Sukanta Bhattacharya in Biography-সুকান্ত ভট্টাচার্যের জীবনী

সুকান্ত ভট্টাচার্য কে ছিলেন ?

ছেলেটির নাম ছিল সুকান্ত। কিশোর কবি সুকান্ত ভট্টাচার্য।
সুকান্ত ভট্টাচার্য (sukanta bhattacharya) ছিলেন একজন তরুণ বাঙালি কবি এবং একই সাথে নাট্যকার ।
তিনি ছিলেন বাংলা সাহিত্যের মার্কসবাদী আদর্শে বিশ্বাসী এবং প্রগতিশীল চেতনার অধিকারী। ছোটবেলা থেকেই তিনি কৃষক, শ্রমিক ও সর্বহারাদের কথা ভাবতেন। সুকান্ত খুব কাছ থেকে দেখেছেন সাধারণ মানুষের দুর্বিষহ জীবন।
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর এবং কাজী নজরুল ইসলামের মত, আধুনিক বাংলা কবিতার অন্যতম প্রধান ব্যক্তিত্ব ছিলেন কিশোর কবি সুকান্ত ভট্টাচার্য।

ভি এস নাইপল : জীবন ও সাহিত্য V.S. Naipaul Books Biography
তিনি জীবিত থাকা অবস্থায় তাঁর কবিতাগুলি ব্যাপকভাবে প্রচারিত হয়নি, তবে তাঁর মৃত্যুর পরে তাঁর খ্যাতি এমন পরিমাণে বৃদ্ধি পায় যে তিনি বিংশ শতাব্দীর অন্যতম জনপ্রিয় বাঙালি কবি হয়ে ওঠেন। এই কিশোর কবির মহৎ চিন্তা শুধু পণ্ডিতদের মধ্যেই দেখা যায়।
সুকান্ত ভট্টাচার্যের কবিতায় বিদ্রোহী সমাজতান্ত্রিক চিন্তা, দেশপ্রেম ও মানবতাবাদের বৈশিষ্ট্য রয়েছে।
কবির পাশাপাশি তিনি একজন মার্কসবাদী হিসেবে তার কৃতিত্ব রেখে গেছেন । দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার বিরুদ্ধে, তিনি তার কলম চালিয়েছিলেন। ফলে তিনি হয়ে উঠেছিলেন সমাজতন্ত্র ও সাম্যবাদের একনিষ্ঠ সৈনিক।
তিনি কবি সুভাষ মুখোপাধ্যায় এবং সুরকার সলিল চৌধুরীর উপর উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলেছিলেন যারা তার কিছু জনপ্রিয় কবিতাকে সঙ্গীত এ রূপান্তরিত করেছিলেন ।

সুকান্ত ভট্টাচার্যের জন্ম এবংপরিবার :

কিশোর কবি সুকান্ত ভট্টাচার্যের জন্ম হয় 1926 খ্রিস্টাব্দের 16 ই আগস্ট বাংলার 1333 সালের 30 শে শ্রাবণ কলকাতার কালীঘাটে, তার দাদুর বাড়িতে, তার পরিবার ছিল আধুনিক বাংলাদেশের গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া গ্রামে ।তাঁর পূর্বপুরুষরা ভাগ্যের সন্ধানে কলকাতায় এসে বেলেঘাটা এলাকায় বসতি স্থাপন করেন। জাজন-জাজন ছিল পারিবারিক বৃত্তি।
তার বাবার নাম ছিল নিবারণ চন্দ্র ভট্টাচার্য এবং মা ছিলেন সুনীতি দেবী
সুকান্ত ভট্টাচার্যের বাবা নিবারণ চন্দ্র ভট্টাচার্য ছিলেন সারস্বতনামক একটি প্রকাশক ও লাইব্রেরীর মালিক মা ছিলেন গৃহিণী
তিনি তার মা বাবার সাত পুত্রের মধ্যে ছিলেন দ্বিতীয় ,
মনোমোহন, সুশীল, প্রশান্ত, বিভাস, অশোক এবং অমিয় ছিলেন অন্য ছয় পুত্র। মনোমোহন ছিলেন নিবারণ ভট্টাচার্যের প্রথম বিবাহের জ্যেষ্ঠ পুত্র। সুকান্ত মনোমোহন ও তাঁর স্ত্রী সরযূ দেবীর সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে যুক্ত ছিলেন। বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য, পশ্চিমবঙ্গের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তাঁর ভাগ্নে- তাঁর চাচাতো ভাইয়ের ছেলে।

 

এক ক্ষণজন্মা কবির জীবন: কতটুকু চেনেন সুকান্তকে?

দেয়ালে দেয়ালে মনের খেয়ালে লিখি কথা,

আমি যে বেকার পেয়েছি লেখার স্বাধীনতা…”

যেকোনো কলমসৈনিকের কলম ছুটিয়ে চলার অনুপ্রেরণা হিসেবে এ দু’টি কথা অনেক ইন্ধন জোগায়। ক্ষণজীবীতা যে কেবল ক্ষণজীবী প্রভাই ছড়ায় না, তার অনবদ্য দৃষ্টান্ত কিশোর কবি সুকান্ত ভট্টাচার্য। তার কর্ম তার বয়সকে, এমনকি তার জীবনকেও ছাড়িয়ে গিয়েছে এবং তার এই অতিক্রান্ত প্রতিভা আজো দেদীপ্যমান বাংলা সাহিত্যে।

সুকান্ত ভট্টাচার্যের শৈশব এবং শিক্ষা :

যদিও তার পরিবার আধুনিক বাংলাদেশের গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া গ্রামে ছিল। তবে সুকান্ত তার শৈশব কাটিয়েছেন বাগবাজারের নিবেদিতা লেনে, তাদের বাড়িতে।
সুকান্ত ভট্টাচার্য যখন ছোট ছিলেন তখন তাকে প্রাথমিক শিক্ষার জন্য কলকাতার বেলেঘাটা নামক একটি স্থানীয় প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পাঠানো হয়েছিল যে বিদ্যালয়ের নাম ছিল কমলা বিদ্যামন্দির।
এখানে তিনি পড়াশোনা শুরু করেন।

সন্তানকে এই ৭টি কথা প্রতিদিন একবার হলেও বলা উচিত

তিনি শীঘ্রই একজন প্রতিভাধর ছাত্র হয়ে ওঠেন এবং শিক্ষকদের কাছে পছন্দের ছাত্র হয়ে উঠেছিলেন সুকান্ত ভট্টাচার্য।
সুকান্ত বইয়ের বাইরের অনেক বই পড়তেন।

বিশেষ করে তিনি প্রচুর ছড়ার বই পড়তেন, তিনি মায়ের কাছে রামায়ণ ও মহাভারত পড়তেন। এবং তার মা সেসব মন দিয়ে শুনতেন
প্রাথমিক বিদ্যালয় কমলা বিদ্যামন্দিরেই তার সাহিত্যজীবন শুরু হয়। তার প্রথম ছোটগল্প প্রকাশিত হয় স্কুলের ছাত্র পত্রিকা সঞ্চায়-এ। পরবর্তীতে বিজন ভট্টাচার্য সম্পাদিত শিখা পত্রিকায় তাঁর আরেকটি গদ্য রচনা “বিবেকানন্দর জীবনী” প্রকাশিত করা হয়েছিল ।
1945 সালে বেলেঘাটা দেশবন্ধু উচ্চবিদ্যালয় থেকে প্রবেশিকা পরীক্ষা দেয়ার জন্য অংশগ্রহণ করে কিন্তু এই প্রবেশিকা পরীক্ষায় তিনি ব্যর্থ হন।

তিনি যখন স্কুলে সপ্তম শ্রেণীতে পড়েন। তিনি ছাত্রদের বিভিন্ন ধরনের লেখা ও ছবি নিয়ে একটি হাতে লেখা ম্যাগাজিন শুরু করেন যার নাম ছিল ‘সপ্তমিকা’।
এইসব দেখে শিক্ষকরা বিশেষ করে সুকান্তের সাহিত্যকর্মকে উৎসাহিত করতেন।
সুকান্তের বয়স যখন মাত্র দশ বা এগারো বছর, তিনি ‘রাখাল ছেলে’ নামে একটি রূপক গান রচনা করেন।

তিনি মধুমালতী এবং সূর্যপ্রনাম নামে দুটি গীতিমূলক চলচ্চিত্রও রচনা করেছিলেন।

সুকান্ত ভট্টাচার্যের কর্মজীবন:

সুকান্ত একজন সফল কবি হয়ে উঠতে পেরেছিলেন কারণ তিনি এমন এক ভাষাকে আলিঙ্গন করতে পেরেছিলেন যা হাজার হাজার মানুষের আবেগকে প্রতিধ্বনিত করেছিল হাজার হাজার মানুষের কণ্ঠে অনুরণিত হয়েছিল তার কবিতা।
স্কুলে পড়ার সময় থেকেই কবি সুকান্ত বিভিন্ন রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। এই সময় তিনি ছাত্র আন্দোলন ও বামপন্থী রাজনৈতিক কাজের সাথে যুক্ত হওয়ার জন্য তার পড়াশোনার সমাপ্তি ঘটিয়ে ছিলেন। শহর এবং প্রদেশ যে বিস্ময়কর সহিংসতার মধ্যে পড়েছিল তা ধারণ করে।

ফ্যাসিবাদী আগ্রাসন ,সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা ও অনৈতিক ব্রিটিশ শাসনের বিরুদ্ধে তিনি ও তার দল ভীষণভাবে সক্রিয় হন।
1944 সালে ভারতের কমিউনিস্ট পার্টিতে তিনি যোগদান করেন।
সাধারণ মানুষকে রাজনৈতিক কর্মে লিপ্ত হওয়ার জন্য সুকান্ত ভট্টাচার্যের কবিতা গুলি ভীষণভাবে সাহস ও অনুপ্রেরণা জুগিয়ে ছিলেন
কিছু লোক তার কবিতাকে ঘৃণ্য রাজনৈতিক স্লোগান হিসেবে প্রচার করতে চায়। তারই জবাবে প্রবীণ কবি সুভাষ মুখোপাধ্যায়। তিনি বলেন: “আমি তার কবিতা হারানোর ভয়ে স্লোগান ঢেকে রাখিনি।
শুধু যুদ্ধ নয়, বৃটিশ শাসন এবং ১৩৫০ খ্রিস্টাব্দে তৎকালীন কিছু ধনী সমাজের কারণে মানুষের জীবন অসহনীয় হয়ে ওঠে: এর সাথে ছিল ঝড়, বন্যা ও মহামারীর মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগ হাজার হাজার অসহায় মানুষ এরইমধ্যে রাস্তার মধ্যে পড়ে থেকে মারা যান অত্যাচারী ব্রিটিশ শাসকরা তাদের দিকে একবারও ফিরে তাকাননি এই সময় এই নির্মম কর্মকাণ্ডের প্রতিবাদে সুকান্তের কলম জ্বলে উঠল।

ঘুমের মধ্যে কখনো কি পায়ের পেশিতে টান পড়ে?

সুকান্ত ভট্টাচার্যের রচনাবলী গুলি:

তার অসামান্য কাব্যগ্রন্থ গুলির মধ্যে ছিল ছাড়পত্র ,পূর্বাভাস ,অভিযান, ঘুম নেই মিঠে কড়া ,গীতিগুচ্ছ হরতাল ,প্রভৃতি ।
সুকান্ত ভট্টাচার্যের সমস্ত লেখাগুলি সুকান্ত সমগ্র নামে একটি বইয়ে সংকলিত আছে ।
কবি সুকান্ত রাজনীতির অন্যতম মতাদর্শে বিশ্বাস করতেন, তাই সেই মতাদর্শের প্রতি তাঁর ভক্তি ছিল।
তিনি দৈনিক স্বাধীনতা এর ‘কিশোর সভা’ বিভাগ সম্পাদনা করেন, যা কমিউনিস্ট পার্টি দ্বারা প্রকাশিত হয় এবং সেইসাথে ফ্যাসিস্ট বিরোধী লেখক ও শিল্পীদের সোসাইটির পক্ষ থেকে 1944 সালে একটি কবিতা সংকলন, অকাল প্রকাশ করা হয়েছিল ।
তাঁর কবিতাগুলি সাধারণ মানুষের দুঃখ-কষ্ট এবং তাদের বেঁচে থাকার জন্য সংগ্রামের বর্ণনা দেয়, ও শোষণমুক্ত সমাজের প্রত্যাশা করেছিল।
দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়, ভয়ঙ্করভাবে বিভ্রান্ত মানুষকে সতর্ক করার জন্য সুকান্ত অনেক গান রচনা করেছিলেন।

আমরা এসেছি – সুকান্ত ভট্টাচার্য

কারা যেন আজ দুহাতে খুলেছে, ভেঙেছে খিল,
মিছিলে আমরা নিমগ্ন তাই, দোলে মিছিল।
দু:খ-যুগের ধারায় ধারায়
যারা আনে প্রাণ, যারা তা হারায়
তারাই ভরিয়ে তুলেছে সাড়ায় হৃদয়-বিল।
তারাই এসেছে মিছিলে, আজকে চলে মিছিল।।

কে যেন ক্ষুব্ধ ভোমরার চাকে ছুঁড়েছে ঢিল,
তাইতো দগ্ধ, ভগ্ন, পুরনো পথ বাতিল।
আশ্বিন থেকে বৈশাখে যারা
হাওয়ার মতন ছুটে দিশেহারা,
হাতের স্পর্শে কাজ হয় সারা, কাঁপে নিখিল।
তারা এল আজ দুর্বারগতি চলে মিছিল।।

আজকে হালকা হাওয়ায় উড়ুক একক চিল,
জনতরঙ্গে আমরা ক্ষিপ্ত ঢেউ ফেনিল।
উধাও আলোর নিচে সমারোহ,
মিলিত প্রানের একী বিদ্রোহ!
ফিরে তাকানোর নেই ভীরু মোহ, কী গতশীল!
সবাই এসেছে, তুমি আসোনিকো, ডাকে মিছিল।।

একটি কথায় ব্যক্ত চেতনা : আকাশে নীল,
দৃষ্টি সেখানে তাইতো পদধ্বনিতে মিল।
সামনে মৃত্যুকবলিত দ্বার,
থাক অরণ্য, থাক না পাহাড়,
ব্যর্থ নোঙর, নদী হব পার, খুঁটি শিথিল।
আমরা এসেছি মিছিলে, গর্জে ওঠে মিছিল।।

সুকান্ত ভট্টাচার্যের মৃত্যু:

সুকান্ত ভট্টাচার্য (1926-1947) ছিলেন একজন অসাধারণ ব্যক্তি যার 21 বছর বয়সে অকাল মৃত্যু সম্ভবত আমাদের সাহিত্যকে অনেক উল্লেখযোগ্য কাজ থেকে বঞ্চিত করেছিল।
তাঁর স্বল্পজীবনে তিনি যে কয়েকটি রচনা লিখেছিলেন তা বাংলা সাহিত্যের মঞ্চে স্থায়ী স্থান খোদাই করার জন্য যথেষ্ট ছিল। সুকান্ত তার কবিতায় দরিদ্রদের করুণ জীবন চিত্রিত করেছেন। ‘হায় মহাজীবন’ (হে মহান জীবন) সম্ভবত তাদের মধ্যে সবচেয়ে বিখ্যাত ।
স্বাধীনতার নতুন সূর্য নিজের চোখে দেখতে পাননি এই কবি। স্বাধীনতার এখনো কয়েক মাস বাকি। তখন তিনি যাদবপুর যক্ষ্মা হাসপাতালের একটি কক্ষে শয্যাশায়ী হয়ে দিন গুনছেন
সকলের প্রিয় কিশোর কবি সুকান্ত ভট্টাচার্য সেদিনই 21 বছর বয়সে পরিণত হবেন। কিন্তু যক্ষ্মা তরুণ এবং প্রতিশ্রুতিশীল কবির জীবনকে ছিনিয়ে নিয়েছিল।
আরো তিন মাস বেঁচে থাকলে সুকান্ত তার জীবনের সেরা জন্মদিনের উপহার পেতেন। বিপ্লবী কবি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করার তিন মাস দুই দিন পর, তাঁর প্রিয় দেশ তার কষ্টার্জিত স্বাধীনতা অর্জন করেছিল – 15ই আগস্ট, 1947- সালে

Facebook Notice for EU! You need to login to view and post FB Comments!

Leave a Reply Cancel reply