গুরুদাস কলেজের এই মঞ্চ হয়ে রইল কেকে’র শেষ মিলনমেলার সাক্ষী

কলকাতার গুরুদাস কলেজে এক অনুষ্ঠান চলাকালে মারা গেছেন প্রখ্যাত ভারতীয় সঙ্গীতশিল্পী কৃষ্ণকুমার কুন্নাথ (কে কে)। তার বয়স হয়েছিল ৫৪ বছর। মঙ্গলবার (৩১ মে) স্থানীয় সময় রাতে কলেজের নজরুল মঞ্চে অনুষ্ঠানটি চলছিল। সেখানে গাইতে গাইতে অসুস্থ হয়ে হোটেলে ফিরে যান তিনি।

আরও পড়ুন- এক পায়ে স্কুলে যাওয়া সেই সীমার পাশে সোনু সুদ

ভারতীয় গণমাধ্যম নিউজ১৮ বলছে, এই আয়োজনে একটা-দুটো গান গেয়ে ব্য়াকস্টেজে গিয়ে বিশ্রাম নিচ্ছিলেন কেকে। যদিও অনুষ্ঠানের আগে তার কোনো ধরনের শারীরিক অসুস্থতার লক্ষণ দেখা যায়নি।

অনুষ্ঠান পরিচালনার দায়িত্বে থাকা ব্যক্তিদের বরাত দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়, মঞ্চে প্রচণ্ড ঘামছিলেন কেকে। কিছুটা অস্বস্তিও বোধ করছিলেন। এক পর্যায়ে মঞ্চে থাকা স্পটলাইট বার বার বন্ধ করতে বলেছিলেন কেকে। তার এই অস্বস্তির বিষয়টি চোখে পড়েছিল অনেকেরই। তবে কিছুক্ষণ পরে আবার তাকে স্বাভাবিক হতেও দেখা গেছে।

অনুষ্ঠান পরিচালনার দায়িত্বে থাকা ব্যক্তিদের বরাত দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়, মঞ্চে প্রচণ্ড ঘামছিলেন কেকে। কিছুটা অস্বস্তিও বোধ করছিলেন। এক পর্যায়ে মঞ্চে থাকা স্পটলাইট বার বার বন্ধ করতে বলেছিলেন কেকে। তার এই অস্বস্তির বিষয়টি চোখে পড়েছিল অনেকেরই। তবে কিছুক্ষণ পরে আবার তাকে স্বাভাবিক হতেও দেখা গেছে।

 গুরুদাস-কলেজের-এই-মঞ্চ

হৃদরোগে মৃত্যু হয় কেকে’র, ধারণা চিকিৎসকদের

তার শেষ স্মৃতির সাক্ষী হয়ে রইল সুরের শহর কলকাতা

কলকাতার গুরুদাস কলেজে অনুষ্ঠান চলাকালে মারা গেছেন বিখ্যাত ভারতীয় সঙ্গীতশিল্পী কৃষ্ণকুমার কুন্নাথ (কেকে)। তার শেষ স্মৃতির সাক্ষী হয়ে রইল সুরের শহর কলকাতা। প্রাথমিকভাবে চিকিৎসকরা ধারণা করছেন, হঠাৎ হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়েই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন তিনি। মঞ্চে অসুস্থ হয়ে পড়লে তিনি হোটেলে ফিরে যান। তখন কিছু ভক্ত সেলফি তোলার অনুরোধ জানালেও তাদের ফিরিয়ে দেন কেকে।

এরপর অসুস্থতা বাড়তে থাকলে তাকে নেওয়া হয় কলকাতার একটি প্রথম সারির বেসরকারি হাসপাতালে।

মঙ্গলবার (৩১ মে) স্থানীয় সময় রাত সাড়ে ৯টায় সেখানকার চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে ভারতীয় গণমাধ্যম আনন্দবাজার পত্রিকা।

আরও পড়ুন- রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ: বাংলাদেশের উপর যে পাঁচটি ক্ষেত্রে এর প্রভাব পড়েছে

মৃত্যুর কারণ জানতে কেকের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠিয়েছে পুলিশ। এর আগে, সোমবার মুম্বাই থেকে গানের দল নিয়ে কলকাতায় আসেন কে কে। বুধবার তার আরও একটি শো করার কথা ছিল। আনন্দবাজার জানায়, কেকের মৃত্যুর খবরটি প্রথম সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে জানান অমিত কুমারের স্ত্রী রিমা গাঙ্গুলি।

সঙ্গে সঙ্গে শোকের ছায়া নেমে আসে ভক্ত ও শুভানুধ্যায়ীদের মনে। সুরের শহর কলকাতা হয়ে রইল কে কের শেষ স্মৃতির সাক্ষী। তাকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে ছুটে গেছেন সুরকার জিৎ গাঙ্গুলি।

 

Leave a Reply

Translate »