মুখ ধোয়ার সময় এই ভুলগুলো ভুলেও নয় | দিনে কত বার মুখ ধোয়া জরুরি আর কখন ক্ষতিকর জানেন?

দরজার সামনে এসে চুপ করে দাঁড়িয়ে আছে শীত। দু–এক দিনের ভেতরেই ঢুকে পড়বে অন্দরে। স্পর্শ করবে শরীর। এমনিতেই প্রতিদিন যে কাজগুলো করতেই হয়, তার ভেতর মুখ ধোয়া অন্যতম। নিয়মিত নিয়ম মেনে মুখ না ধুলে দেখা দেয় নানান তাৎক্ষণিক ও দীর্ঘমেয়াদি সমস্যা। শীতে এমনিতেই ত্বক চায় আরেকটু বেশি মনোযোগ। একটু এদিক–সেদিক হলেই পিম্পল হয়ে বিদ্রোহ করে বসে! এমন সময় জেনে নেওয়া যাক মুখ ধোয়ার সময় যে ভুলগুলো ভুলেও করা যাবে না।

মুখ ধোয়ার সময় কিছু ভুল ভুলেও করা যাবে না

১. বেশি মুখ ধোয়া

মুখ না ধুলে ছত্রাক তৈরি হয় এবং এগুলো বিভিন্ন ত্বকের সমস্যা তৈরি করে। তাই অনেকেই বারবার সাবান নিয়ে মুখ ধোয়। তবে বেশি বেশি মুখ ধোয়া ত্বকে অস্বস্তি বা প্রদাহ তৈরি করতে পারে। এতে তেল নিঃসরণ বেড়ে যায়।

দিনে দুবার সঠিক নিয়মে মুখ ধোয়া প্রয়োজন। প্রথমে সকালে ঘুম থেকে উঠে এবং দ্বিতীয়বার রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে বা বাইরে থেকে ঘরে ফিরে। এর মাঝখানে যদি মুখ পরিষ্কারের প্রয়োজন হয়, তবে সাবান-পানি দিয়ে নয়, মুখ পরিষ্কারের ভেজা টিস্যু ব্যবহার করুন। তবে এটিও বেশি করবেন না।

২. গরম পানি দিয়ে মুখ ধোয়া

শীতের সময় গরম পানি দিয়ে মুখ ধোয়া খুব আরামের। তবে এটি কিন্তু মুখকে শুষ্ক করে দেয়। আবার খুব ঠান্ডা পানি দিয়েও মুখ ধোয়া ঠিক নয়। মুখ ধুতে হালকা গরম পানি বা ঘরের তাপমাত্রার পানি ব্যবহার করুন। এটি ত্বককে ভালো রাখতে কাজে দেয়। পরিশোধিত পানি দিয়েই মুখ ধোয়া উচিত। এমন পানি ব্যবহার করা ঠিক নয়, যেটি আপনি খেতে পারবেন না।

৩. মেকআপ না তোলা

মুখ ধোয়া মেকআপ ভালোভাবে পরিষ্কার করতে সাহায্য করে। তবে মুখ ধোয়ার আগে মেকআপ তোলা জরুরি। এই মেকআপ তুলতে আপনি ক্লিনজার ব্যবহার করতে পারেন। মেকআপ তুলতে ঘরে তৈরি মেকআপ রিমুভারও ব্যবহার করতে পারেন।

নারকেল তেল, জলপাইয়ের তেল, দুধ হলো প্রাকৃতিক মেকআপ রিমুভার। একটি তুলার টুকরোকে এগুলোর যেকোনো একটির মধ্যে ভেজান এবং মুখ আলতো করে পরিষ্কার করুন। চোখের মেকআপ তোলার ক্ষেত্রে বাড়তি মনোযোগ দিন। এর পর মুখ ধুয়ে ফেলুন। মেকআপ না ধুয়ে কিছুতেই ঘুমিয়ে পড়বেন না। এতে ত্বকে বেশ ক্ষতি হয়।

আরও পড়ুন: ইবনে সিনা হাসপাতালের ডাক্তার লিস্ট

৪. ভুল ক্লিনজারের ব্যবহার

অনেকে মুখ ধোয়ার জন্য ফেসিয়াল ক্লিনজার ব্যবহার করেন। তবে অনেকেই সঠিক ক্লিনজারটি বেছে নিতে পারেন না। ত্বকের ভিন্নতায় ক্লিনজারও কিন্তু ভিন্ন। আপনার ত্বকের সঙ্গে যে ক্লিনজার যাবে, সেটিই ব্যবহার করুন।

একটি ভালো ক্লিনজার হয়তো মুখের ময়লা সম্পূর্ণভাবে পরিষ্কার করবে না। তবে এটি তেলকে খুব বেশি বের হতে দেবে না। এটি ত্বককে আর্দ্র ও স্বাস্থ্যকর রাখতে কাজ করবে। আর ক্লিনজার কেনার সময় নন-সোপ ক্লিনজার ব্যবহার করুন।

৫. ভালোভাবে মুখ না ধোয়া

মুখ পরিষ্কারের জন্য ক্লিনজারের ব্যবহার ভালো। তবে ক্লিনজার যদি ভালো করে পরিষ্কার করা না হয়, এটি ত্বকের ক্ষতি করতে পারে। ক্লিনজার মুখে থেকে গেলে এটি ময়লাকে আরো বেশি টেনে আনে। ক্লিনজার ব্যবহারের পর মুখ ভালোভাবে ধুয়ে নেবেন।

৬. ময়লা হাত দিয়ে মুখ ধোয়া

অনেকেই মুখ ধুতে শুরু করেন হাত না ধুয়েই। ত্বক ভালো রাখতে হলে অবশ্যই বিষয়টি বন্ধ করা উচিত। আপনি যখন ময়লা হাত দিয়ে মুখ ধুতে থাকেন, হাতের ময়লা মুখের ত্বকে চলে যায়। এটিও ত্বকের ক্ষতি করতে পারে। তাই মুখ ধোয়ার আগে ভালো মানের সাবান দিয়ে আগে হাত ধুয়ে নিন।

৭. তোয়ালে দিয়ে মুখ ঘষা

ধোয়ার পর অনেকেই খুব জোরে জোরে তোয়ালে দিয়ে মুখ মুছতে থাকেন। এতে অস্বস্তি এবং শুষ্কতা বেড়ে যায়। অনেক সময় দ্রুত চামড়া ঝুলে পড়ার সমস্যাও হয়। তোয়ালে ব্যবহারের আগে নরম পরিষ্কার কাপড় দিয়ে মুখ মুছে নিন। মুখ মোছার জন্য নরম পরিষ্কার কাপড় আলাদা করে রাখুন। আর মুখ মোছার জন্য অবশ্যই পরিষ্কার কাপড় ব্যবহার করুন।

৮. ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার না করা

অনেকেই মুখ ধোয়ার সঙ্গে সঙ্গে ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করেন না। তবে মুখ ধোয়ার পরপরই ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করা প্রয়োজন। যাঁদের ত্বক তৈলাক্ত, তাঁরা ওয়াটার বেজ ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করবেন। আর যাঁদের ত্বক শুষ্ক, তাঁরা অয়েলি ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করবেন। একটি ভালো ময়েশ্চারাইজার ত্বককে অতিরিক্ত শুষ্ক হয়ে যাওয়া থেকে প্রতিরোধ করবে। তাই মুখ ধোয়ার পর অবশ্যই এই কাজ করুন।

 

বারবার মুখ ধুলে ত্বকের ময়েসচার চলে যাবে। ফলে ত্বক দ্রুত রুক্ষ ও শুষ্ক হয়ে যাবে। তাহলে ত্বকের কোনও রকম ক্ষতি না করেই দিনে কত বার আমরা মুখ ধুতে পারি? আসুন সেটাই জেনে নেওয়া যাক।

দিনে কত বার মুখ ধোয়া জরুরি আর কখন ক্ষতিকর জানেন?

বর্ষা শুরু হয়ে গেলেও গুমোট ভাব কিছুতেই কাটছে না। বাতাসে আদ্রতার পরিমাণ অনেকটাই বেশি। অল্পতেই মুখ ঘেমে যায়। সেই সঙ্গে ত্বকও অতিরিক্ত তেলতেলেও হয়ে ওঠে। তাই বলে তো আর একটু পরপরই মুখ ধোয়া চলবে না। বারবার মুখ ধুলে ত্বকের ময়েসচার চলে যাবে। ফলে ত্বক দ্রুত রুক্ষ ও শুষ্ক হয়ে যাবে। তাহলে দিনে কত বার আমরা মুখ ধুতে পারি ত্বকের কোনও ক্ষতি না করেই? আসুন সেটাই জেনে নেওয়া যাক।

সারাদিনে আপনি কমপক্ষে ৩ বার থেকে সর্বোচ্চ ৫ বার পর্যন্ত মুখ ধুতে পারেন। আমাদের দেশের পরিবেশ ও আবহাওয়ার উপরে নির্ভর করলে ৫ বার পর্যন্ত মুখ ধোয়া যেতে পারে সারাদিনে। তবে আপনি যদি শীত প্রধান দেশে থেকে থাকেন তবে আপনার জন্য দিনে সর্বোচ্চ দুই বার মুখ ধোয়া যাবে। কিন্তু কখন কখন? আসুন জেনে নেওয়া যাক।

 

আরও পড়ুন: খালিপেটে এবং ঘুমানোর আগে লবঙ্গ খেলে ম্যাজিকে

প্রথমবার মুখ ধুতে হবে দিনের শুরুতেই। ঘুম থেকে উঠে অনেকেই স্নান সেরে নেন। সারাদিন ফ্রেশ থাকার এটাই সব থেকে ভাল উপায়। এতে আপনার মুখের ত্বকটাও পরিষ্কার হয়ে যাবে। যদি কোনও কারণে স্নান করা সম্ভব না হয় তবে ভাল করে অন্তত মুখ ধুয়ে ফেলুন। মুখ ধোয়ার জন্য আপনার ত্বকের উপযোগী কোনও ফেসওয়াস ব্যবহার করতে পারেন।

 

আরও পড়ুন: নয়নতারা ফুলের উপকারিতা ও ভেষজ গুনাগুণ | নয়নতারা ফুল দিয়ে রূপচর্চা

এছাড়াও সারাদিন বাইরে কাটিয়ে আসার পরে বাড়িতে এসেই ভাল করে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এ সময় চাইলে ঘরে তৈরি করা যায় এমন ফেস প্যাক মুখে লাগিয়ে নিন। মিনিট কুড়ি রাখুন। ফেসপ্যাক তুলে ফেলার পরে মুখ ঠাণ্ডা জল দিয়ে ভাল করে ধুয়ে নিন। এর পরে আর ফেস ওয়াস ব্যবহারের দরকার পড়বে না।

মুখে সাবান ব্যবহার করলে কি হয়, মুখ ধোয়ার সঠিক পদ্ধতি, নন সোপ ক্লিনসার কি, গরম পানি দিয়ে মুখ ধোয়ার উপকারিতা, কোন সাবান মুখের জন্য ভালো, YC ফেসওয়াশ এর উপকারিতা, টি ট্রি ফেসওয়াস এর উপকারিতা, হিমালয়া নিম, ফেসওয়াশ ব্যবহারের নিয়ম,মুখ ধুতে গিয়ে আমরা যে ৮ ভুল করি,We make that mistake when we wash our face,face washing mistakes, does face wash make you darker, i stopped washing my face and acne, went away i stopped washing, my face in the morning cleansing, mistakes not washing my face for a month

Leave a Reply

Translate »