জন্মের সময়ে অদলবদল হয়ে গিয়েছিলেন হাসপাতালে, বড় হয়ে তাঁরাই হলেন জীবনসঙ্গী

একই হাসপাতালে জন্ম। মায়ের নাম এক হওয়ায় জন্মের পর অদলবদল করে ফেলেন নার্সরা। বড় হওয়ার পর বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন তাঁরা। চলতি সপ্তাহে ৫০ বছর পূর্ণ হল তাঁদের দাম্পত্যের।

কথায় আছে, ভাগ্যের লিখন না যায় খণ্ডন। যুক্তরাজ্যের ল্যানারকশায়ারের বাসিন্দা জিম আর মার্গারেট মিচেল দম্পতির ক্ষেত্রে সেকথা আবারও প্রমাণিত হলো।
জন্মের পরে একটি ঘটনা তাদেরকে প্রথমবারের মতো একত্রিত করেছিল। প্রায় দুই দশক পরে আবারও তারা একত্রিত হন বিয়ের মাধ্যমে। চলতি সপ্তাহে ওই দম্পতি বিবাহিত জীবনের ৫০ বছর পূর্ণও করেছেন। খবর বিবিসির
গলায় কই মাছ আটকে প্রাণ গেল কৃষকের
১৯৫২ সালের সেপ্টেম্বর মাসে লেনক্সটাউনের লেনক্স ক্যাসেল হাসপাতালে জন্ম নেন জিম ও মার্গারেট । দুজনের মায়ের নাম ‘মার্গারেট’ হওয়ায় নার্সরা শিশু দুটিকে পরিবারের কাছে দেওয়ার সময় অদলবদল করে ফেলেন। কিন্তু শিশুদের মায়েরা কয়েক মিনিটের মধ্যে ভুলটি বুঝতে পেরেছিলেন। এরপরই দুই নবজাতককে  ফিরিয়ে দেওয়া হয় সঠিক পরিবারে। দু’জনের মায়ের আলাপও হয় সেখানে।

জন্মের সময়ে অদলবদল হয়ে গিয়েছিলেন হাসপাতালে

এরপর জিম তার বাবা-মায়ের সাথে গ্লাসগোর দক্ষিণে আরডেনে চলে যান এবং মার্গারেট শহরের উত্তর-পশ্চিমে নাইটসউডের বাড়িতে যান তার পরিবারের সঙ্গে। এর ১৮ বছর পর ভাগ্য আবারও একত্রিত করে জিন ও মার্গারেটকে।
শহরে ভয়ঙ্কর রাসেল ভাইপার সাপ, আতঙ্কে চাঁদপুরবাসী
ওই দম্পতি জানিয়েছেন ১৮ বছর বয়স পর্যন্ত আর কথাবার্তা হয়নি তাদের মধ্যে। কিন্তু ঠিক ১৮ বছরের মাথায় এক বন্ধুর বিয়েতে ফের দেখা হয় তাদের। প্রথম দেখাতেই দুজন দুজনের প্রেমে পড়ে যান। মাস দুয়েকের আলাপচারিতার পর নিজেদের পরিবারের আলাপ করিয়ে দেওয়ার কথা ভাবেন দু’জনে। দুই পরিবার ফের একসঙ্গে আসতেই চমকে ওঠেন দু’জনের মা। উঠে আসে হাসপাতালের ঘটনাও। ১৯৭২ সালে বিয়ে করেন জিম আর মার্গারেট। দুই পুত্রসন্তান আর নাতি-নাতনি সঙ্গে গত শুক্রবার ৫০তম বিবাহবার্ষিকী পালন করেন এই দম্পতি।

Leave a Reply

Translate »