তৈলাক্ত ত্বকের জন্য চারটি প্রয়োজনীয় জিনিস

লেবুর অসংখ্য গুণের মধ্যে অনত্যম গুণ হচ্ছে, ত্বকের যত্নে লেবু খুবই উপকারী। তবে শুধু মুখে লাগিয়ে রাখলেই হবে না, জানতে হবে এর সঠিক পদ্ধতি। রইলো ত্বকের যত্নে লেবুর কিছু কার্যকরী উপায়-

১. একটি  অর্ধেক অংশ কেটে তার রস বের করে নিন। এবার লেবুর রসের সঙ্গে ২ টেবিলচামচ মধু মিশিয়ে মিশ্রণটি ত্বকে ১৫ মিনিট লাগিয়ে রাখুন। শুকিয়ে গেলে ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। মধু ত্বক উজ্জল করবে এবং লেবুর প্রাকৃতিক উপাদান ত্বককে আরও ফর্সা করে তুলবে।

২. ত্বকের তৈলাক্ত ভাব দূরকরতে একই পরিমাণ শসার রস ও লেবুর রস মিশিয়ে মুখে লাগিয়ে নিন। এতে ত্বকের তৈলাক্ত ভাব দূর করে ত্বক সতেজ হবে।

৩. একটি লেবুর অর্ধেক অংশ কেটে তার রস বের করে নিন। এবার তার সঙ্গে ১০ টেবিল চামচ দুধ মিশিয়ে নিন। এবার মিশ্রণটি মুখে ধীরে ধীরে ম্যাসাজ করুন। এরপর ১৫ থেকে ২ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন।

৪. ডিমের সাদা অংশের সঙ্গে অর্ধেক লেবুর রস ও এক টেবিল চামচ কমলা লেবুর রস উষ্ণ গরম জলে মিশিয়ে ত্বকে লাগান। ২০ মিনিট রেখে ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এটি ত্বকের তৈলাক্ত ভাব কম করার পাশপাশি উজ্জ্বল বাড়ায়।

৫. হাত ও পায়ের রুক্ষভাব দূর করতে লেবুর রসের সঙ্গে একই পরিমাণ চালের গুড়া মিশিয়ে ভালভাবে হাতে পায়ে লাগিয়ে নিন। এতে ত্বক আগের চেয়ে অনেক বেশী কোমল হবে।

 Read more:ত্বক ফর্সা করার ৯টি ঘরোয়া উপায় জানেন কি? | মাত্র 15 মিনিটে ত্বকের কালো দাগ দূর করে উজ্জ্বল ফর্সা এবং আকর্ষণীয় ত্বক পাওয়ার উপায়। 

তৈলাক্ত ত্বকের জন্য চারটি প্রয়োজনীয় জিনিস

তাই তৈলাক্ত ত্বকের অধিকারিদের বরাবর বাড়তি সচেতন থাকতে হয়।

ফেমিনা ডটইন’য়ে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে তৈলাক্ত ত্বকের অধিকারীদের জন্য প্রয়োজনীয় কয়েকটি উপাদান সম্পর্কে জানানো হল।

তৈলাক্ত ত্বকের যত্নে দুইটি বিষয় কখনই ভোলা যাবে না, প্রথমত নিয়মিত ত্বকের যত্নে এর সঠিক পরিচর্যা করা এবং প্রসাধনী হিসেবে তেলমুক্ত ও চিটচিটে হয় না এমন পণ্য ব্যবহার করা।

ব্লটিং পেপার

তৈলাক্ত ত্বকের ঝটপট তেলতেলে ভাব কমাতে ব্লটিং পেপার উপকারী। এই কাগজগুলো দ্রুত বাড়তি তেল শুষে নেয় এবং ম্যাটভাব আসে। মেইকআপ করা বা ছাড়া যেকোন অবস্থাতেই এই পেপারগুলো কাজ করে। তাই তৈলাক্ত ত্বকের অধিকারীরা সবসময় হাতের নাগালে ব্লটিং পেপার রাখতে পারেন।

Read more: করোনায় দীর্ঘ সময় মাস্ক পরে ত্বকের ক্ষতি করছেন?

ম্যাটিফাইং লুজ পাউডার

তৈলাক্ত ত্বকের অধিকারীদের ঝটপট তেলতেলেভাব কমাতে লুজ পাউডার বেশ কার্যকর। বাইরে যাওয়ার সময় ফাউন্ডেশন ব্যবহার না করলেও ময়েশ্চারাইজার বা সানব্লক ব্যবহারের পরেও কেবল লুজ পাউডার ব্যবহার করা যায়। এতে মুখের তেলতেলে ভাব কমে ও দীর্ঘক্ষণ দেখতে সতেজ লাগে। তাছাড়া দিনের যেকোন সময়ই পুনরায় তা ব্যবহার করা যায়।

ক্লে মাস্ক

তৈলাক্ত ত্বকের জন্য ক্লে মাস্ক বেশ চমৎকার কাজ করে। এতে মুখের বাড়তি তেল শুষে নেয়। ফলে দেখতে সতেজ লাগে। ত্বককে ডেটক্স করতে ও দ্রুত ভালো ফলাফল পেতে ক্লে মাস্ক উপকারী। এটা লোমকূপ ময়লা ও জীবাণু মুক্ত রাখে এবং ব্রণ, ব্ল্যাক হেডস ইত্যাদি হওয়ার সমস্যা কমায়।

অয়েল ফ্রি ফোমিং ক্লিঞ্জার

ত্বক ভালো রাখতে উপযুক্ত ফেইসওয়াশ ব্যহারের বিকল্প নেই। তৈলাক্ত ত্বকে তেল ভিত্তিক, ক্রিম বা দুধের ক্লিঞ্জার ব্যবহার করা ঠিক নয়। এই ধরনের ত্বকে তেলমুক্ত ফোমিং ফেইসওয়াশ ব্যবহার করা উচিত। ফলে প্রসাধনীর মাধ্যমে বাড়তি তেল যোগ না করেই ত্বক ভালো মতো পরিষ্কার করা যায় এবং ব্রণের ঝুঁকি কমে।

Read more:  সেরা পুরুষদের ত্বকের যত্নের রুটিন | ঘুমানোর আগে পুরুষের ত্বকের যত্ন

 

 

তৈলাক্ত ত্বকের জন্য চারটি প্রয়োজনীয় জিনিস, তৈলাক্ত ত্বকের যত্নে মধু, শীতকালে তৈলাক্ত ত্বকের যত্ন, তৈলাক্ত ত্বকের যত্নে বেসন, গরমে তৈলাক্ত ত্বকের ক্রিম, তৈলাক্ত ত্বকের যত্নে লেবু, ছেলেদের তৈলাক্ত ত্বকের যত্ন, তৈলাক্ত ত্বকের প্রাইমার, তৈলাক্ত ত্বকের যত্নে মসুর ডাল, ত্বকের যত্নে লেবু ও চিনি, ত্বকের যত্নে মধু ও লেবু, মুখে লেবুর রস লাগানোর অপকারিতা, মুখে চিনি দিলে কি হয়, ত্বকের যত্নে লেবুর ব্যবহার, লেবু দিয়ে রূপচর্চা, ছেলেদের ত্বকের যত্নে লেবু, শসা ও লেবুর রস

Leave a Reply

Translate »