ঘরে বসে টাকা আয় করতে চাই, ছাত্রজীবনে আয় করবেন যেভাবে অনলাইন ইনকাম | Online income bd 2021

বেশিরভাগ শিক্ষার্থীই অর্থ উপার্জন করতে চান। কিন্তু জানেন না কীভাবে করা যায়। কিছুটা কৌশলী উপায় অবলম্বন করলেই ছাত্র জীবনেই সম্ভব আয়-রোজগার করা। আসুন তাহলে জেনে নিই ছাত্রজীবনে অর্থ উপার্জনের কিছু উপায়।

টিউশনি

জীবনের প্রথম টিউশনি অনেকের কাছে অ্যাডভেঞ্চারের মতো। তবে অনেকেই জানেন না কীভাবে এটি শুরু করা যায়। টিউশনি শুরু করার জন্য লিফলেট বা পোস্টার ব্যবহার করা যেতে পারে। স্কুলের সামনে লিফলেট বিলি কিংবা দেয়ালে পোস্টার লাগাতে হবে। তৈরি হবে আয়ের উৎস।

ডিজাইন

বর্তমান সময়ে গ্রাফিক ডিজাইনের কাজ প্রচুর পাওয়া যাচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম বছর থেকেই ডিজাইনের কাজ করা যেতে পারে। ফটোশপ এবং ইলাস্ট্রেটরের কাজে পারদর্শী হয়ে উঠলে বাজারে তার চাহিদা বেড়ে যায়। তাই কারও ডিজাইনের কাজে পারদর্শিতা থাকলে তিনি এর মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

এডিটিং

সাম্প্রতিক সময়ে এডিটিং বা ভিডিও এডিটিং খুবই গুরুত্বপূর্ণ দক্ষতা। সৃজনশীলতার সঙ্গে সম্পর্কিত যেকোনো প্রতিষ্ঠানে কাজ করার জন্য এ দক্ষতা থাকা জরুরি। বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে যদি কারও ভিডিও এডিটিংয়ের দক্ষতা থাকে তাহলে তিনি এতে ক্যারিয়ার তৈরি করতে পারেন। বিভিন্ন প্রডাকশন হাউসে এডিটিংয়ের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে।

লেখালেখি

সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেককেই লেখালেখি করতে দেখা যায়। কিন্তু সংবাদপত্রে কয়জনই বা নিজের লেখা প্রকাশ করার সামর্থ্য রাখেন। ব্লগিং সাইট, সংবাদপত্র ও অনলাইন নিউজ পোর্টালগুলোতে লেখালেখির এই গুণ কাজে লাগানো যায়। ব্লগিং সাইটে লেখালেখির মাধ্যমে অনেকেই টাকা পয়সা রোজগার করতে পারেন।

ফ্রিল্যান্সিং

এ প্রজন্মের কাছে ফ্রিল্যান্সিং একটি অতি পরিচিত শব্দ। ফ্রিল্যান্সিংয়ের মাধ্যমে অর্থের বিনিময়ে স্বতন্ত্রভাবে একাধিক প্রতিষ্ঠানের হয়ে কাজ করা যায়। ডিজাইনিং, ওয়েব ডেভেলপমেন্ট, মার্কেটিংসহ নানা ক্ষেত্রে ফ্রিল্যান্সিংয়ের সুযোগ রয়েছে। এমনকি বাংলাদেশে বসেই সুদূর যুক্তরাষ্ট্রের কাজও ফ্রিল্যান্সিংয়ের মাধ্যমে করে দেওয়া সম্ভব। আপ ওয়ার্কসহ আরও নানাবিধ ফ্রিল্যান্সিংয়ের সাইট রয়েছে। এসব সাইটের মাধ্যমে ফ্রিল্যান্সাররা সহজেই কাজ খুঁজে পান।

এজেন্সি

এজেন্সি হলও ছোট ছোট প্রতিষ্ঠান যারা বড় প্রতিষ্ঠানগুলোকে বিভিন্ন কাজে সহায়তা করে। ভিডিও এডিটিং, ডিজাইনিং, প্রেজেন্টেশন তৈরি, কর্পোরেট ইভেন্ট নামানোসহ অন্যান্য কাজ করে দেয়। বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া শিক্ষার্থী যেকোনো একটি দক্ষতা নিয়ে এসব এজেন্সির সঙ্গে যুক্ত হতে পারেন অথবা নিজেও একটি এজেন্সি তৈরি করতে পারেন।

ফটোগ্রাফি

বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের মধ্যে প্রায় ফটোগ্রাফির শখ দেখা যায়। তাদের এই শখই অর্থ উপার্জনে সহায়ক। বিয়ের ছবি, অফিসের ছবি, অনুষ্ঠানের ছবিসহ আরও নানা কাজে ফটোগ্রাফির দক্ষতা কাজে লাগানো সম্ভব। ফটোগ্রাফি বা ভিডিওগ্রাফির দক্ষতা কাজে লাগিয়ে অনেকেই প্রডাকশন হাউসে কাজ করছেন কিংবা নিজেই তৈরি করেছেন প্রডাকশন হাউস। ছোটখাটো ব্যবসা পড়াশুনার পাশাপাশি টি-শার্ট, মগে ডিজাইন করার মাধ্যমে অনেকে ছোটখাটো ব্যবসা পরিচালনা করছেন। ব্যবসার মাধ্যমে অর্জিত মুনাফা দিয়ে নিজের হাতখরচ মেটাতে পারেন বহু তরুণ।

কোডিং

আধুনিক বিশ্বে ভালো একজন কোডার হিসেবে ভালো আয় করা সম্ভব। কোডিংয়ের মাধ্যমে অ্যাপস ডেভেলপমেন্ট, ওয়েব ডেভেলপমেন্ট, এমনকি বড় বড় প্রতিষ্ঠানের জন্য সফটওয়্যারও তৈরি করা যায়। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কোডার, অ্যানিমেটর, ডিজাইনারের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট বিভিন্ন ফুড ফেস্টিভ্যাল, কর্পোরেট ইভেন্ট, পহেলা বৈশাখের ইভেন্টসহ আরও নানা ধরনের ইভেন্টে মানুষ অংশগ্রহণ করেন। এসব ইভেন্ট ম্যানেজমেন্টের কাজ করে ভালো আয় করা সম্ভব।

অনলাইনে আয় এর সবচেয়ে সহজ উপায়

অনলাইন থেকে কিভাবে আয় করা যায় ? অনলাইন ইনকামের মাধ্যম গুলির মধ্যে যতগুলো বিষয় নিচে যুক্ত করেছি এই সবগুলো থেকে আপনি আয় করতে পারবেন। নিচের যে কয়টা অপশন আমি দিয়েছি সবগুলোতেই আমি চেষ্টা করেছি কিন্তু আমি প্রথম যে অপশনটা রয়েছে ব্লগিং বর্তমানে আমি একজন প্রফেশনাল ব্লগার হিসেবে নিয়োজিত আছি।

কত টাকা ইনকাম করি আপনাদের কে কথা দিয়েছি আমি এই পোষ্টের নিচে দিয়ে দেব শুধুমাত্র অনুপ্রেরণার জন্য। তার আগে আমরা আলোচনা করে নিই কিছু অনলাইন ইনকাম ট্রিক্স- যা জানা আপনার একান্ত প্রয়োজন।

ব্লগিং এর মাধ্যমে অনলাইন ইনকাম (Blogging)

অনলাইনে আয় করার জন্য বর্তমানে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা যত ধরনের কাজ আছে তার মধ্যে সবচেয়ে সহজ এবং ভালো পরিমাণে ইনকাম করার পদ্ধতি হচ্ছে ব্লগিং করে ইনকাম করা।

অনলাইন ইনকাম ২০২১ ট্রিক্স – অনলাইনে আয়ের উপায়

ঘরে বসে মোবাইলে ইনকাম করার উপায় | ঘরে বসে টাকা আয় করতে চাই

 

বন্ধুরা আজকের এই পোস্টে ঘরে বসে মোবাইলে কাজ করে কিভাবে টাকা ইনকাম করা যায় সেই সম্পর্কে সেরা ৯টি উপায় আমি নিচে আপনাদের বিস্তারিত আলোচনা করবো। তবে হ্যাঁ, এটা কখনোই ভাববেন না যে কোন কাজ না করেই আপনি এখান থেকে টাকা আয় করতে পারবেন। অবশ্যই আপনাকে দিনে ২-৩ ঘন্টা করে সময় আপনাকে দিতে হবে এই উপায়গুলো থেকে টাকা ইনকাম করার জন্য। এছাড়াও মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম করার উপায়গুলো একেকটি একেক রকমের।

তাই কিছু কিছু উপায় ব্যবহার করে সত্যি প্রচুর পরিমাণে টাকা ইনকাম করা যেতে পারে ও কিছু কিছু উপায়ের মাধ্যমে খুব সামান্য ইনকাম করতে পারবেন। তাই, আপনি কোন উপায়টি ব্যবহার করে টাকা ইনকাম করবেন, কত বেশি সময় দিয়ে কাজ করবেন ও মার্কেটপ্লেসে সঠিক ভাবে কাজ করছেন কি-না, এই সকল প্রত্যেকটি বিষয়ের ওপরেই মূলত নির্ভর করছে আপনি কত ইনকাম করতে পারবেন।

মোবাইল দিয়ে ইনকাম করতে যা যা প্রয়োজন

 

 

  • মোবাইলে দিয়ে টাকা ইনকাম করার জন্য একটি ভালোমানের স্মার্টফোন প্রয়োজন হবে।
  • এরপর দরকার হবে একটি ভালো ইন্টারনেট কানেকশন। কারণ আমাদের সকল কাজগুলো অনলাইনের মাধ্যমে করতে হবে।
  • একটি পেমেন্ট মেথড জরুরি টাকা উত্তোলন করার জন্য। যেমন- Bank Account, Payoneer, PayPal।
  • যেহেতু আপনি মোবাইল ব্যবহার করে অনলাইনে কাজ করবেন, তাই সাধারণ ইন্টারনেট এর ব্যবহার জানাটা আপনার জন্য জরুরি।
  • শেষে আপনার কাছে ২-৩ ঘন্টার ফ্রি সময় থাকতে হবে।

 

 

মোবাইল ফোনে কাজ করে টাকা ইনকাম করবেন কিভাবে

তোহ চলুন এখন আমরা ঘরে বসে অনলাইনে ইনকাম করার জন্য সরাসরি সেই প্রত্যেকটি উপায়গুলোর বিষয়ে জেনে নেই। যেগুলোর মাধ্যমে আপনি ঘরে বসে মোবাইলের মাধ্যমে টাকা আয় করতে পারবেন।

ব্লগিং করে টাকা ইনকাম করুন

মোবাইল ফোনে কাজ করে অনলাইনে টাকা আয় করার সবচেয়ে সহজ ও লাভজনক এবং কার্যকর উপায় হচ্ছে ব্লগিং Blogging। ব্লগিং করে বর্তমানে লাখ লাখ মানুষ ঘরে বসে হাজার হাজার ডলার ইনকাম করছেন।আমি নিজেই Full-Time Blogging করে টাকা ইনকাম করে যাচ্ছি বিগত ২ বছর ধরে।

আপনি ইন্টারনেটে সার্চ করলেই দেখতে পারবেন যে ব্লগিং কত বেশি জনপ্রিয় একটি অনলাইন বিজনেস মডেল। ব্লগিং করে ইনকাম করার জন্য আপনাকে মূলত প্রথমেই একটি ব্লগ ওয়েবসাইট তৈরি করতে হবে। আপনি নিজের মোবাইল থেকে সম্পূর্ণ বিনামূল্য একটি ব্লগার ব্লগ সাইট তৈরি করে নিতে পারবেন। ব্লগ সাইট তৈরি করার পরে আপনাকে নিজের ব্লগে বিভিন্ন বিষয়ের উপরে কন্টেন্ট লিখে পাবলিশ করতে হয়।

এই রকম করে নিয়মিত ভাবে ব্লগে কনটেন্ট পাবলিশ করলে ধীরে ধীরে আপনার ব্লগ সাইটে প্রচুর পরিমাণে ভিজিটর/ট্রাফিক ইন্টারনেটের মাধ্যমে আসতে থাকবে আপনার আর্টিকেলগুলো পড়বার জন্য। যখনই আপনার ব্লগ সাইটে নিয়মিত ভাবে অনেক বেশি পরিমাণের ভিজিটর আসতে শুরু করবে তখন আপনি বিভিন্ন মাধ্যমে নিজের ব্লগ সাইট থেকে ভালোমানের টাকা আয় করতে পারবেন। যেমন- গুগল অ্যাডসেন্স Google AdSense, অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং Affiliate Marketing থেকে বা Paid Review লিখে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

যদি আপনি সঠিক ভাবে ব্লগিং শুরু করেন তবে আপনি কিছু মাস পর থেকেই মিনিমাম ১০ হাজার থেকে ৩০ হাজারের মধ্যে প্রত্যেক মাসে টাকা ইনকাম করার সুযোগ হয়ে দাঁড়াবে। আমার অনেক পরিচিত ব্লগার আছে যারা প্রতি মাসে ব্লগ সাইট থেকে ৮০ হাজার টাকা থেকে ১ লাখ টাকা পর্যন্ত ইনকাম করে।

Meesho Reselling করে টাকা আয় করুন | ঘরে বসে আয় করুন ১৫০০০-২০০০০ টাকা প্রতি মাসে

Meesho হচ্ছে একটি ই-কমার্স রিসেলিং অ্যাপ যেটা ব্যবহার করে যেকেউ নিজের ঘর থেকে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে কাজ করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। আপনি লাইফস্টাইল, ক্লোথিং, কিচেন, ফ্যাশান ইত্যাদি এই রকমের ক্যাটাগরিতে বিভিন্ন রকমের প্রোডাক্ট গুলো Meesho এখানে পাবেন। আর Meesho থেকে টাকা আয় করার করার জন্য আপনাকে এই Products প্রোডাক্টগুলোকে বিক্রি করতে হবে।

প্রোডাক্ট বিক্রি করানোর জন্যে আপনি প্রোডাক্টের ইমেজগুলোকে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম গুলিতে শেয়ার করতে পারবেন। আপনি নিজের মোবাইল ফোনে Meesho App Download করে একটি বিনামূল্য অ্যাকাউন্ট তৈরি করে কাজ শুরু করে দিতে পারবেন। যেকোন প্রোডাক্টের একটি Wholesale Price উল্লেখ করা থাকবে Meesho তরফ থেকে। আপনি সেই সকল Wholesale Price এর উপরে নিজের Profit Margin রেখে সেগুলোকে বিক্রয় করাতে পারবেন।

স্টক (Stock), Inventory বা ডেলেভেরি নিয়ে আপনার কোন চিন্তা করতে হবে না। আপনাকে কেবলমাত্র নিজের পছন্দ হিসাবে প্রোডাক্ট গুলোকে মানুষদের সঙ্গে শেয়ার করতে হবে এবং আপনার নিজের Profit Margin এর সঙ্গে দাম বলতে হবে। মানুষ প্রোডাক্ট গুলো অর্ডার করার পরে বাকি সম্পূর্ণ প্রক্রিয়া Meesho দ্বারা করা হবে। বলা হয়ে থাকে যে, নিজের মোবাইল ফোনের দ্বারা Meesho তে কাজ করে আপনি প্রায় ১৫,০০০ হাজার থেকে ২৫,০০০ হাজার টাকা সহজেই ইনকাম করতে পারবেন।

আরও পড়ুন : মেয়েরা এই ১০ টি কাজ গোপনে করে থাকে, কখনো স্বীকার করেনা

ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করে টাকা ইনকাম

আমি পূর্বেই বলেছি যে ইউটিউব হচ্ছে ঘরে বসে অনলাইন ইনকাম করার জন্য সবথেকে সহজ উপায়। কারণ, আজ একটা ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করে স্কুলে পড়াশুনা করা বাচ্চা থেকে বয়স্ক মানুষরা অনলাইন থেকে ইনকাম করছে। ঠিক ব্লগিং এর মতোই ইউটিউব বর্তমানে একটি দারুন প্রফেশনাল অনলাইন বিজনেস হিসেবে অনেক বেশি জনপ্রিয়তা লাভ করেছে।

ইউটিউব ইনকাম করার জন্য আপনাকে কেবলমাত্র নিয়মিত ভালো ভালো বিষয়ের উপরে ভিডিও বানিয়ে নিজের ইউটিউব চ্যানেলে আপলোড করতে হবে। তবে এর আগেই, আপনাকে একটি লাভজনক ইউটিউব চ্যানেল আইডিয়া অবশ্যই ভেবে রাখতে হবে। কারণ, আপনি যে বিষয়ে ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করবেন সেই বিষয়ের সঙ্গে জড়িত ভিডিও আপনাকে তৈরি করতে হবে।

নিয়মিত ভাবে যদি আপনি কাজ করতে পারেন তাহলে কিছু সময় পর আপনার ইউটিউব চ্যানেলে প্রচুর পরিমাণে সাবস্ক্রাইবার হতে থাকবে এবং আপলোড করা ভিডিওগুলোর ভিউস বাড়তে থাকবে। এইবার আপনারা নিজের YouTube Channel Dashboard থেকে YouTube Monetization এর জন্য Apply করতে পারবেন। তবে হ্যাঁ Monetization এর জন্য Apply করার পূর্বে ইউটিউব এর নতুন নিয়ম কানুন এবং আইনের বিষয়ে আপনার জেনে রাখা প্রয়োজন। ইউটিউব চ্যানেলে YouTube Monetization এর জন্য Apply করার জন্য আপনার চ্যানেলে কমপক্ষে ১০০০ হাজার সাবস্ক্রাইবার এবং ৪০০০ হাজার ঘন্টা ওয়াচ টাইম থাকতে হবে।

যদি আপনার ইউটিউব চ্যানেলের Monetization চালু করে দেওয়া হয়ে থাকে, তবে আপনার প্রত্যেক ভিডিওর মাঝে ইউটিউব অ্যাড প্রদর্শন করবে যার ফলে আপনি টাকা আয় করতে পারবেন। যদি আপনার ইউটিউব চ্যানেলটি অনেক বেশি জনপ্রিয় হয়ে উঠে তবে আপনি বিভিন্ন মাধ্যমে ইউটিউব এর থেকে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। যেমন- Paid Promotion, Affiliate Marketing, Paid Reviews অথবা নিজের Products Sell করে। এই কাজটি আপনি সম্পূর্ণ নিজের মোবাইল ফোন থেকেই করতে পারবেন।

ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করা, ভিডিও তৈরি করা, ভিডিও এডিট করা সহ ইউটিউবে ভিডিও আপলোড করা সকল কিছু মোবাইল ফোন দিয়ে করতে পারবেন। এমনিতে ইউটিউব একটি গেমিং চ্যানেল তৈরি করে টাকা ইনকাম করা কিন্তু সবচেয়ে সহজ ও সুবিধার উপায়।

টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট | Online income apps

আপনি হয়তো জেনে রাখবেন যে, মোবাইল দিয়ে অনলাইনে টাকা আয় করার জন্যে বিভিন্ন অ্যাপ আছে। Google play store গুগল প্লে স্টোরের মধ্যে গিয়ে সার্চ করলেই আপনি বিভিন্ন Online Income Apps গুলো দেখতে পাবেন। তবে হ্যাঁ, এই ধরণের অনলাইনে টাকা ইনকাম করার এপস Apps গুলোর মাধ্যমে তেমন ভালোমানের ইনকাম করা সম্ভব নয়।

আপনি যতটুকু সময় দিয়ে কাজ করবেন ঠিক সেই হিসেবে আপনাকে সেই পরিমাণ টাকা প্রদান করা হয়না। তবে হ্যাঁ, যদি আপনার কাছে প্রচুর ফ্রি সময় থাকে কেবল তাহলে আপনি এই টাকা ইনকাম করার অ্যাপ গুলি ব্যবহার করতে পাড়েন। অ্যাপগুলোতে বিভিন্ন ধরনের কাজ করার জন্যে আপনাদের টাকা পেমেন্ট করা হবে।

যেমন- ভিডিও দেখে টাকা ইনকাম, সার্ভে করে টাকা করা, গেম খেলে টাকা ইনকাম, Apps Download করে টাকা ইনকাম ইত্যাদি। আপনি যদি সঠিক ও রিয়েল অ্যাপস গুলো ব্যবহার করে কাজ করেন, তাহলে মোবাইলের মাধ্যমে কিছুটা পার্ট-টাইম ইনকাম অবশ্যই করতে পারবেন। ১৩+ পার্ট টাইম অনলাইন চাকরি গুলো দেখে নিন-

Mobile apps দিয়ে টাকা ইনকাম করার জন্য এই সকল apps গুলো আপনি ব্যবহার করতে পারেন-
  • Google pay – মানুষের কাছে Refer করে ৫০ টাকা আয় করতে পারবেন।
  • RozDhan – কেবলমাত্র সাইনআপ করেই ২৫ টাকা থেকে ৫০ টাকা ইনকাম করতে পারবেন। এছাড়াও বিভিন্ন Tasks ও লোকদের কাছে রেফার করে টাকা ইনকাম করা সম্ভব।
  • Google Opinion Rewards – Google দ্বারা দেওয়া সার্ভে গুলো সম্পূর্ণ করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।
  • Dream 11 – এটি হচ্ছে একটি Fantasy Cricket Game যার মাধ্যমে আপনি রিয়েল টাকা আয় করতে পারবেন।
  • Pocket money app – সার্ভে সম্পূর্ণ করার জন্য আপনাকে টাকা পেমেন্ট করা হবে। এছাড়াও অ্যাপ রেফার করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

 

 

এছাড়াও আপনি গুগল প্লে স্টোরে আরও প্রচুর পরিমাণে অ্যাপ পেয়ে যাবেন যেগুলো ব্যবহার করে মোবাইলে ইন্সটল করে কিছু সাধারণ কাজ করার মাধ্যমে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

আরও পড়ুন : ১০টি বাংলাদেশের সেরা ক্যান্সার হাসপাতাল

ySense ওয়েবসাইট থেকে ইনকাম | ঘরে বসে চাকরি

ySense ওয়েবসাইট থেকে কিভাবে টাকা আয় করবেন এই বিষয়ে আমি পূর্বে কিছু আর্টিকেলে সম্পূর্ণটা বলেছি। এই ওয়েবসাইট হচ্ছে মূলত একটি Paid Survey করে টাকা আয় করার ওয়েবসাইট। যেখানে প্রতিটি সার্ভে পূরণ করার জন্য ভালো পরিমাণের টাকা আপনাকে প্রদান করা হবে। প্রত্যেকটি Paid Survey সম্পূর্ণ করার জন্য আপনাকে প্রায় $0.50 ডলার থেকে $5 ডলার অথবা কিছু কিছু ক্ষেত্রে এর চেয়েও বেশি টাকা দেওয়া হয়।

এখানে আপনি একটি ফ্রিতে অ্যাকাউন্ট তৈরি করা থেকে শুরু করে এবং সার্ভে সম্পূর্ণ করা সকল কাজ আপনি মোবাইল ফোনের মাধ্যমে করতে পারবেন। প্রত্যেকদিন এখানে ১-২ ঘন্টা কাজ করে ঘরে বসেই অনলাইনে পার্ট-টাইম ভালো টাকা ইনকাম করতে পারবেন। ySense ওয়েবসাইটটি অনেক পুরনো যেটা প্রচুর মানুষ ব্যবহার করে অনলাইনে ইনকাম করে। এছাড়াও সার্ভে ছাড়া অন্যান্য মানুষের কাছে রেফার করে প্রত্যেক সঠিক সাইনআপ করার জন্য আপনাদের টাকা প্রদান করা হবে।

 

Fiverr ওয়েবসাইটে কাজ করুন | মেয়েদের ঘরে বসে রোজগার

যদি আপনার বিশেষ কোনো কাজে নিপুণ অর্থাৎ কোনো বিশেষ বিষয়ের উপরে আপনার ভালো দক্ষতা (Skills) বা জ্ঞান থাকে, তবে অবশই আপনি fiverr ওয়েবসাইটের মাধ্যমে কাজ করে ভালোমানের টাকা ইনকাম করতে পারবেন। মূলত fiverr হচ্ছে একটি ফ্রিলান্সারদের জন্য সেরা freelancing মার্কেটপ্লেস বা ওয়েবসাইট। এই মার্কেটপ্লেসে প্রচুর মানুষ নিজের প্রয়োজনের জন্য বা কাজ করিয়ে নেয়ার জন্য বিভিন্ন মানুষকে খুজেঁ থাকে আর তাদের প্রয়োজনীয় কাজ করিয়ে নেয়।

আমার এবং আপনার মতো মানুষরাই একজন ফ্রিলান্সার হিসেবে সেই কাজগুলো করে টাকা ইনকাম করতে পারি। ফাইভারের মার্কেটপ্লেসে আপনি হাজার ধরনের কাজ আপনি পেয়ে যাবেন। যেহেতু আপনি মোবাইল দিয়ে টাকা ইকাম করবেন অর্থাৎ মোবাইলের মাধ্যমে কাজ করবেন, তাই আমি বলবো আপনি Content Writing ও Social Media Management এর সঙ্গে জড়িত কাজগুলি করতে পারেন। Fiverr ওয়েবসাইটে আপনি সম্পূর্ণ বিনামূল্য একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করে নিতে পারবেন এবং আপনি কাজ শুরু করতে পারবেন।

ক্যাপচা টাইপিং করে আয় | মোবাইল দিয়ে টাকা আয় বিকাশে পেমেন্ট ২০২১

ইন্টারনেটে এই রকম প্রচুর পরিমাণে ওয়েবসাইট আছে যেগুলো আপনাকে Captcha Typing করার জন্যে পয়সা দিয়ে থাকবে। আমি পূর্বেই বলেছি যে মোবাইলের মাধ্যমে ফ্রি সময়েগুলোতে কাজ করে ইনকাম করার জন্য ক্যাপচা টাইপিং ওয়েবসাইট গুলো বেশ লাভজনক। অবশ্যই, এই কাজ আপনি নিজের মোবাইল ফোনের মাধ্যমে করতে পারবেন। আপনি প্রতিদিন প্রায় ২-৩ ঘন্টা কাজ করে প্রায় মাসিক ৬০০০ হাজার থেকে ১০০০০ হাজার টাকা পর্যন্ত আয় করতে পারবেন। ১০০০ ক্যাপচা কোড সঠিকভাবে সম্পূর্ণ করার জন্য আপনি প্রায় $2-$3 ডলার ইনকাম করতে পারবেন। আপনি ইন্টারনেটে সার্চ করলেই ক্যাপচা টাইপিং করে টাকা ইনকাম করার প্রচুর ওয়েবসাইট দেখতে পারবেন।

কনটেন্ট রাইটিং করে ইনকাম করুন | ঘরে বসে হাতে লিখে আয়

আপনি যদি লেখালেখি করে ভালোবাসেন তাহলে অবশ্যই অনলাইনে আর্টিকেল লিখে ভালোমানের টাকা ইনকাম করতে পারবেন। বর্তমান সময়ে ইন্টারনেটে লাখ লাখ ব্লগ, অনলাইন নিউজ পোর্টাল, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইত্যাদি আছে যেগুলোতে আর্টিকেল লেখার জন্যে কনটেন্ট রাইটারদের দরকার হয়ে থাকে। আপনি নিজের মোবাইল ফোনে যেকোন Text Editor App বা Google Docs ব্যবহার করার মাধ্যমে মোবাইল ফোনে আর্টিকেল লিখতে পাবেন।

লেখালেখি জব খোঁজার জন্যে আপনারা ব্লগিং এর সঙ্গে জড়িত ফেসবুক পেজগুলোতে গিয়ে জব খুঁজতে পারবেন। এছাড়াও সরাসরি বিভিন্ন ব্লগের মালিকদের সঙ্গে ইমেইলের মাধ্যমে যোগাযোগ করেও আর্টিকেল রাইটিং এর কাজ খুঁজতে পারবেন। আপনার যদি আর্টিকেলের কোয়ালিটি বা গুণগত মান ভালো হয়ে থাকে, তবে প্রত্যেকটি আর্টিকেলের শব্দ ১৩০০ থেকে ১৫০০ শব্দের মধ্যে হয়ে থাকে তবে তার জন্য প্রায় আপনি ৪০০ টাকা থেকে ৫০০ টাকা পর্যন্ত টাকা আয় করতে পারবেন।

আরও পড়ুনঃ

পার্ট টাইম টাকা আয়

আপনি যদি কোথাও পার্ট-টাইম বা ফুল-টাইম চাকরি করেন তাহালে সেখান থেকে অবশ্যই কিছু বেতন (salary) পাবেন। আপনি হয়তো জানেন ছাত্রজীবনে টাকা পয়সা নিয়ে সমস্যা থাকে। অধিঅংশ ছাত্রদের দেখা যায় কাছে টাকা পয়সা একেবারে থাকে না।

আবার অনেক ছাত্রদের টাকার অভাবে পড়াশোনা বন্ধ হয়ে যায়। এজন্য ছাত্রজীবনে পার্ট টাইম চাকরি আপনাকে আর্থিক ভাবে কিছুটা শক্তিশালী বানিয়ে দিতে পারবে। তাই আপনিও নিজের প্রয়োজন নিজে সম্পর্ন করতে পারবেন যদি আপনার কাছে একটা পার্ট-টাইম চাকরি থাকে।

(২) নতুন নতুন বিষয়ে জ্ঞান অর্জন

আপনি যখন পড়াশুনো করার পাশাপাশি একটা চাকরি করবেন তখন নতুন নতুন কিছু নলেজ এর মুখে পড়তে হবে। সেখানে কিভাবে মানুষের সাথে প্রফেশনাল কথা বলতে হয়, কম্পিউটার অপারেটিং, সেলস, মার্কেটিং ইত্যাদি বিষয়ে নানা ভাবে আপনার স্কিল (skills) তৈরি হবে।

  • পরীক্ষার হল এ দ্রুত লেখা শেষ করার ৫ টি কৌশল

এতে আপনি যে বিষয়ে পার্ট-টাইম চাকরি করছেন সেই বিষয়ে সম্পর্ন দক্ষতা বা জ্ঞান অর্জন করে নিজেকে একজন এক্সপার্ট হিসাবে তৈরি করতে পারবেন।

#৩. কাজের অভিগতা

আপনি বর্তমানে যে চাকরি করতে যাবেন না কেন সকল চাকরির ক্ষেএে তাদের প্রথম প্রশ্ন থাকবে কাজের অভিজ্ঞতা আছে কি না। মানে আপনি আগে কোথাও কাজ করেছেন কি না। আর বর্তমানে যেকোনো কোম্পানি নতুনদের চাকরি দিতে চাই না।

কারণ, আপনি চাকরি জীবনে নতুন তাই আপনার কোনো কাজের অভিজ্ঞতা নেই। এজন্য আপনি যদি পড়ালেখার পাশাপাশি একটা পার্ট-টাইম জব করেন তাহালে সেটা আপনার পরবর্তী সময়ে চাকরির জন্য বিশেষ ভূমিকা পালন করবে।

 

আপনি নিজে একটু চিন্তা করুন তো? কাকে আপনার কোম্পানিতে চাকরি দিবেন?

  • যে ব্যাক্তি নিজের জীবনকে কখনো সেই সমস্ত কোনো কাজ করেনি।

  • সেই ব্যাক্তি যার মধ্যে কাজের অভিজ্ঞতা রয়েছে।

#৪. সময়ের গুরুত্ব বুঝবেন

বিখ্যাত একজন লোক যার নাম হলো Benjamin Franklin বলেছিলেন Time is money. মানে তিনি বলেছিলেন সময় মানে হলো টাকা। আর এই কথার গভীরতা যিনি জীবনে বুঝতে পেরেছেন তিনি সফল। আপনি যদি টাকাকে ভালো করে ম্যানেজ করতে না পারেন তাহালে কখন যে টাকা আপনার হাত থেকে সরে যাবে বুঝতে পারবেন না।

এজন্য সময়কে সঠিক ভাবে পরিচালনা না করতে পারলে নিজের অজান্তে কখন যে সময় সুযোগ চলে যাবে কখনো বুঝতে পারবেন না। যখন আপনি ক্লাস, পড়াশোনা, চাকরি করবেন তখন আপনি ব্যাস্ততা ভরা জীবনের সাথে পরিচিত হবেন।

এজন্য আপনার কাছে দুইটা অপশন থাকবে, সময়ের গুরুত্ব বুঝে সঠিক সময়ে নিজের কাজ গুলো সম্পর্ন করা। আর সময়ের চিন্তা না করে কাজ গুলো সময়ে সম্পর্ন না করা। মনে রাখবেন, একজন সফল ব্যাক্তির প্রথম গুন হলো সে সময়ের মূল্য অনেক ভালো ভাবে জানে এজন্য তিনি সফল।

#৫. টাকার গুরুত্ব বুঝতে পারবেন

আপনি যখন স্কুল বা কলেজ জীবনে চাকরি করা শুরু করবেন তখন থেকে টাকার গুরুত্ব বুঝতে পারবেন। টাকা আয় করা কতটা কষ্টের এবং এক টাকা আয় করতে গেলে কতটা পরিশ্রম করতে হয় সেটা অনেক সহজে বুঝতে পারবেন।

যার ফলে আপনার মধ্যে অপ্রয়োজনীয় টাকা খরচ করতে বার বার ভাবতে হবে এবং টাকার সঠিক ব্যবহারের উপর আপনার ভালো জ্ঞান থাকবে। এভাবেই চাকরির বেতনের টাকা দিয়ে বুঝতে পারবেন টাকার গুরুত্ব।

#৬. নিজেকে ব্যাস্ত রাখা

আমাদের মধ্যে এমন অনেকে আছেন যারা ছাত্রজীবনে অনেক ধরনের ভুল করে থাকি। আর এই ভুলের কারণে সারাজীবন আমাদের কষ্ট পেতে হয়। এজন্য আপনি যখন পড়াশোনার পাশাপাশি একটা চাকরি করবেন তখন আপনার কাছে অন্য বিষয় নিয়ে ভাবার সময় থাকবে না।

আপনি অনেক ব্যাস্ত থাকার ফলে চাকরি ও পড়াশুনোর দিকে মন দিবেন। এভাবে ছাত্রজীবনে আপনি সুন্দর একটি ভবিষ্যৎ তৈরি করতে পারবেন। যেখানে অপ্রয়োজনীয় বিষয়ে ভাবার বা চিন্তা করার সময় থাকবে না।

#৭. নিজের পরিচয় তৈরি করা

আপনাকে কেউ যখন বলবে তুমি কি করো? তখন তুমি অনেক প্রাউডের সাথে বলতে পারবেন আমি পড়াশোনা করার পাশাপাশি একটা পার্ট-টাইম চাকরি করি। এতে আপনার নিজের একটি পরিচয় তৈরি হবে এবং মানুষরা আপনাকে অধিক বেশি পরিমানে সম্মান করবে।

মনে রাখবেন, নিজেকে আর্থিক ভাবে স্বাধীন রাখাটা সত্যি অনেক সম্মানের ব্যাপার। আপনি এই বিষয়ে তখন বুঝতে যখন নিজেকে আর্থিক ভাবে স্বাধীন রাখতে পারবেন।

#৮. আত্নবিশ্বাস বৃদ্ধি করা

আপনার নিজের উপর বিশ্বাস না থাকলে কিন্ত অনেক সহজ কাজ ও হয় না, আবার অনেক সময় নিজের আত্নবিশ্বাস এর কারণে অনেক কঠিক কাজ হয়ে যায়। এজন্য জীবনের সকল কাজে নিজেকে বিশ্বাসী করে তুলেন।

আপনি যখন পড়াশোনার পাশাপাশি পার্ট-টাইম চাকরি করবেন তখন আপনাকে নানা ধরনের কাজ করতে হবে। যার ফলে আপনার মধ্যে নতুন নতুন দক্ষতা বৃদ্ধি পাবে। এতে আপনার আত্নবিশ্বাস বেড়ে যাবে। এতে, জীবনে আপনি নিজের উপর বিশ্বাস মনের জোরে কঠিন কাজ গুলো করার দক্ষতা রাখবেন।

#৯. নতুন নতুন বন্ধু তৈরি হবে

অবশ্যই ছাত্রজীবনে স্কুল কলেজে নতুন নতুন বন্ধু বান্ধব তৈরি হয়ে থাকে। কিন্ত আপনি যখন কোনো প্রতিষ্ঠানে চাকরি করবেন তখন সেখানে নতুন কিছু বন্ধু তৈরি হবে যা আপনার স্কুল কলেজের বাইরে। মনে রাখবেন নিজের কর্মস্থান থেকে তৈরি হওয়া বন্ধুদের গুরুত্ব সব সময় একটু আলদা থাকে। মনে রাখবেন, ক্যারিয়ারের জন্য এই ধরনের বন্ধু অনেক সাহায্য করবে।

ছাত্রজীবনে সেরা কিছু পার্ট-টাইম জব

আসলে ছাত্রজীবনে পড়ালেখার পাশাপাশি একটা পার্ট-টাইম চাকরি বা পার্ট-টাইম জব করাটা সত্যি আপনার জন্য অনেক ভালো। এজন্য আপনি যেকোনো একটি চাকরি করতে পারবেন। কারণ নতুন চাকরি থেকে আপনি সব সময় নতুন কিছু শিখতে পারবেন।

তাছাড়া, ভবিষ্যতে যদি আপনার বিশেষ কোনো লাইনে চাকরি করার মন থাকে তাহালে আপনি সেই একই লাইনে জড়িত ইন্টার্নশীপ করতে পারবেন। তবে, ইন্টার্নশীপ করলে আপনার বেতন বা স্যালারি কম হবে। এতে আপনি ৪ থেকে ৫ মাসের মধ্যে সেই কোম্পানি থেকে ভালো মানের কাজ শিখতে পারবেন।

আপনাকে অবশ্যই কোম্পানি থেকে একটি এক্সপ্রেরিয়েন্স সার্টিফিকেট দেওয়া হবে। এই experience certificate দেখিয়ে আপনি ভালো ভালো কোম্পানিতে চাকরির জন্য আবেদন করতে পারবেন।

আপনি যদি ছাত্রজীবনে টাকা আয় করার কথা ভাবছেন তাহালে নিচের বিভিন্ন ধরনের ঘরে বসে পার্ট টাইম জব গুলো করতে পারেন।

ডেইলি নিউজ টাইমস বিডি ডটকম (Dailynewstimesbd.com)এর ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব ও ফেসবুক পেইজটি ফলো করুন করুন।

Best part-time jobs for students

ব্লগিং (Blogging): অনলাইন থেকে টাকা আয় করার সেরা উপায় ব্লগিং। আপনি একটি ব্লগ ওয়েবসাইট তৈরি করে সেখানে বিজ্ঞাপন দেখিয়ে টাকা আয় করতে পারবেন। (আমি নিজেও পড়াশোনার পাশাপাশি ব্লগিং করতাম। এখন পড়াশোনা শেষ করে প্রফোসানাল ভাবে blogging করি।

YouTube channel: অনলাইন থেকে টাকা আয় করা দ্বিতীয় সেরা উপার হলো ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করে ভিডিও পাবলিশ করা। এবং আপনার ভিডিওতে গুগল এডসেন্স এর এড বা বিজ্ঞাপন দেখিয়ে টাকা আয় করা।

Content writing job: ছাত্রজীবনে কন্টেন্ট রাইটিং জব খুবই ভালো একটি চাকরি। আপনি বিভিন্ন ওয়েবসাইটে বাংলা, ইংরেজিতে আর্টিকেল বা কন্টেন্ট লিখে পেইড সার্ভে ওয়েবসাইট থেকে আয় করতে পারবেন।

Digital marketing: আপনি নিজের ঘরে বসে ডিজিটাল মার্কেটিং এর কাজ শিখে পার্ট-টাইম বা ফুল-টাইম কাজ করে আয় করতে পারবেন। বর্তমানে ডিজিটাল মার্কেটিং খুবই জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে।

Part-time sales & marketing work: ছাত্রজীবনে আপনি পড়ালেখার পাশাপাশি পার্ট-টাইমে বিভিন্ন কোম্পানির প্রডাক্ট গুলো বিক্রয় করে টাকা আয় করতে পারবেন।

Tuition: আপনি নিজে পড়াশোনার পাশাপাশি ঘরে বসে বাচ্ছাদের পড়িয়ে টাকা করতে পারেন। অনেক স্টুডেন্টরা এই tuition করে লেখাপড়ার খরচ নিজে বহন করছে।

Food delivery: আপনি অবশ্যই ছাত্রজীবনে পার্ট-টাইম জব হিসাবে ফুড ডেরিভারি জব করতে পারবেন। আপনি একটু লক্ষ্য করলে দেখতে পাবেন আপনার শহরে অনেকে এই স্টুডেন্ট জব (student job) কাজ করছে।

আমার হিসাবে ছাত্রদের বা স্টুডেন্টদের জন্য উপরের পার্ট-টাইম জব গুলো সেরা।

আজকে আমরা কি শিখলাম

তাহালে বন্ধুরা আজকে আমরা শিখলাম ছাত্রজীবনে পার্ট টাইম চাকরি করার লাভ ও সুবিধা ২০২১। আমার লেখা ছাত্রজীবনে পার্ট টাইম চাকরি আর্টিকেলটি কেমন লাগলো? এবং এই সম্পর্কে যদি কোনো প্রশ্ন থাকে তাহালে  কমেন্টে জানান। আর ভালো লাগলে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে ভুলবেন না।

শেষ কথা

তো বন্ধুরা, যদি আপনি ঘরে বসে মোবাইলে ইনকাম করার উপায় খুঁজছেন, তবে উপরোক্ত আলোচনা করা বিষয়গুলো আপনার অবশ্যই কাজে আসবে। উপরোক্ত বলা প্রত্যেকটি কাজ আপনি সম্পূর্ণ নিজের মোবাইল ফোনের মাধ্যমে করতে পারবেন। মোবাইলে ফোনের মাধ্যমে কাজ করে ইনকাম করার জন্য তেমন কোনো বেশি উপায় অবশ্যই নেই। তবে যে বিষয়গুলো আমি উপরে আলোচনা করেছি ঠিক সেগুলোর মাধ্যমেই অনেকেই প্রচুর পরিমাণে অনলাইন ইনকাম অবশ্যই করছেন।

ডেইলি নিউজ টাইমস বিডি ডটকম (Dailynewstimesbd.com)এর ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব ও ফেসবুক পেইজটি ফলো করুন করুন।

অনলাইন ইনকাম, How to earn money online in Bangladesh, Easy way to earn money online, Online income bd payment bkash 2021, Online income apps, Online income bd payment bkash, 2020 Online income bd 2021, Online Income site bd, payment bkash 2020,ঘরে বসে মোবাইলে আয়, ঘরে বসে টাকা আয় করতে চাই, ঘরে বসে আয় করুন, pdf ঘরে বসে হাতে লিখে আয়, ঘরে বসে আয় করুন ১৫০০০-২০০০০ টাকা, প্রতি মাসে ছাত্রদের জন্য অনলাইনে আয় , টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট, মেয়েদের ঘরে বসে রোজগার, ছাত্রজীবনে আয় করবেন যেভাবে

Leave a Reply

Translate »