পুরুষের যে ৭ গুণে আকৃষ্ট নারী l নারীদের যে গুণে বিগলিত পুরুষ

মেয়েদের আকৃষ্ঠ করতে চান,জেনে নিন পুরুষের যে ৭ গুণে আকৃষ্ট নারী !

পুরুষের মাথায় কিছু প্রশ্ন সবসময় কাজ করে। এর মধ্যে একটা হচ্ছে- পুরুষের কোন কোন গুণে আকৃষ্ট হয় নারী। বিখ্যাত ‘বিজনেস ইনসাইডার’ পত্রিকায় পুরুষের সাতটি গুণের কথা উল্লেখ করা হয়েছে যেগুলোতে সাধারণত আকৃষ্ট হয়ে থাকে নারী। একদল শিক্ষার্থীর উপর গবেষণা চালিয়ে বিজ্ঞানীরা এ সিদ্ধান্তে আসেন। নিচে পুরুষের সেরকম ৭টি গুণের কথা বলা হল :

এক. সুদর্শন হলেই বিশেষ সুবিধা, এমন নয় আপনি দেখতে বেশ সুদর্শন। তাই ভাবছেন মেয়েরা হুমড়ি খেয়ে পড়বে আপনার উপর; ব্যাপারটা এত সহজ নয়। অনেক সময় সুদর্শন হলেও বেশ ঝামেলায় পড়তে পারেন। কারণ সুদর্শন পুরুষকে মেয়েরা সাধারণত বিশ্বাস করে না! গবেষণায় দেখা গেছে সুদর্শন পুরুষকে নারীরা পছন্দ করে থাকে অল্পমেয়াদী সম্পর্কের জন্য, দীর্ঘস্থায়ী সম্পর্কের জন্য নয়!

দুই. নিঃস্বার্থ পুরুষকে পছন্দ নারীর- সুদর্শন পুরুষ বেশিরভাগ সময়ই নিজেকে নিয়ে সচেতন ও অহংকারী হয়ে থাকে। সেটা অনেক সময় এত চূড়াতে থাকে সেখান থেকে একটু নেমে আসার মতো ইগো ক্ষয় হয়ে উঠে না। কিন্তু নারী চায় পুরুষ তার কাছে নমনীয় থাকুক, তাকে গুরুত্ব দিক, স্রেফ নিজের ইগোকে নয়! যে পুরুষ ব্যক্তিগত জীবনে বিভিন্ন সামাজিক কাজ করে, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান করে, দাতব্য সংস্থায় কাজ করে তাদেরকে নারীরা খুবই পছন্দ করে। তারা মনে করে সেসব পুরুষের ইগো খানিকটা কম। সে শুধু নিজেকে গুরুত্ব দেয় না, অন্যকেও গুরুত্ব দেয়।

 তিন. বেশি বয়সী পুরুষকে পছন্দ -নারীরা সাধারণত নিজের চেয়ে বেশি বয়সী পুরুষকে পছন্দ করে থাকে। কারণ সেসব পুরুষ পর্যাপ্ত অর্থ উপার্জন করেছেন বলে মনে হয় তাদের কাছে। এটাকে গবেষকরা ‘জর্জ ক্লুনি ইফেক্ট’ নাম দিয়েছেন। হলিউডের এই ষাটোর্ধ অভিনেতা নিজের চেয়ে অর্ধেক কম বয়সী মেয়ের সাথে প্রেম-বিয়ে করেছেন বলে গবেষকরা এ নাম দিয়েছেন!

চার. পুরুষের রসবোধ থাকা চায় -যে পুরুষের সেন্স অব হিউমার বা রসবোধ নেই তার দিকে সাধারণত আকৃষ্ট হয় না নারীরা। এই রসবোধকে বুদ্ধিমত্তার নিদর্শন হিসেবে মনে করে নারীরা!

পাঁচ. পোষা কুকুর বা প্রাণী থাকা -গবেষণায় দেখা গেছে যেসব পুরুষের পোষা কুকুর বা পোষা প্রাণী আছে তাদের প্রতি নারীরা আকৃষ্ট হয়ে থাকে। নারীদের কাছে মনে হয় সে পুরুষটি খুবই কেয়ারিং!

ছয়. মনোযোগী পুরুষকে পছন্দ- আপনি কোনো জরুরি ডিনারে গিয়ে বারবার ফোনের মনিটরে চোখ রাখছেন, ফোন কল করছেন বা রিসিভ করছেন, সোশ্যাল মিডিয়াতে চেক ইন করছেন সেটা ভালো চোখে দেখে না নারীরা। তারা চায় আপনি তার দিকে মনোযোগী হন, তার কথা খুব মনোযোগ দিয়ে শুনেন- সেটা যতই আজগুবি কথাই হউক না কেন!

সাত. অভিযান প্রিয় পুরুষকে পছন্দ নারীর -যারা খুব ঝুঁকি নিয়ে কাজ করেন- যেমন পর্বত শৃঙ্গ আরোহন, গভীর অরণ্যে ট্র্যাকিং, অন্যায়ের প্রতিবাদকারী তাদের পছন্দ করে নারীরা। যেসব কাজে সাহস ও শারীরিক সক্ষমতার পরিচয় দিতে হয় সেগুলো পছন্দ নারীদের। নারী ও পুরুষের সম্পর্ক অনেক জটিল। এখানে সরলীকরণের ঝামেলা আছে। কিছু কিছু জায়গাতে কোন প্রতিষ্ঠিত ফর্মূলাই কাজ করে না।

 উপরের গবেষণাটি একটি নির্দিষ্ট এলাকায় চালানো গবেষণা। বিশ্বের বিভিন্ন জায়গায় এর ফলাফল ভিন্ন হতে পারে। তারপরও কমন মিলে যেতে পারে!

 

Leave a Reply

Translate »