ফাইভারে কাজ পাওয়ার উপায় – গিগ র‍্যাংকিং থেকে রিভিউ সংক্রান্ত টিপস

ফাইভার বিশ্বের অন্যতন একটি জনপ্রিয় একটি ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস। ফাইভার ব্যবহার করে দেশি বিদেশী অনেক ফ্রিল্যান্সার তাদের জীবন জীবিকার মান সুন্দর করছে। ফাইভারে নতুন সেলার হিসেবে আপনি অবশ্যই আপনার গিগ যত দ্রুত সম্ভব র‍্যাংক করতে চাইবেন। যত দ্রুত আপনি র‍্যাংক করবেন তত দ্রুত আপনার কাজ পাওয়ার সম্ভাবনা বৃদ্ধি পাবে। কাজ পেলেই আপনার পকেটে টাকা আসা শুরু করবে।

কিন্তু ফাইভারে নিজের গিগ র‍্যাংক করানো কখনো কখনো সময় সাপেক্ষ এবং ধৈর্য্যের ব্যাপার। তবে কিছু জিনিসের উপর বাড়তি নজর রাখলে আপনি আপনার ফাইভারের গিগকে সার্চ রেজাল্টের প্রথম পেজে নিয়ে আসতে পারবেন। আজকের এই আর্টিকেলে আমরা ফাইভার গিগকে কিভাবে র‍্যাংক করানো যায় সে বিষয়ে কিছু টিপস নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করবো।

কিওয়ার্ডের জন্য আপনার গিগ টাইটেল অপটিমাইজ করুন

আপনি যখন আপনার ফাইভার গিগ বানাবেন তখন সর্বপ্রথম আপনি টাইটেলে কোন কিওয়ার্ড ব্যবহার করছেন সে ব্যাপারে খেয়াল রাখতে হবে। আপনি যে সকল সেবা প্রদান করেন সে বিষয়ে ক্লায়েন্ট কি লিখে সার্চ করতে পারে সে ব্যাপারে একটু গভীর মনোযোগের সাথে চিন্তা করুন। আপনি যদি প্রাসঙ্গিক কোনো কিওয়ার্ড আপনার টাইটেলে অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন তাহলে ক্লায়েন্টের সার্চ রেজাল্টে আপনি উঠে আসার সম্ভাবনা বৃদ্ধি পাবে।

সব সময় মাথায় রাখবেন যে আপনার প্রধান কাজ থাকবে আপনার গিগের মাধ্যমে ক্লায়েন্টকে আপনাকে কাজ দিতে আগ্রহী করা। এজন্য ক্লায়েন্টের মনোযোগ আকর্ষন করার জন্য আপনার গিগের টাইটেল সংক্ষিপ্ত, তথ্য বহুল এবং আকর্ষণীয় রাখার চেষ্টা করবেন। ফাইভারে সাধারনত গিগের টাইটেল দেবার জন্য স্পেস সহ সর্বোচ্চ ৮০ টি ক্যারেক্টার ব্যবহার করা যায়।

গিগের বিবরণ আকর্ষণীয় করে তুলুন

আপনার গিগের বিবরণ ক্লায়েন্টকে আপনার কাছ থেকে সেবা বেছে নেওয়ার জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। প্রয়োজন পড়লে আপনি পর্যাপ্ত সময় নিয়ে আপনার সেবার ধরন সম্পর্কে বিস্তারিত লিখে ফেলুন। এছাড়া আপনার বিবরণে আপনি কি অফার প্রদান করছেন, আপনার পারদর্শীতা প্রদর্শন এবং আপনার কাছ থেকে সেবা নিলে ক্লায়েন্ট কি সুবিধা পাবে সে সম্পর্কে অবশ্যই উল্লেখ করবেন। আপনি যখন আপনার বিবরণ লিখবেন তখন সকল প্রকার প্রাসঙ্গিক কিওয়ার্ড স্বাভাবিকভাবেই বিবরণের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করার চেষ্টা করুন।

সঠিক ক্যাটাগরি এবং ট্যাগ সিলেক্ট করুন

ফাইভার সাইটে আপনার গিগ তৈরি করার সময় আপনি যে সেবা প্রদান করছেন ঠিক সে বিষয়ের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ ক্যাটাগরি নির্বাচন করার চেষ্টা করুন। সঠিক ক্যাটাগরি ব্যবহার করার ফলে আপনার গিগটি প্রাসঙ্গিক সার্চের ফলাফলে সামনে আসবে। আপনি যদি সঠিক ক্যাটাগরি ব্যবহার না করে থাকেন তাহলে আপনি যেই সেবা প্রদান করেন সেই সেবা বহির্ভুত কোনো সার্চের ফলাফলে আপনার গিগ চলে আসতে পারে। এর ফলে কেউই আপনার গিগে গিয়ে আপনাকে কাজ প্রদান করবে না।

এছাড়াও আপনার গিগের সাথে প্রাসঙ্গিক ট্যাগ ব্যবহার করুন। ফাইভারের সার্চ এলগোরিদম এ ট্যাগ খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। তাই ট্যাগ নির্বাচনের ক্ষেত্রে অনেক ভাবনা চিন্তা করতে হবে নয়তো আপনার র‍্যাংক বৃদ্ধি পাবার সম্ভাবনা কমে যাবে।

মার্কেটের সাথে প্রতিযোগিতামূলক একটি প্রাইস অফার করুন

ক্লায়েন্টকে আকর্ষণ করার জন্য এবং আপনার গিগকে র‍্যাংকিং করানোর জন্য একটি প্রতিযোগিতামূলক প্রাইসিং গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। আপনি যে সকল সেবা প্রদান করতে চান সে সকল কাজের মার্কেট ভ্যালু সম্পর্কে জেনে নিয়ে আপনার গিগে তার সাথে প্রতিযোগিতামূলক একটি প্রাইস যুক্ত করুন।

 

👉Answers For All FIVERR COURSE QUESTIONS 2023

ক্লায়েন্টের জন্য ভিন্ন ভিন্ন প্যাকেজ কিংবা গিগ এক্সট্রার মতো অপশন এর ব্যবস্থা রাখার চেষ্টা করুন। আপনার প্রাইসিং এর সাথে আপনি কি ভ্যালু আনছেন সেটি যেন পরিলক্ষিত হয় এবং মার্কেটের সাথে প্রতিযোগিতা মূলক হয় সে ব্যাপারে বিশেষভাবে খেয়াল রাখুন।

পজিটিভ রিভিউ পাবার জন্য ফোকাস করুন

ফাইভারে পজিটিভ রিভিউ অনেক গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। এটি আপনার রেপুটেশন বৃদ্ধির পাশাপাশি আপনার গিগ র‍্যাংক করার জন্য অনেক বেশি সম্ভাবনা প্রদান করে। আপনার কাছে যখন কোনো ক্লায়েন্ট কাজ নিয়ে আসবে তখন চেষ্টা করুন সঠিক সময়ে সুন্দর পরিপাটিভাবে ক্লায়েন্টের কাজ যেন ডেলিভারি হয়ে যায়। এতে করে ক্লায়েন্ট আপনার উপর খুশি হয়ে আপনাকে একটি পজিটিভ রিভিউ দিয়ে যাবে। কিন্তু কখনোই ক্লায়েন্টের কাছে রিভিউ এর জন্য আবেদন করবেন না। নিজের কাজের মাধ্যমে রিভিউ অর্জন করে নিন। আপনার একাউন্টে যত বেশি পজিটিভ রিভিউ আসবে আপনার একাউন্ট ততোবেশি সমৃদ্ধশালী হয়ে উঠবে। এতে করে নতুন ক্লায়েন্টদের কাছে আপনার ইম্প্রেশন বেড়ে যাবে যেটি আপনাকে কাজ পেতে এবং র‍্যাংক উন্নত করতে সহায়তা করবে।

চোখ ধাঁধানো ছবি সংযুক্ত করুন

ভিজ্যুয়াল কন্টেন্ট যেকোনো কিছু আকৃষ্ট করার জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। আপনার গিগের জন্য হাই কোয়ালিটি ছবি যেটি আপনার কাজ সম্পর্কে, আপনার বিশেষত্ব এর ধারনা দেয় এবং আপনার উপর ভালো ইম্প্রেশন পড়বে এগুলো ব্যবহার করুন। তবে এ বিষয়ে খেয়াল রাখতে হবে যে আপনার ছবি যেন প্রাসঙ্গিক, প্রফেশনাল এবং চোখে দেখতে দারুন হয়। কোনো প্রকার ভিন্ন ধর্মী ছবি ব্যবহার করলে অনেক সময় ক্লায়েন্টের একটি খারাপ ইম্প্রেশন পড়ে যায়। ফলে এমন হতে পারে আপনি একটি কনফার্ম পাওয়া কাজ হারিয়ে ফেলতে পারেন।

সদা তৎপর থাকুন

সর্বশেষ ফাইবার একজন সক্রিয় এবং সদা তৎপর সেলারকে সবসময় প্রাধান্য দিয়ে থাকে। আপনার কাছে আসা সকল ধরনের মেসেজ এবং অর্ডার রিকুয়েস্ট এ সব সময় দ্রুততার সাথে রেসপন্স করার চেষ্টা করুন। ক্লায়েন্টের সাথে যোগাযোগ এর ক্ষেত্রে ভদ্রতা এবং প্রফেশনালিজম ফলো করুন। ক্লায়েন্টের প্রয়োজন সম্পর্কে সর্বদা অবগত থাকুন এবং আপনি যখন কোনো কাজ হাতে নিবেন তাহলে সেই কাজ সম্পর্কে আপনার ক্লায়েন্টের সাথে নিয়মিত কাজের অগ্রগতি নিয়ে আলোচনা করুন।

আপনার তৎপরতা এবং সক্রিয় ব্যস্ততা শুধুমাত্র কাজের প্রতি ডেডিকেশন এবং কমিটমেন্ট সম্পর্কে ধারনা দেয় না। এটি আপনার সেলার লেভেল বৃদ্ধি করতেও সাহায্য করে। ক্লায়েন্টের ম্যাসেজের দ্রুত রেসপন্স না করলে আপনার অগ্রগতি ব্যাহত হতে পারে।তাই ফাইবারে সব সময় তৎপর থাকা উচিত।

ফাইবারে নিজের গিগ র‍্যাংক করানোর জন্য ধৈর্যের থেকে বড় কিছু নেই। ফাইবারে টাকা ইনকাম করা সহজ হলেও একজন ফ্রিল্যান্সারকে ধৈর্য্য ধরে তার একাউন্ট গড়ে তুলতে হবে। এভাবে আপনিও চাইলে একটা সুন্দর ফাইবার একাউন্ট খুলে আপনার জীবন জীবিকা নির্বাহ করতে পারেন। ফাইবারে গিগ র‍্যাংক করা সম্পর্কিত আমাদের এই আর্টিকেলটি আপনাদের কেমন লেগেছে তা আমাদের কমেন্ট করে জানাতে পারবেন। নিত্য নতুন টেকনোলজি বিষয়ক আর্টিকেল এবং নানা ধরনের টিপস পেতে চোখ রাখুন আমাদের এই ওয়েবসাইটে।

Leave a Reply

%d bloggers like this: