পর প্রোফাইলে যেতে হবে। আর আপনার গ্রুপ অনুযায়ী ৩১ সেপ্টেম্বর ও ০১ অক্টোবর সন্ধ্যা ৭-৮ টার মধ্যে প্রোফাইলে শেখ রাসে্লের সম্পর্কে চুড়ান্ত কুইজ প্রশ্ন আপডেট করা হবে। অর্থাৎ ওই তারিখে ওই সময়ে আপনার প্রফাইলে লগিন করলে কুইজে অংশগ্রহন করতে পারবেন।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কাটানো মুহূর্তসহ:

শেখ রাসেলের ভুবন ছিল তাঁর পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও মাতা শেখ ফজিলাতুননেসা মুজিব, বোন শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা এবং ভাই শেখ কামাল ও শেখ জামালকে ঘিরে।

১৯৬৪: রাসেলের জন্মের আগের মুহূর্তগুলো ছিল ভীষণ উৎকণ্ঠার। আমি, কামাল, জামাল, রেহানা ও খোকা চাচা বাসায়। বড় ফুফু ও মেজো ফুফু মার সাথে। একজন ডাক্তার ও নার্সও এসেছেন। সময় যেন আর কাটে না। জামাল আর রেহানা কিছুক্ষণ ঘুমায় আবার জেগে ওঠে।

আমরা ঘুমে ঢুলুঢুলু চোখে জেগে আছি নতুন অতিথির আগমন বার্তা শোনার অপেক্ষায়। মেজো ফুফু ঘর থেকে বের হয়ে এসে খবর দিলেন আমাদের ভাই হয়েছে। খুশিতে আমরা আত্মহারা। কতক্ষণে দেখব। ফুফু বললেন, তিনি ডাকবেন। কিছুক্ষণ পর ডাক এলো।

বড় ফুফু আমার কোলে তুলে দিলেন রাসেলকে। মাথাভরা ঘন কালো চুল। তুলতুলে নরম গাল। বেশ বড় সড় হয়েছিল রাসেল।

সূত্র: শেখ হাসিনা, ‘আমাদের ছোট রাসেল সোনা’

১৯৬৬: কারাগারে দেখা করার সময় রাসেল কিছুতেই তাঁর বাবাকে রেখে আসবে না। এ কারণে তাঁর মন খারাপ থাকতো। কারাগারের রোজনামচায় ১৯৬৬ সালের ১৫ জুনের দিনলিপিতে রাসেলকে নিয়ে বঙ্গবন্ধু লিখেছেন, ১৮ মাসের রাসেল জেল অফিসে এসে একটুও হাসে না- যে পর্যন্ত আমাকে না দেখে।

দেখলাম দূর থেকে পূর্বের মতোই ‘আব্বা আব্বা’ বলে চিৎকার করছে। জেল গেট দিয়ে একটা মাল বোঝাই ট্রাক ঢুকেছিল। আমি তাই জানালায় দাঁড়াইয়া ওকে আদর করলাম। একটু পরেই ভিতরে যেতেই রাসেল আমার গলা ধরে হেসে দিল।

ওরা বলল আমি না আসা পর্যন্ত শুধু জানালার দিকে চেয়ে থাকে, বলে ‘আব্বার বাড়ি’। এখন ধারণা হয়েছে এটা ওর আব্বার বাড়ি। যাবার সময় হলে ওকে ফাঁকি দিতে হয়।

১৯৬৭: কারগারের রোজনামচায় ১৯৬৭ সালের ১৪-১৫ এপ্রিলের অন্যান্য প্রসঙ্গ ছাড়াও রাসেলকে নিয়ে বঙ্গবন্ধু লিখেছেন, “জেল গেটে যখন উপস্থিত হলাম ছোট ছেলেটা আজ আর বাইরে এসে দাঁড়াইয়া নাই দেখে আশ্চর্যই হলাম।

আমি যখন রুমের ভিতর যেয়ে ওকে কোলে করলাম আমার গলা ধরে ‘আব্বা’ ‘আব্বা’ করে কয়েকবার ডাক দিয়ে ওর মার কোলে যেয়ে ‘আব্বা’ ‘আব্বা’ করে ডাকতে শুরু করল। ওর মাকে ‘আব্বা’ বলে। আমি জিজ্ঞাসা করলাম, ‘ব্যাপার কি?’ ওর মা বলল,“বাড়িতে ‘আব্বা’ ‘আব্বা’ করে কাঁদে তাই ওকে বলেছি আমাকে ‘আব্বা’ বলে ডাকতে।”

রাসেল ‘আব্বা’ ‘আব্বা’ বলে ডাকতে লাগল। যেই আমি জবাব দেই সেই ওর মার গলা ধরে বলে, ‘তুমি আমার আব্বা।’ আমার উপর অভিমান করেছে বলে মনে হয়। এখন আর বিদায়ের সময় আমাকে নিয়ে যেতে চায় না।”

১৯৭১: ১৯৭১ সালে রাসেল তাঁর মা ও দুই আপাসহ পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে ধানমণ্ডি ১৮ নম্বর সড়কের একটি বাড়িতে বন্দি জীবন কাটিয়েছেন। পিতা বঙ্গবন্ধু তখন পাকিস্তানের কারাগারে বন্দি এবং বড় দুই ভাই শেখ কামাল ও শেখ জামাল চলে গেছেন মুক্তিযুদ্ধে।

মা ও আপাসহ পরিবারের সদস্যরা ১৯৭১ সালের ১৭ই ডিসেম্বর মুক্ত হন। রাসেল ‘জয় বাংলা’ বলে ঘর থেকে বেরিয়ে আসেন। বাইরে তখন চলছে বিজয়-উৎসব।

১৯৭৫: রাসেল যখন ইউনিভার্সিটি ল্যাবরেটরি স্কুলের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র ছিলেন তখন ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট কালরাতে দেশি-বিদেশি চক্রান্তে পরিবারের সদস্যদের সাথে শেখ রাসেলকেও হত্যা করা হয়।

তথ্যসূত্র: শেখ রাসেল.গভ.বিডি

Prof. Dr. Pran Gopal Datta (ENT) Specialist – Address, Contact Number, Chamber, Fees

  • শেখ রাসেল কুইজ প্রতিযোগিতার প্রশ্ন উত্তর

  • Questions and Answers of Sheikh Russell Quiz Competition

 

নতুন কিছু প্রশ্ন ও উত্তর নিয়ে আজকের এই ব্লগটি লেখা হয়েছে। শেখ রাসেল দিবসে অনুষ্ঠিত অনলাইন শেখ রাসেল কুইজ প্রতিযোগিতার প্রশ্নোত্তর এখানে দেওয়া হলো। বিজয়ী হতে চাইলে অবশ্যই মনোযোগ দিয়ে প্রশ্ন ও উত্তর গুলো পড়ুন।

১. “আমাদের ছোট রাসেল সোনা” বইটি কার লেখা?

 

উত্তর: গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

 

২. আমাদের ছোট রাসেল সোনা” বইটি কে প্রকাশ করেছেন?

শেখ রাসেল এর জীবন কাহিনী জেনে নিন। sheikh rasel biography

উত্তর: বাংলাদেশ শিশু একাডেমী। প্রকাশক: জ্যোতি লাল কুরী, মহাপরিচালক, বাংলাদেশ শিশু একাডেমী।

 

৩. “আমাদের ছোট রাসেল সোনা” বইটি কবে প্রকাশিত হয় বা প্রকাশকাল কবে?

 

উত্তর: জাতির পিতা ব্ঞাবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপনের সময়।

 

বাংলা: ৩রা চৈত্র ১৪২৪ বঙ্গাব্দ;

 

ইংরেজি: ১৭ই মার্চ ২০১৮ খ্রিষ্টাব্দ।

 

৪. “শেখ রাসেল” এর জন্ম কত তারিখে?

 

উত্তর: বাংলা: ৩ কার্তিক ১৩৭১ বঙ্গাব্দ;

 

ইংরেজি: ১৮ অক্টোবর ১৯৬৪।

 

৫. “শেখ রাসেল” এর মৃত্যু হবে?

 

উত্তর: বাংলা: ৩১ শ্রাবণ ১৩৮২ বঙ্গাব্দ;

 

ইংরেজি: ১৫ আগস্ট ১৯৭৫। .

 

৬. “আমদের ছোট রাসেল সোনা” বইটির কততম সংস্করণ চলমান? .

 

উত্তর: ৪র্থ সংস্করণ।

 

৭. “আমদের ছোট রাসেল সোনা” বইটির ৪র্থ সংস্করণ কবে প্রকাশ পায়?

 

উত্তর: জানুয়ারি ২০২২ হিস্টাব্দ। (মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ)

 

৮. শেখ রাসেল এর জন্ম দিবস আরবিতে কত তারিখ?

 

উত্তর: ১১ জমাদিউস সানি ১৩৮৪।

 

৯. “আমাদের ছোট রাসেল সোনা” বইটি কাকে উৎসর্গ করা হয়েছে?

 

উত্তর: বিশ্বের সকল শিশুকে।

 

১০. “রাসেল, রাসেল তুমি কোথায়?” বলে রাসেলকে কে ডাকতেন?

 

উত্তর: রাসেল এর মমতামীয় মা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব।

 

১১. “মা, মা, মা তুমি কোথায় মা?” এটি কার উক্তি?

 

উত্তর: রাসেলের।

 

১২. কাকে ছাড়া রাসেল ঘুমাতে চাইত না?

 

উত্তর: মাকে।

 

১৩. ঘুমের সময় রাসেল কীভাবে ঘুমাতো?

 

উত্তর: মা শেখ ফজিলাতুন্নেসা মুজিব এর গলা ধরে ঘুমাতো।

 

১৪. মাকে রাসেল কি বলে ডাকত?

 

উত্তর: “মা* বলে আবার কখনও আব্বা বলেও ডাকত।

 

১৫. শেখ রাসেল এর জন্মের পর পরই বঙ্গবন্ধুকে কেন জেলে যেতে হয়েছিল?

 

উত্তর: ৬ দফা দেওয়ার কারণে তৎকালীন পাকিস্তানি শাসকরা বঙ্গবন্ধুকে জেলে বন্দি করেছিল

 

১৬. ৬ দফা দেওয়ার কারণে বঙ্গবন্ধুকে যখন জেলে যেতে হয়েছিল তখন শেখ রাসেল এর বয়স কত ছিল?

 

উত্তর: দেড় বছরের কিছু বেশি।

 

১৭. রাসেল সবার চোখের লি ছিল কেন?

 

উন্তর: সবার ছোট ও আদরের বলে।

 

১৮. শিশু রাসেলকে দেখলে কি করতে ইচ্ছে করত বড় ভাইবোনছের/ জবা কি করতো?

 

উত্তর: সুন্দর তুলতুলে গালটা টিপে আদর করতো।

 

১৯. শেখ রাসেল এর জন্ম কোথায় হয়?

 

উত্তর: ধানমন্ডির ৩২ নম্বর সড়কের বাসায়। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর শোবার ছরে।

 

২০. শেখ রাসেল এর জন্মের সময় বাড়ির অবস্থা কেমন ছিল?

 

উত্তর: দোতলা তখনো শেষ হয়নি।

 

২১. শেখ রাসেল এর মা শেখ ফজিলাতুন্নেসা মুজিব কীভাবে ঘর/বাড়ি তৈরি করেছিলেন?

 

উত্তর: একখানা করে ঘর তৈরি করেছিলেন।

 

২২. বাংলাদেশ কবে স্বাধীন হয়?

 

উত্তর: ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১ সালে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়।

 

২৩. কখন বিজয়ের পতাকা ঘরে ঘরে উড়ে?

 

উত্তর: ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১ সালে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়।

 

২৪. শেখ রাসেল বা শিশু শেখ রাসেল কৰে বন্দিদশা থেকে মুক্তি পেয়েছিল?

 

উত্তর: বিজয়ের একদিন পর ১৭ ডিসেম্বর ১৯১৭১ সালে।

 

২৫. শেখ রাসেল কোথায় বন্দি ছিলেন?

 

উত্তর: ধানমন্ডির পুরনো ১৮ নম্বর রোডের একটি বাড়িতে।

 

২৬. মুক্তির উচ্ভুল-আনন্দে কে মুক্তিযোদ্ধাদের সাজে মেতে উঠেছিল?

 

উত্তর: রাসেল।

 

২৭. শেখ রাসেল কেন মুক্তিযোদ্ধার সাজে সেজেছিলেন?

 

উত্তর: বন্দিদশা থেকে যুক্তির উজ্জল আনন্দে। –

 

২৮. শেখ রাসেল এর খেলার সাধী কে ছিলেন?

 

উত্তর: টিটো

 

২৯. টিটো এর সাথে শেখ রাসেল এর কী সম্পর্ক ছিল?

 

উত্তর: মামা-ভাগ্নে।

 

৩০. মুক্তিযোদ্ধার সাজে কার সাথে শেখ রাসেল মেতে উঠেছিলেন?

 

উত্তর: খেলার সাথী টিটোর সাথে।

 

৩১. শেখ রাসেল এর বাড়ির কাজ কীভাবে চলছিল?

 

উত্তর: একটু একটু করে বাড়ির কাজ চলছিল।

 

৩২. রাসেল কিসের মাংস পছন্দ করত না?

 

উত্তর: কবুতরের।

 

৩৩. শেখ রাসেলের পরিবার/বঙ্গবন্ধুর পরিবার কত তলায় থাকত?

 

উত্তর: নিচতলায়।

 

৩৪. শেখ রাসেল/শেখ হাসিনার ঘরটি বাড়ির কোন দিকে ছিল

 

উত্তর: উত্তর-পূর্ব দিকে।

 

৩৫. শেখ রাসেল এর জন্ম কখন ও কয়টায় হয়?

 

উত্তর: রাত দেড়টায়। .

 

৩৬. শেখ রাসেল এর জন্মের সষয় বঙ্গবন্ধু কোথায় ছিলেন?

 

উত্তর: নির্বাচনী মিটিং করতে চট্রগ্রামে ছিলেন।

 

৩৭. শেখ রাসেল এর জন্মের সময় প্রেসিডেন্ট প্রার্থী কে ছিলেন?

 

উত্তর: ফাতেমা জিন্নাহ।

 

৩৮. আইয়ুব খান কে ছিলেন?

 

উত্তর: তৎকালীন প্রেসিডেন্ট।

 

৩৯. কারা প্রেসিডেন্ট আইয়ুব খানের বিরুদ্ধে একটা মোর্চা করে নির্বাচনে নেমেছিলেন?

 

উত্তর: সর্বদলীয় এঁক্য পরিষদ।

 

৪০. তৎকালীন সব রাজনৈতিক দল কার বিরুদ্ধে ছিলেন?

 

উত্তর: প্রেসিডেন্ট আইয়ুব খানের বিরুদ্ধে।

 

৪১. তখনকার দিনে যোগাযোগের ভরসা কি ছিল?

 

উত্তর: ল্যান্ডফোন।

 

৪২. শেখ রাসেল এর জন্মের খবর বঙ্গবন্ধু বা তার পিতার নিকট কীভাবে পৌঁছায়?

 

উত্তর: ল্যান্ডফোন।

 

৪৩. শেখ রাসেল এর জন্মের সময় কারা উৎকষ্ঠায় ছিলেন?

 

উত্তর: শেখ হাসিনা, শেখ কামাল, শেখ জামাল, শেখ রেহানা ও তাদের খোকা কাকা।

 

88. শেখ রাসেল এর জন্মের সময় তার মায়ের সাথে কারা ছিলেন?

 

উত্তর: তার বড় ফুফু, মেজ ফুফু, একজন ডাক্তার এবং একজন নার্স।

 

৪৫. শেখ রাসেল এর জন্মের সময় কারা একবার ঘুমিয়ে আবার জেগে উঠেছিলেন?

 

উত্তর: শেখ জামাল আর শেখ রেহানা।

 

৪৬. কিসের অপেক্ষায় সবাই ঘুমে ঢুলঢুল চোখে জেগে ছিল?

 

উত্তর: নতুন অতিথি শেখ রাসেল এর আগমনী বার্তা শোনার অপেক্ষায়

 

৪৭. কে ঘর থেকে বের হয়ে প্রথম খবর দিলেন?

 

উত্তর: শেখ রাসেল এর মেজ ফুফু।

 

৪৮. শেখ রাসেল এর জন্মের পর বড় ফুফু রাসেলকে কার কোলে তুলে দিলেন?

 

উত্তর: রাসেল এর বড় বোন শেখ হাসিনার কোলে।

 

৪৯. জন্মের পর রাসেলের কি অবস্থা দেখা গেল? –

 

উত্তর: মাথা ভরা ঘন কালো চুল।

শেখ রাসেল একটি স্বপ্নের মৃত্যু। মানবতার প্রতীক ভালবাসার নাম আমাদের বন্ধু প্রবন্ধ রচনা

৫০. কে রাসেলকে ওড়না দিয়ে মুছতে শুরু করলো?

 

উত্তর: রাসেল এর বড় বোন শেখ হাসিনা।

 

৫১. শরীর মুছার পর রাসেলের বড় বোন কী করলেন?

 

উত্তর: চিরুনি দিয়ে শেখ রাসেল এর মাথার চুল আচড়াতে লাগলেন।

 

৫২. শেখ রাসেল এর বড় বোনের নাম কী?

 

উত্তর: শেখ হাসিনা।

 

৫৩. মেজ ফুফু শেখ রাসেল এর বড় বোন শেখ হাসিনাকে কেন মাথার চুল আচড়াতে নিষেধ করলেন?

 

উত্তর: মাথার চামড়া খুব নরম, তাই চিরুনি দেয়া যাবে না।

 

৫৪. কে রাসেল এর চুলে আরুল বুলিয়ে সিথি করে দিলেন?

 

উত্তর: শেখ হাসিনা।

 

৫৫. রাসেল এর কয় ভাই-বোন ছিলেন?

 

উত্তর:৫

 

৫৬. রাসেল ভাইবোনদের মধ্যে কততম ছিলেন?

 

উত্তর: ৫ম

 

৫৭. রাসেলদের ঘরে আনন্দের জোয়ার বয়ে যাচ্ছিল কেন?

 

উত্তর: ছোট্ট বাচ্চা রাসেলের জন্ম হয়েছিল।

 

৫৮. কে বার্ট্রান্ড রাসেলের ভক্ত ছিলেন?

 

উত্তর: শেখ রাসেল এর বাবা জাতির পিতা বঙ্জাবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান

 

৫৯. কে শেখ রাসেলের মাকে বার্ট্রান্ড রাসেলের বই পড়ে শোনাতেন?

 

উত্তর: শেখ রাসেল এর বাবা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান

 

৬০. কে বার্ট্রান্ড রাসেলের ফিলোসফির ভক্ত ছিলেন?

 

উত্তর: শেখ রাসেল এর মা শেখ ফজিলাতুনেছা মুজিব।

 

৬১. রাসেল এর নাম কে রাখেন?

 

উত্তর: শেখ রাসেল এর মা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব।

 

৬২. কে রাসেলকে বিছানায় শুইয়ে দিয়ে সংসারের কাজ করতেন?

 

উত্তর: শেখ রাসেল এর মা

 

৬৩. স্কুল বন্ধ থাকলে রাসেলের পাশে কে শুইতেন?

 

উত্তর: শেখ হাসিনা। *

 

৬৪. কে চুলের বেণি ধরে খেলতে পছন্দ করতেন?

 

উত্তর: রাসেল। .

 

৬৫. ছোট্ট রাসেল কার বেণি ধরে খেলতে পছন্দ করতেন?

 

উত্তর: শেখ হাসিনার।

 

৬৬. ছোট্র রাসেল চুলের বেণি ধরে কি করতেন?

 

উত্তর: হাত দিয়ে নাড়াচাড়া করতে করতে হাসতেনক।

 

৬৭. ছোট্ট রাসেল জন্মের প্রথম দিন থেকে তার ভাইবোনেরা কি করতো?

 

উত্তর: ছবি তুলতেন।

 

৬৮. রাসেল জন্মের পর কারা ছবি তুলতেন?

 

উত্তর: ছবি তুলতো এবং তার জন্য আলাদা আালবাম করেছিলেন!

 

৬৯. কত দিন অন্তর অন্তর/ কয় মাস অন্তর অন্তর শেখ রাসেল এর হবি আলবাম সাজানো হতো।

 

উত্তর: প্রতি মাস/প্রতি তিন মাস/ছয় মাস অন্তর।

 

৭০. ১৯৭১ সালে পাকিস্তানি হানাদার কী লুট করে নেয়?

 

উত্তর: শেখ রাসেলের ছবির আ্যালবাম।

 

৭১. ১৯৭১ সালে শেখ রাসেলের কী হারিয়ে যায়?

 

উত্তর: শেখ রাছেলের জন্মের পর থেকে বেড়ে উঠার অনেক দুর্লভ ছবি।

 

৭২. শেখ রাসেল এর বাসার সামনে কি ছিল?

 

উত্তর: ছোট্ট একটি লন

 

৭৩. কোন খাবার রক্ত বাড়াতে সাহায্য করলেও রাসেল পছন্দ করতেন না?

 

উত্তর: কবুতরের স্যুপ।

 

৭৪. কে বাসার সামনের বাগানের যত্ন নিতেন?

 

উত্তর: শেখ রাসেল এর মা শেখ ফজিলাতুনেছা মুজিব:

 

৭৫. বিকালে সবাই কোথায় বসতেন?

 

উত্তর: বাসার সামনের বাগানে।

 

৭৬. বিকালে রাসেলকে কিভাবে খেলতে দেয়া হতো?

 

উত্তর: বিকালে একটা পটি বিছিয়ে ছোট্ট রাছেলকে খেলতে দেওয়া হতো?

 

৭৭. রাসেল এর হাঁটার সুবিধার্থে কি করা হত?

 

উত্তর: বাগানের এক পাশে বীশ বেঁধে দেয়া হয়েছিল।

 

৭৮. কে বা কারা হাত ধরে রাসেলকে হাঁটাতে চেষ্টা করাতেন?

 

উত্তর: রাসেলের বড় বোন শেখ হাসিনা এবং অন্য ভাই-বোনেরা।

 

৭৯. রাসেলকে হাটাতে চাইলে সে কি করতো?

 

উত্তর: রাসেল শুরুতে হাটতে চাইতেন না।

 

৮০. রাসেল এর কথা ও কান্না কে টেপরেকর্ভারে রেকর্ড করতেন?

 

উত্তর: শেখ হাসিনা

 

৮১. রাসেল এর কখন হাঁটার ইচ্ছে আরো বেড়ে যায়?

 

উত্তর: ভাই-বোনেরা যখন তাকে হাত ধরে হাটাতে শুরু করলেন তখন তার হঠাৎ ইচ্ছে বেড়ে যায়।

 

৮২. রাসেল যখন হাটতো তখন বড় বোন কি করতেন?

 

উত্তর: হাটার মাঝে তিনি রাসেলের হাত থেকে আঙুল ছেড়ে দিতেন।

 

৮৩. রাসেল হাঁটার সময় তার আঙুল ছেড়ে দিলে কি করতো?

 

উত্তর: বিরক্ত হত।

 

৮৪. প্রথম কোথায় সে নিজে নিজে আঙুল ছাড়া হাটতে শুরু করলো?

 

উত্তর: সামনের বারান্দায় আঙুল ছাড়া হীটতে শুরু করলো।

 

৮৫. সামনের বারান্দায় রাসেল কার হাত ধরে হাটছিলো?

 

উত্তর: শেখ হাসিনার।

 

৮৬. রাসেলের প্রথম নিজে নিজে হীটতে দেখে বড় বোন কী ভেবেছিলেন?

 

উত্তর: ভেবেছিলো কতটুকু হেটে আবার তার হাত ধরবে। .

 

৮৭. রাসেল প্রথম দিন হাটতে হাটতে কোথায় যায়?

 

উত্তর: বাসার পেছনের বারান্দায় চলে যান।

 

৮৮. রাসেল কিভাবে তার ভাইদের নাম উচ্চারণ করত?

 

উত্তর: কামমাল,জামমাল।

 

৮৯. রাসেল সোনা হাটতে শিখে গেছে-কথাটি কে কাকে বলেছিলো?

 

উত্তর: শেখ হাসিনা। |

 

৯০. একদিনে এভাবে কোন বাচ্চাকে আমি হাঁটতে দেখিনি- এ উক্তিটি কার?

 

উত্তর: শেখ হাসিনা। ৷

 

৯১. রাসেলের সবকিছু কেমন ছিল?

 

উত্তর: ব্যতিক্রম ও অত্যন্ত মেধাবী।

 

৯২. রাসেল এর বড় বোন তার ব্যাপারে কী প্রমাণ পেয়েছিলেন?

 

উত্তর: রাসেলের মেধার।

 

৯৩. রাসেল বড় বোন শেখ হাসিনাকে কী বলে ডাকতেন?

 

উত্তর: হাসুপা।

 

৯৪. শেখ কামাল ও শেখ জামালকে রাসেল কী বলে ডাকতেন?

 

উত্তর:ভাই।

 

৯৫. শেখ হাসিনা কত সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন?

 

উত্তর: ১৯৬৭।

 

৯৬. শেখ রেহানাকে রাসেল কী বলে ডাকতেন?

 

উত্তর: আপু।

 

৯৭. শেখ কামাল ও শেখ জামালের নাম শেখানোর পরও রাসেল কী বলতো?

 

উত্তর: ভাই।

 

৯৮. শেখ রাসেল চলাফেরায় কেমন ছিলেন?

 

উত্তর: সাবধানী ও সাহসী।

 

৯৯. কালো কালো বড় পিপড়ে দেখলে কী করতো রাসেল?

 

উত্তর: হাত দিয়ে তা ধরতে যেতেন।

শেখ রাসেলের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে রচনা প্রতিযোগিতা 2021 || ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণি রচনা | শেখ রাসেল আমাদের বন্ধু শব্দ সংখ্যা 800

১০০. ওলা মানে কী?

 

উত্তর: বড় কালো পিপড়া।

 

১০১. কালো গিপড়ে কামড় দেয়ার পর রাসেলের কী অবস্থা হল?

 

উত্তর: আঙুল কেটে রক্ত বের হল।

 

১০২. টমি কে?

 

উত্তর: পোষা কুকুর।

 

১০৩. শেখ রাসেল কিসের নাম ”ভুট্টো” দিয়েছিলেন?

 

উত্তর: কালো গিপড়ের নাম।

 

১০৪. কোন সময়ে তরিতরকারি ও মাছের বেশ অভাব দেখা দিত?

 

উত্তর: বর্ষাকালে।

 

১০৫. রাসেলের ছোটবেলার টেপরেকর্ডার কেমন ছিল?

 

উত্তর: বেশ বড়।

 

১০৬. রাসেলের কান্না কাকে শুনানো হত?

 

উত্তর: টেপ রেকর্ভারের মাধ্যমে তা রাসেলকে শুনানো হত।

 

১০৭. টেপ রেকর্ডারে রাসেলের কান্না বাজানোর সময় মা কোথায় ছিলেন?

 

উত্তর: রান্নাঘরে।

 

১০৮, রাসেল এর টেপ করা কান্না শুনে কে হেসে ফেলতেন?

 

উত্তর: রাসেল এর মা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব।

 

১০৯. শেখ রাসেল কতদিন পরপর বাবার সাথে দেখা করার জন্য জেলে যেত?

 

উত্তর: ১৫ দিন পরপর।

 

১১০. রাসেলের বাবা কেন গ্রেফতার হয়েছিলেন?

 

উত্তর: ছয় দফা দেয়ার কারনে।

 

১১১. রাসেলের মুখে হাসি মুছে গেল কেন?

 

উত্তর: রাসেলের আবাকে খুজে না পেয়ে।

 

১১২. রাসেলের আবা কখন বন্দী হয়েছিলেন?

 

উত্তর: রাসেল যখন হাটতে শিখেছিলো এবং আধো আধো কথা বলতে শিখেছিলো

 

১১৩. বলাসেলের আব বন্দী হওয়ার পর মা কেন ব্যস্ত হয়ে পড়েছিলেন?

 

উত্তর: রাসেলের আবা বন্দী হওয়ার পর মামলা-মকদ্দমা সামলাতে,পাশাপাশি আওয়ামীলীগ-ছাত্রলীগ সংগঠন নেতা-কর্মীদের সাথে যোগাযোগ রাখতে।

 

১১৪. শেখ রাসেলর মা কে কোথায় সময় দিতে হতো?

 

উত্তর: সংগঠনকে সক্রিয় রেখে আন্দোলন-সংগ্রাম চালাতে।

 

১১৫. শেখ রাসেলের জন্ম পর তার বড় বোন কোথায় পড়তো?

 

উত্তর: কলেজে।

 

১১৬. শেখ কামাল কখন রাজনীতিতে যোগ দেন?

 

Also read :১৭ই মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উপলক্ষে ২২৪টি কুইজ

উত্তর: কলেজে।

 

১১৭. শেখ রাসেলের জন্ম সময় শেখ জামাল ও শেখ রেহানা কিসে পড়তে?

 

উত্তর: স্কুলে।

 

১১৮. রাসেলের আবা গ্রেফতার হওয়ার পর রাসেলের কি অবস্থা হলো?

 

উত্তর: রাসেলের খাওয়া-দাওয়া বন্ধ হয়ে যায়।

 

১১৯. রাসেল কার সাথে খেতেন?

 

উত্তর: ছোট ফুফার সাথে।

 

১২০. টেঁড়শ ভাজির সাথে চিনি দিয়ে কে রুটি খেতেন?

 

উত্তর: রাসেল এর ছোট ফুফা।

 

১২১. ছোট ফুফা রাসেলকে কী কী খেতে দিতেন?

 

উত্তর: ডিমের পোচের সাথে চিনি, টেড়শ ভাজির সাথে চিনি দিয়ে রুটি।

 

১২২. রাসেলের বাসার বুয়ার নাম কী ছিল?

 

উত্তর: আম্বিয়ার মা।

 

১২৩. রাসেলকে কোন বুয়া খুব আদর করতো?

 

উত্তর: আম্বিয়ার মা।

 

১২৪. কে রাসেলকে কোলে নিয়ে ঘুরে ঘুরে খাবার খাওয়াত?

 

উত্তর: আম্বিয়ার মা।

 

১২৫. রাসেলের বাসায় কোন পাখির ঘর ছিল?

 

উত্তর:কবুতরের।

 

১২৬. রাসেলের বাসায় কবুতরের ঘরটি কেমন ছিলো?

 

উত্তর: উঁচু করে ঘর করা ছিল।

 

১২৭. রাসেলের মা ভোরে উঠে কী করতেন? .

 

উত্তর: রাসেলকে নিয়ে কবুতরের ঘরে যেতেন এবং কবুতরদের খাবার দিতেন

 

১২৮. রাসেল কখন কবুতরের পেছনে ছুটতো?

 

উত্তর: রাসেল যখন হাঁটতে শিখেন।

 

১২৯. রাসেলের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের বর্ণনা দাও।

 

উত্তর: স্বাধীনচেতা, ব্যক্তিত্বসম্পন্ন, নিজের পছন্দের উপর বিশ্বাস ছিল।

 

১৩০. বাবার গ্রেফতারের পর কে মুক্তিযুদ্ধে যোগ দেন?

 

উত্তর: শেখ কামাল।

 

১৩১. রাসেল নিজের খাবারগুলো কাকে ভাগ দিত?

 

উত্তর: টমিকে।

 

১৩২. পাকিস্তানিরা রাসেলের মাকে কোথায় বন্দি করে রাখে?

 

উত্তর: ধানমন্ডির ১৮ নম্বর সড়কের একটি বাসায়।

 

১৩৩. রাসেলকে মাঝে মাঝে কোথায় নিয়ে যাওয়া হতো?

 

উত্তর: ফুফুর বাসায়। .

 

১৩৪. আগরতলা মামলার কারণে কতমাস শেখ হসিনার সাথে বঙ্জাবন্ধুর দেখা হয়নি?

 

উত্তর: ৬ মাস।

 

১৩৫. ‘ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ’ গঠানর পরে কি নিয়ে সবাই ব্যস্ত হয়ে পড়ে?

 

উত্তর: ৬ দফা ও ১১ দফা।

 

১৩৬. বঙ্গবন্ধুকে কবে কেন্দ্রিয় কারাগার থেকে ক্যান্টমেন্টে নিয়ে যাওয়া হয়?

 

উত্তর: ১৯৬৮ সালের ১৮ই জানুয়ারি।

 

১৩৭. আগরতলা মামলা কবে হয়েছিল?

 

উত্তর: ১৯৬৮ সালের ১৮ই জানুয়ারি

 

১৩৮. শেখ কামাল স্কুল শেষ করে কোন কলেজে ভর্তি হয়েছিল?

 

উত্তর: ঢাকা কলেজ।

 

১৩৯. কত সালে গণঅভ্যুত্থান হয়েছিল?

 

উত্তর: ১৯৬৯

 

১৪০. গণঅভ্যু্থানের পর বঙ্গবন্ধু কত তারিখে জেল থেকে মুক্তি পান?

 

উত্তর: ১৯৬৯ সালের ২২ ফেব্ুয়ারি।

 

১৪১. ১৯৬৯ সালে বঙ্জাবন্ধু জেলখানা থেকে মুক্তির সময় শেখ রাসেলের বয়স কত ছিল?

 

উত্তর: ৪ বছর।

 

১৪২. জয় কে ছিলেন?

 

উত্তর: শেখ হাসিনার বড় পুত্র।

 

১৪৩. কখন “অসহযোগ আন্দোলন, হয়েছিল?

 

উত্তর: ১৯৭১ সালের মার্চ মাসে।

 

১৪৪. রাসেল চার বছর বয়সে কোথায় বেশি খেলাধূলা করত?

 

উত্তর: দোতালার বারান্দায়

 

১৪৫. কে বারান্দার রেলিং ধরে দাঁড়িয়ে “হরতাল-হরতাল” বলে চিৎকার করত?

 

উত্তর: শেখ রাসেল।

 

১৪৬. কত তারিখে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী নিরস্ত্র বাঙালির ওপর হামলা চালায়?

 

উত্তর: ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ।

 

১৪৭. কে স্বাধীনতার ঘোষণা দেন?

 

উত্তর: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

 

১৪৮. কখন বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার ঘোষণা দেন?

 

উত্তর: ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ মধ্যরাতে।

 

১৪৯. কখন পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী বঙ্গবন্ধুকে গ্রেফতার করে?

 

উত্তর: ২৬ মার্চ প্রথম প্রহরের পরপরই

 

১৫০. শেখ কামাল কে ছিলেন?

 

উত্তর: বঙ্গবন্ধুর প্রথম পুত্র!

 

১৫১. শেখ জামাল কে ছিলেন?

 

উত্তর: বঙ্গবন্ধুর দ্বিতীয় পুত্র।

 

১৫২. পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী কর্তৃক বঙ্গবন্ধুকে গ্রেফতাতের সময় শেখ কামাল কোথায় আশ্রয় নেন?

 

উত্তর: বাসার পিছনে জাপানি কনস্যুলেটে। ।

 

১৫৩. পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী বজাবন্ধুর পরিবারের সদস্যদের কোথায় বন্দি করে রাখা হয়।

 

উত্তর: ধানমন্ডির ১৮ নম্বর সড়কের একটি একতলা বাসায়।

 

১৫৪. “কী হয়েছে রাসেল?”- উক্তিটি কে করেছিলেন?

 

উত্তর: শেখ হাসিনা। ।

 

১৫৫. ছোট বয়সে রাসেল মনের কষ্ট’ কার কাছে বলতো?

 

উত্তর: রমার কাছে।

 

১৫৬. কখন জয়ের জন্ম হয়?

 

উত্তর: ২৭ জুলাই ১৯৭১

 

১৫৭. কে মেশিনগানের গুলিতে কেপে উঠতো?

 

উতর: চার মাস বয়সি জয়।

 

১৫৮. মুক্তিযুদ্ধের সময় কে পকেটে তুলা রাখতো?

 

উত্তর: রাসেল

 

১৫৯. পাক সেনাদের অস্ত্র পরিষ্কার করার দৃশ্য জানালা দিয়ে দেখতো কে?

 

উত্তর: রাসেল।

 

১৬০. রাসেলের কত বছর বয়সে বঙ্গবন্ধুর মুক্তি পান?

 

উত্তর: চার বছর।

 

১৬১. রাসেল কী বলে স্লোগান দিত?

 

উত্তর: জয় বাংলা।

 

১৬২. রাসেলকে নিয়ে মা ও জামাল কোথায় আশ্রয় নেন?

 

উত্তর: পাশের বাসায়

 

১৬৩. রাসেল কিসের সাথে খেলা করত?

 

উত্তর: পায়রার সাথে।

 

১৬৪. কার জন্ম হওয়ার পর রাসেল আনন্দ পায়?

 

উত্তর: জয়ের।

 

১৬৫. সাইরেন বাজলে রাসেল কী করত?

 

উত্তর: জয়ের কানে তুলা গুজে দিত। ।

 

১৬৬. পুলিশ দেখলে রাসেল চিৎকার করে কী বলত?

 

উত্তর: “ও পুলিশ, কাল হরতাল” ।

 

১৬৭. মনের কষ্ট জানতে চাইলে রাসেল কী বলত?

 

উত্তর: চোখে ময়লা।

 

১৬৮. বাসার বাঞ্জার করে মেশিনগান। ছাদে পাকিস্তানিরা কী বসিয়েছিল?

 

উত্তর: মেশিন গান।

 

১৬৯. কে অনেক অস্ত্রের নাম শিখেছিলো?

 

উত্তর: রাসেল .

 

১৭০. রমা কে?

 

উত্তর: খেলার সাহী।

 

১৭১. রাসেলের থালা দেখতে কেমন ছিল?

 

উত্তর: ফুল আকা লাল থালা।

 

১৭২. এয়ার রেইডের সময় পাক সেনারা কোথায় ডুকে যেত?

 

উত্তর: বাঙ্কারে

 

১৭৩. পাকবাহিনী সারেন্ডার করে কত তারিখ?

 

উত্তর: ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১। –

 

১৭৪. বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পরিবার কত তারিখ মুক্তি পায়? |

 

উত্তর: ১৭ ডিসেম্বরে ।

 

১৭৫. বঙ্গবন্ধুর বাসায় পাক সৈনিকদের কারা বন্দী করেছিল?

 

উত্তর: ভারতীয় মিত্রবাহিনী।

 

১৭৬. ধানমভি ৩২ নম্বর বাসা লুটপাট করেছেল কারা?

 

উত্তর: পাক সেনারা।

 

১৭৭. বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কত তারিখ দেশে ফিরে আসেন?

 

উত্তর: ১০ জানুয়ারি ১৯৭২।

 

১৭৮. দেশে ফিরে বঙ্গবন্ধু প্রথম কাদের কাছে গিয়েছিলেন?

 

উত্তর: তার প্রিয় মানুষের কাছে।

 

১৭৯. শেখ রাসেলের সব থেকে আনন্দের দিন কোনটি ছিল?

 

উত্তর: যেদিন বঙ্গবন্ধু দেশে ফিরে এলেন।

 

১৮০. ধানমন্ডির ৩২ নম্বর বাসায় বঙ্গবন্ধুর পরিবার কত ভারিখ ফিরে এসেছিলেন?

 

উত্তর: ১৯৭২’র ফেব্রুয়ারি মাসে

 

১৮১. তৎকালীন প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসম্বনের নাম কি?

 

উত্তর: গপণভবন।

 

১৮২. প্রধানমন্ত্রীর কার্ধালয় হিসেবে ব্যবন্ৃত হতো কোনটি?

 

উত্তর: সুগন্ধা

 

১৮৩. বঙ্গবন্ধু দুপুরে কোখায় বিশ্রাম নিতেন?

 

উত্তর: গণভবন। ২২৯৫৫

 

১৮৪. রাসেল প্রতিছিন বিকেলে কোথায় আসত?

 

উন্তর: গণভবন।

 

১৮৫. পরিবারের সবাই মিলে একদিন কোথায় ঘুরতে হাওয়া হয়?

 

উত্তর: উত্তরা গণননে।

 

১৮৬. উত্তরা গণভবন কোথায়?

 

উত্তর:নাটোরে।

 

১৮৭. উন্তরা গণভবনে এসে রাসেল কি নিয়ে ব্যস্ত থাকে?

 

উত্তর: মাছ ধরতে।

 

১৮৮. রাসেলের প্রিয় খেলা কোনটি?

 

উত্তর: মাছ ধরা এবং ছাড়া।

 

১৮৯. শেখ রাসেল কোন ভুলে ভর্তি হয়েছি?

 

উত্তর: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ল্যাবরেটরি ভুলে।

 

১৯০. শেখ রাসেল টুঙ্গিপাড়া প্রাযের বাচ্চাদের জন্য কি বানিয়ে দিয়েছিল?

 

উত্তর: ডামি বন্দুক।

 

১৯১. শেখ রাসেল কিভাবে দুর্ঘটনার সম্মুখীন ছন?

 

উত্তর: “মপেট” মোটরসাইকেল চালানোর সময় পা পুড়ে লিয়ে। ‘

 

১৯২. শেখ মুজিবুর রহমান চিকিৎসা করাতে কোথায় গিয়েছিঙ্গেন?

 

উত্তর: রাশিষা

 

১৯৩. রাসেল কখন খুব খুশি হয়ে হাত ভালি ছিভ?

 

উত্তর: আকাশে প্রেন দেখা গেলেই।

 

১৯৪. কে কে হেলমেট পরে যুদ্ধ-খেলা শুরু করেছিল?

 

উত্তর: রাসেল এবং টিটো।

 

১৯৫. ধানসভির ৩২ নম্বর বাসা বসবাসের অযোগ্য হয়ে পড়েছিল বোন?

 

উত্তর: ধানমভির বাসা লুটপাট করে বাধরুষ, দরজা-ভানালা ভেঙ্গে পড়ে তাই তা বসবাসের অযোগ্য হয়ে পড়ে।

 

১৯৬. বাড়ি মেরামত করার পর কোন যাসে সবাই ৩২ নাম্বরের বাসায় ফিরে আসে।

 

উত্তর: ফেব্রুয়ারি মাসে।

 

১৯৭. লেখাপড়া শেখার জন্য রাসেল কাকে পছন্দ করতো।

 

উত্তর: ওমর আলীকে।

 

১৯৮. ওমর আলীর বাড়ি কোথা?

 

উত্তর: বগুড়া।

 

১৯৯. ওমর আলী কে?

 

উত্তর: গৃহশিক্ষক।

শেখ রাসেল একটি স্বপ্নের মৃত্যু। মানবতার প্রতীক ভালবাসার নাম আমাদের বন্ধু প্রবন্ধ রচনা

২০০. কে রাসেলের জন্য কমিক বই নিয়ে আসত?

 

উত্তর: ওমর আলী

 

২০১. স্বাধীনতার পর রাসেলের জন্য শিক্ষক হিসেবে কাকে নিয়োগ দেওয়া হয়?

 

উত্তর: একজন ভদ্রমহিলাকে।

 

২০২. রাসেলের সব কথা কাকে শুনতে হতো?

 

উত্তর: শিক্ষয়িত্রীকে।

 

২০৩. রাসেল শিক্ষয়িত্রীকে প্রতিদিন কি খেতে বাধ্য করত?

 

উত্তর: দুটো করে মিষ্টি। ‘

 

২০৪. রাসেলের বাবা ধানমভির ৩২ এর কোন তলায় অফিস করতেন?

 

উত্তর: নিচতলায়।

 

২০৫- রাসেলের খুদে-বাহিনীর জামা কাপড় কিনে কে, কোথা থেকে টু্গীপাড়ায় নিয়ে যেতেন?

 

উত্তর: রাসেলের মা, ঢাকা থেকে।

 

২০৬. কে রাসেলকে এক টাকার নোটের বান্ডিল দিতেন?

 

উত্তর: নাসের কাকা।

 

২০৭. রাসেলের প্রি স্যুট কে বানিয়ে দিয়েছিলেন? !

 

উত্তর: রাসেলের মা। ।

 

২০৮. সমুদ্রে জাহাজ কমিশনে রাসেল কার সাথে যাওয়ার সুযোগ পেত?.

 

উত্তর: বাবা।

 

২০৯. জাপানে রাসেল কার কাছে রাতে ঘুমাত?

 

উত্তর: বাবার!

 

২১০. কোন দুই ভাই রাসেলের সঙ্গে খেলা করত?

 

উত্তর: আদিল ও ইমরান দুই ভাই।

 

২১১. রাসেল কার বিয়েতে হলুদের রং খেলছিল?

 

উত্তর: ওর সমবয়সীদের সাথে।

 

২১২. “ডগ ফাইট” শব্দটি কোথায় ব্যবহৃত হয়?

 

উত্তর: আকাশযুদ্ধের ক্ষেত্রে।

 

২১৩, দেশ স্বাধীনের পর ভাইদের ফিরে পেয়েও কেন শেখ রাসেলের মন খারাপ থাকতো?

 

উত্তর: বাবার অভাববোধ হতো তাই।

 

২১৪, শেখ রাসেলের ছোট বাসায় কয়টা কামরা ছিল?

 

উত্তর: দুইটা।

 

২১৫. শেখ রাসেলের বাসার সামনে আরেকটা বাসা কেন ভাড়া নেওয়া হয়?

 

উত্তর: বাসায় এত লোকজন আসতো যে বাসায় স্থান সংকুলান হচ্ছিল না

 

২১৬ একরের নিজেদের বাড়িতে বদদিদশায শেখ হাসিনার পরিবারের কোন সদস্যকে পাকবাহিনি এসে বলতো, “তোমাকে ধরে নিয়ে শিক্ষা দেবো?

 

উত্তর: শেখ জামাল।

 

২১৭. বঙ্গবন্ধু মুক্তিযুদ্ধের পর কবে বন্দি দশা থেকে মুক্ত হয়ে বাংলাদেশে আসেন??

 

উত্তর: ১০ জানুয়ারি ১৯৭২।

আমাদের বন্ধু শেখ রাসেল,শেখ রাসেল এর জীবন কাহিনী জেনে নিন। মানবতার প্রতীকি শিশু শেখ রাসেল

২১৮. রাসেলকে কে এয়ারপোর্ট নিয়ে গেলেন?

 

উত্তর: রাসেলের দাদু শেখ লুৎফর রহমান। তই

 

২১৯. রাসেলের বড় হয়ে কি হতে চেয়েছেল?

 

উত্তর: আর্মি অফিসার।

 

২২০. কামাল ও জামাল কোথায় থেকে ফিরে এসেছে?

 

উত্তর: রণাঙ্গন।

 

২২১. রাসেলকে মুক্তিযুদ্ধের গল্প কে শুনাতো?

 

উত্তর: শেখ কামাল ও শেখ জামাল।

 

২২২. কোন দেশের শিশুরা তাদের টিফিনের টাকা দেয় আমাদের দেশের শিশুদের জন্য?

 

উত্তর: জাপান।

 

২২৩. বঙ্গবন্ধুর রাষ্ট্রীয় সফরে বঙ্গবন্ধুর সাথে পরিবারের কোন কোন সদস্য যায়?

 

উত্তর: শেখ রেহানা ও রাসেল।

 

২২৪. জাপান সফরে রাসেল রাতের বেলা কার সাথে ঘুমাত? |

 

উত্তর: বাবা।

 

২২৫. কবে শেখ কামাল ও শেখ জামালের বিয়ে হয়?

 

উত্তর: পচান্তরের জুলাই মাসে (১৪ জুলাই এরং ১৭ জুলাই)।

 

২২৬. পাকিস্তান কোন তারিখে আত্মসমর্পণ করে?

 

উত্তর: ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১ সালে।

 

২২৭. বাংলাদেশ কোন তারিখে পাকিস্তান/হানাদার মুক্ত হয়?

 

উত্তর: ১৭ ডিসেম্বর ১৯৭১ সালে।

 

২২৮. কোন দেশের সরকার রাসেলের জন্য বিশেষ কর্মসূচি রাখে?

 

উত্তর: জাপান।

 

২২৯. কারা আমাদের মুক্তিযুদ্ধে সমর্থন দেয়?

 

উত্তর: জাপানিরা।

 

২৩০ রাসেল ও টিটোর মধ্যে সম্পর্ক কি?

 

উত্তর:মামা-ভাগে।

 

২৩১ ওমর আলী কোন পত্রিকার এডে কণ্ঠ দিয়েছিলেন?

 

উত্তর: দি পিপন্স পত্রিকার

 

২৩২ রাসেল কাকে এসে বলে, “টমি বকা দিচ্ছে।

 

উত্তর: রেহানাকে।

 

২৩৩ এই বইতে দুইজন রাষ্ট্রনায়কের নাম আছে, লিখ।

 

উত্তর: ইন্দিরা গান্ধী ও এডওয়ার্ড কেনেডি।

শেখ রাসেল শিশু পার্ক (Sheikh Rasel Shishu Park) গোপালগঞ্জ

২৩৪ আলোকচিত্রে একজন জাতীয় অধ্যাপককে দেখা যায়, তার নাম লিখ।

 

উত্তর: ডাঃ নুরুল ইসলাম।

 

২৩৫ ১৯৭১ এর ডিসেম্বরে জয়ের বয়স কত ছিল? ।

 

উত্তর: ৪ মাস।

শেখ রাসেল রচনা, শেখ রাসেল রচনা প্রতিযোগিতা ২০২১, শেখ রাসেল রচনা pdf, শেখ রাসেল রচনা প্রতিযোগিতা ২০২২, শেখ রাসেল রচনা ২০০ শব্দ, স্মৃতির পাতায় শেখ রাসেল রচনা, খেলাধুলায় শেখ রাসেল রচনা, আমার ভাবনায় শেখ রাসেল রচনা

Facebook Notice for EU! You need to login to view and post FB Comments!

Leave a Reply Cancel reply