একটি জনপ্রিয় কবিতার সাথে মেহেদী পাতার উপকারিতা ও গুনাগুন

মানুষ অতীত থেকেই মেহেদী পাতার উপকারিতার কারণে এর ব্যবহার করে আসছে। ছেলে ও মেয়ে উভয়ই মেহেদী রঙিন হতে পছন্দ করে। তবে মেয়েরা আরও বেশি মেহেদি ব্যবহার করেন। এটি তাদের সৌন্দর্য বাড়ায়।

এটি শুধু যে সৌন্দর্য বাড়ায় তা কিন্তু নয়, চুলের যত্নে মেহেদি পাতার উপকারিতাও রয়েছে। ছেলেরা মাঝে মধ্যে যে কোনও উৎসবে এটি ব্যবহার করে। তবে মেহেদী পাতা মানবজীবনেও অনেক রোগের উপকারীতা রয়েছে। অনেক লোক জানেন না যে এই পাতায় ঔষধি গুণও রয়েছে। তবে আজকে জেনে নিন এই মেহেদি পাতার গুনাগুন গুলি কি কি?

মেহেদী গাছের ছবি :

মেহেদী পাতার উপকারিতা ও গুনাগুন
মেহেদী পাতার উপকারিতা ও গুনাগুন

চুলের যত্নে মেহেদী পাতার উপকারিতা

চুলের যত্নে মেহেদী পাতার ব্যবহার অত্যন্ত পুরানো, যদিও আরও বেশ কয়েকটি কারণে মেহেদি পাতা ব্যবহার করা হয়। মেহেদী পাতা চুলের সমস্যার সমাধেনে ব্যবহার করা। মেহেদি পাতা খুব সহজেই পাওয়া যায়, কারণ কাঁচা মেহেদি পাতা সর্বদা জনবহুল অঞ্চলের বাজারগুলিতে পাওয়া যায়। এটি ব্যবহার করা সহজ। শুকনো এবং গুঁড়া হলে মেহেদি পাতা প্রায়শই যে কোনও সময় ব্যবহার করা যায়।

তবে বেশি ভালো হয় তাজা পাতা ব্যবহারে। শুকনো পাতার চেয়ে বেশি উপকারী তাজা পাতা। আপনি চাইলে প্রাকৃতিকভাবে সাদা চুল রঙ করার ক্ষেত্রে মেহেদী পাতা ব্যবহার করতে পারবেন। তার কোনও তুলনা নেই। এমনকি কালো চুলে ব্যবহার করা চুল আরও কালো করে তোলে। হেনা পাতা, হাত, পা এবং নখকে সাজানোর ক্ষেত্রে বেশি ব্যবহার করতে পারেন।

মেহেদি পাতা ব্যবহারে কিছু বিশেষ সুবিধা: ঘন চুল, চুলের গুঁড়া শক্তিশালী করে, রুক্ষতা দূর করে, চুলকে সিল্কি এবং ঝরঝরে করে তোলে, চুলকে শীতল রাখে, জটলা হওয়া বাধা দেয়, খুশকি দূর করে, চুলের স্বাস্থ্য এবং সাদা চুলের রঙ বজায় রাখে।

বিভিন্ন ধরণের চুলের সমস্যার সমাধান করতে মেহেদী পাতার কয়েকটি বিশেষ ব্যবহার এখানে দেওয়া হয়েছে:-বাজারের শ্যাম্পু ব্যবহার করে উদ্বিগ্ন খুশকি দূর হয় না, তবে প্রতি সপ্তাহে একবারে পিষিত মেহেদি পাতা নিয়মিত ব্যবহার করলে মাথার ত্বকের খুশকি দূর হবে। ওভারিয়েট ড্যানড্রফের প্রতি বিদায় জানাতে, মেহেদি পাতা দিয়ে ৩/৪  পিষে মাথার ত্বকে লাগান এবং আধা ঘন্টা রেখে দিন। এরপর ধুয়ে ফেলুন দেখবেন চুল শক্ত হয়েগেছে। এছাড়াও ১/২ চা চামচ রস বা ১ চা চামচ মেথি মিশিয়ে মাথার ত্বকে লাগান এবং মাথার চুলকানির জন‍্য চুল এবং চুল পড়া বন্ধ করতে ১ ঘন্টা রেখে দিন। দেখবেন সব ভালো হয়ে যাবে।

চুলের রুক্ষতা দূর করবে মেহেদী পাতাঃ
১টি ডিমের সাদা অংশ এবং ২/৩ চা চামচ টোকদই মেহেন্দি পাতার সাথে মিশ্রিত করে চুলের পুষ্টি যুক্ত করবে এবং চুলের রুক্ষতা দূর করবে, চুল উজ্জ্বল এবং রেশমী হতে থাকবে।

চুল পড়া বন্ধ করতে মেহেদীঃ

প্রতি সপ্তাহে একবার, মেহেদি পাতা মিশ্রণ বা মিশ্রণ করুন এবং এটি ১/২ চামচ উদ্ভিজ্জ তেল মিশ্রিত করুন এবং এটি ৩০-৫০ মিনিটের জন্য মাথার ত্বকে এবং চুলে লাগান। শ্যাম্পু ব্যবহার না করে কেবলপানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। । এছাড়াও, কাপড়া তেল বা সরিষার তেল বা অন্য তেলের সাথে আধা চা-চামচ মেথি মিশিয়ে গরম করুন, তারপর এটি ঠান্ডা করুন এবং মেহেন্দি পাতার সাথে মিশ্রিত করুন এবং প্রতি সপ্তাহে 1/2 বার মাথার ত্বকে ব্যবহার করলে রেশমী চুল পড়া হ্রাস পাবে।

কিছু পরামর্শ:
মেহেদি দেওয়ার আগের দিন চুলে তেল ব্যবহার করা ভাল। যদি আপনি চুলে বাজারের  কোনও রাসায়নিক রঙ ব্যবহার করেন তবে আপনার কমপক্ষে ২ থেকে ৩ মাস পরে মেহেদি পাতা ব্যবহার করা উচিত, অন্যথায় চুল পড়া হতে পারে।

একটি নির্দিষ্ট সমেয়ে জন্য মেহেন্দি পাতা ব্যবহার করা ভালো, যদি আপনি ৪০থেকে ৫০ মিনিট ধরে রাখেন তবে কমপক্ষে এটি আরও ভাল কাজ করবে। আপনি এটি বেশি দিন ব্যবহার করলে আপনার চুল আরও শুষ্ক এবং রুক্ষ হয়ে উঠবে। চুলে মেহেদি পাতা লাগানোর সময় কান এবং ঘাড়ে কাপড় দিয়ে ঢেকে রাখুন যাতে রঙ গায়ে না লেগে যায়। মেহেদি লাগানোর সয়য় হাতের ভিতরে গ্লোভ পড়তে হবে। যাতে হাত রঙ না লাগে। গ্লিসারিন রঙ সহজে উত্তোলনের জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে।

বিভিন্ন মানুষের চুল এবং ত্বক যদি অ্যালার্জি থাকে বা যদি মাথার ত্বকে কোনও ক্ষত বা সংক্রমণ থাকে তবে এটি ব্যবহার না করাই ভাল।
নিয়মিত চুলে তেল দেওয়া আরও ভাল তবে আপনি যদি সাধারণত ম্যাসেজ করে তেল দেন তবে রক্ত ​​সঞ্চালনের ফলে চুল আরও ঘন হয়।

Read More: পুদিনা পাতার উপকারিতা ও ব্যবহার এবং ভেষজ গুনাগুন

মেহেদী পাতার ব্যবহার

ব্রোঞ্জ যুগের পর থেকে পৃথিবীর মানুষ মেহেদীকে রঞ্জক হিসাবে ব্যবহার করছেন। পৃথিবীর অনেক দেশে এটি উত্সবের একটি অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ। বাংলাদেশে, ঈদ এবং বিবাহ উপলক্ষে এর ব্যবহার অত্যন্ত সাধারণ। চুলের রঙ হিসাবে মেহেদী ব্যবহারের কথা ভারতীয় উপমহাদেশে প্রায় ৪০০ খ্রিস্টাব্দে। অ্যান্টিফাঙ্গাল হিসাবে মেহেদী অতিরিক্ত কার্যকর। এটি জামাকাপড় এবং চামড়া সংরক্ষণ করতেও ব্যবহার করা হয়। অতীতকাল থেকে মেহেদী ফুল দিয়ে সুগন্ধি তৈরি হয় এবং বর্তমান যুগে উত্পাদন আবার শুরু হয়েছিল। হেনা অতিরিক্ত পোকামাকড় নিয়ন্ত্রণ করতে পারে। লাহন নামক একটি পদার্থের উপস্থিতি থাকে।

মেহেদী পাতার ঔষধি গুনাগুন

টাক হ্রাস করে: সরিষার তেল দিয়ে কিছু মেহেদি পাতার সাথে ভেজে নিন। তারপর ঠান্ডা হয়ে গেলে এটি মাথার ত্বকে ব্যবহার করুন। এতে করে টাক পরা দূর হবে।

মাথাব্যথা নিরাময় করে: মেহেদি গাছের ফুল মাথা ব্যথা উপশম করতে সহায়তা করে। এই মেহেদী পাতার ফুল পেস্ট করুন এবং এটির সাথে ভিনেগার মিশিয়ে নিন। এরপর এটি কপালে বা ঘাজনিত জায়গায় প্রয়োগ করুন। দেখবেন আপনার মাথা ব্যথা বা ঘা ভালো হয়ে যাবে।

চুলকানি বা ঘা শুকিয়ে যেতে সহায়তা করে: ঘা এবং চুলকানিতে ভুগছে তাহলে মেহেদি পাতার পেস্ট লাগান। মেহেদী পাতার পেষ্ট এটি চুলকানি এবং ঘা শুকাতে  সহায়তা করে থাকে। মাউথওয়াশ তৈরিতে প্রায়শই এই মেহেদি ব্যবহার করা হয়। পানিতে মেহেদি পাতার গুঁড়ো মিশিয়ে নিন। এবার এটি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এটি মুখের ঘা দ্রুত নিরাময় করে এবং মুখকে জীবাণুমুক্ত করে।

নখের যত্ন: নখগুলি শক্তিশালী এবং আকর্ষণীয় করে তুলতে মেহেদি পাতার গুরুত্ব অনেক বেশি। কয়েকটা মেহেদি পাতা অল্প সময়ের জন্য পানিতে ভিজিয়ে রাখবেন। এরপর যদি পানি হালকা লাল হয়ে যায়, আপনি সেই পানি ব্যবহার করবেন।

খুশকি দূর করে: খুশকি দূর করতে মেহেদী পাতা বিশেষ কার্যকারিতা রয়েছে। সরিষার তেল, মেথি, মেহেন্দি পাতা এক সাথে সিদ্ধ করে চুলে ব্যবহার করুন। এক ঘন্টা পরে শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এতে খুশকি দূর করবে এবং চুল চকচকে এবং সুন্দর করবে।

জলের পচা রোগে: এই রোগটি সাধারণত নোংরা, দূষিত জলের সংস্পর্শে ঘটে। আপনি  অল্প সময় জন্য পানিতে  থাকা সত্ত্বেও, এই রোগ হতে পারে। এটি দুটি আঙ্গুলের মাঝখানে ক্ষত তৈরি করে। এই ক্ষতটিতে মেহেদি পাতার পেস্ট প্রয়োগ করলে ক্ষত নিরাময় হয়।

মেহেদি পাতা বয়স্কতার ছাপ দূর করে: আপনি যদি বয়স্ক ছাপ থেকে রেহাই পেতে চান। মেহেদী পাতা ব্যবহার করতে পারেন। আপনি কি ভাবছেন ত্বক লাল হয়ে যাবে? মুখের ত্বকে মেহেদি ব্যবহারের পদ্ধতি সম্পূর্ণ আলাদা। আপনার মুখে প্রতিদিন কয়েক ফোঁটা মেহেদি পাতার রস ব্যবহার করুন দেখবেন আপনার মুখে উজ্জলতা ফিরিয়ে আসবে। নিয়মিত মেহেদি পাতার রস ব্যবহারে অভ্যাস গড়ে তুলুন।

পা ফাটল রোগ নিরাময়ে: শীতকালে  প্রতি মুহূর্তে পা ফাটা নিয়ে অনেকেই চিন্তা করেন। তবে কিছু লোকের কাছে প্রতি বারো মাসে পা ফাটার বিষয়টি রয়েছে। উপরন্তু, আমাদের অনেকের ত্বকের সমস্যা রয়েছে। মেহেদি পাতার ঘন পেস্ট দিয়ে ফাটা জায়গায় লাগিয়ে দিন। এরপর আধা ঘন্টা রেখে ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত ব্যবহারে পা ফাটা রোধ করবে।

কঠিন দাগ নিয়ন্ত্রণ করে: মেহেদি পাতা রস শরীরের কঠিন দাগ দূর সাহায্য করে। মেহেদি রস বা বীজ নিয়মিত সেবন রক্ত ​​সঞ্চালন ব্যবস্থা এবং গুরুত্বপূর্ণ রগ থেকে স্বাভাবিক রাখে। এটি ধমনীর মধ্যে রক্ত ​​জমাট বাঁধা দ্বারা আক্রমণ এবং স্ট্রোকের ঝুঁকি হ্রাস করে। বেশিরভাগ মেহেদি পাতা শরীরের জন্য ভাল তবে কালো মেহেদি ত্বকে ফুসকুড়ি এবং অ্যালার্জি  এসবের হাত থেকে রক্ষা করে থাকে।

ক্ষত সারাতে সহেতা করে: মেহেদী পুরানো ক্ষতগুলি সারতে সাহায্য করে। এ জাতীয় ক্ষতে মেহেদি পাতা লাগান বেটে লাগালে দেখবেন কিছুদিন পর ভালো হয়ে যাবে।

ঘুমের সমস্যা দূর করে: ঘুম বা অনিদ্রার মতো  যে কোনও সমস্যা দূর করতে এই মেহেদী পাতা যথেষ্ট উপকারী। নিয়মিত মেহেদী পাতার রস পান করে ঘুমের সমস্যা দূর করা সম্ভব।

মেহেদী পাতা নিয়ে একটি জনপ্রিয় কবিতাঃ

‘অনন্ত,
মেহেদি পাতা দেখেছ নিশ্চয়?’ এই আবৃত্তিটি শুনেনি এমন কবিতা প্রেমী পাওয়া যাবে না। অনেকের লেখকের নাম জানা নেই হয়তো। মেহেদি পাতা কবিতাটি লিখেছেন কবি আবুল হোসেন খোকন। মেহেদি পাতা কবিতা লিরিক্স নিম্নে তুলে ধরা হলো।

‘মেহেদি পাতা দেখেছ’ কবিতা

অনন্ত, মেহিদি পাতা দেখেছ নিশ্চয়?
উপরে সবুজ, ভেতরে রক্তাক্ত ক্ষত-বিক্ষত- নিজেকে আজকাল বড় বেশি মেহেদি পাতার মতো, মনে হয় কেন?
উপরে আমি অথচ ভিতরে কষ্টের যন্ত্রনার- এমন সব বড় বড় গর্ত যে- তার সামনে দাড়াতে নিজেরী ভয় হয়, অনন্ত।
তুমি কেমন আছো?

বিরক্ত হচ্ছ না তো?
ভালোবাসা যে মানুষকে অসহায়ও করে তুলতে পারে- সেদিন তোমায় দেখার আগ পর্যন্ত- আমার জানা ছিলো না।
তোমার উদ্দাম ভালোবাসার দূতি- জ্বালিয়ে-পুড়িয়ে ছারখার করে ফেলেছে আমার ভিতর- আমার বাহির- আমার হাতে গড়া আমার পৃথিবী।

অনন্ত, যেই মিথিলা শুখী হবে বলে- ভালোবাসার পূর্ণ চঁন্দ গিলে খেয়ে- ভেজা মেঘের মতো উড়তে উড়তে চলে গেল, আজ অন্য শূন্য, অনন্তকে আরো শূন্য করে দিয়ে- তার মুখে এসব কথা মানায় না, আমি জানি – কিন্তু আমি আর এভাবে এমন করে পারছি না।

আমার চারদিকের দেয়াল জুড়ে থই থই করে- আমার স্বপ্ন খুনের রক্ত।
উদাস দুপুরে বাতাসে শিষ দেয় তোমার সেই ভালোবাসা পায়ে পায়ে ঘুরে ফেরে ছায়ার মতোন- তোমার স্বৃতি।
আমি আগলাতেও পারি না, আমি ফেলতেও পারি না।
শুখী হতে চেয়ে এখন দাড়িয়ে আমি- একলা আমি- কষ্টের তুষার পাহারে।

অনন্ত তোমার সামনে দাড়ানোর কোন – যোগ্যতাই আজ আমার অবশিষ্ট নেই।

তবুও,
তবুও তুমি একদিন বলেছিলে- ভেজা মেঘের মতো- অবুজ আকাশে উড়তে উড়তে- জীবনের সুতোয় যদি টান পরে কখনো?
চলে এসো, চলে এসো- বুক পেতে দেব-আকাশ বানাবো আর হাসনা হেনা ফুটাবো।

সুতোয় আমার টান পরেছে অনন্ত, তাই আজ আমার সবকিছু, আমার এক রোখা জেদ, তুমি হীনা শুখী অনেক স্বাপ্ন!
সব, সবকিছু জলাঞ্জলী দিয়ে- তোমার সামনে আমি নত জানু- আমায় তোমাকে আর একবার ভিক্ষে দাও।
কথা দিচ্ছি- তোমার অমর্যাদা হবে না কোনদিন।

অনন্ত, আমি জানি- এখন তুমি একলা পাষান কষ্ট নিয়ে ঘুরে বেড়াও, প্রচন্ড এক অভিমানে- ক্ষনে ক্ষনে গর্জে উঠে অগ্নিগিরি।
কেউ জানে না, আমি জানি- কেন তোমার মনের মাঝে মন থাকে না, ঘরের মাঝে ঘর থাকে না, উঠোন জোরার উপর কলস- তুলসি তলের ঝড়া পাতা, কুয়ো তলার শূন্য বালতি- বাসন-কোসন, পূর্নিমা-অমাবর্ষা, একলা ঘরে এই অনন্ত- একা শুয়ে থাকা।

কেউ জানে না, আমি জানি- কেন তুমি এমন করে কষ্ট পেলে- সব হরিয়ে বুকের তলের চিতানলে- কেন তুমি নষ্ট হলে?
কার বিহনে চুপি চুপি, ধীরে ধীরে- কেউ জানে না, আমি জানি- আমিই জানি।
আগামি শনিবার ভোরের ট্রেনে তোমার কাছে আসছি।
অনন্ত, আমার আর কিছু না দাও- অন্তত শাস্তিটুকু দিও।
ভালো থেকো! …..তোমারি হারিয়ে যাওয়া মিথিলা।

Read More: জ্বর-সর্দি নিরাময়ের প্রাকৃতিক বা ঘরোয়া উপায়

মেহেদী চাষ করার পদ্ধতি

সাভারে মেহেদীচাষ বাড়ছে। ঈদের আগে কেনাকাটা বেড়েছে। অনেক পরিবার মেহেদী চাষ করে স্বাবলম্বী হয়েছে। জানা গেছে, সাভার উপজেলার রাজাসন, হেমায়েতপুর, বরকুতা, সালমাসি, ভরারীপাড়া, লুটারচর, বাহেরচর, মাওলিপাড়া সহ বেশ কয়েকটি গ্রামে বার্ষিক মেহেদী পাতার চাষ বাড়ছে। খাদ্যশস্য ছাড়াও, কৃষকরা ফুল এবং লাভজনক ফসল ছড়িয়ে পড়ে। সালমসী বাহের চর গ্রামের করিম আলী প্রায় এক দশক ধরে মেহেদী পাতা চাষ করছেন। তিনি বলেন, মেহেদি চাষের সমাবেশ ব্যয় কম। কীটনাশক থেকে প্রতি মাসে কোনও খরচ নেই, একবার রোপণ করা হলে, গাছটি ১০থেকে ১৫ বছর বেঁচে থাকে। বছরে ৩ বার বাগান থেকে কাটা হয়। কেটে নেওয়ার পরে মুনাফা বিঘা প্রতি ৬০০ হাজার টাকা আয় করে।

মোহাম্মদ আলাউদ্দিন জানান, তার আড়াই বিঘা জমিতে মেহেদি গাছ রয়েছে। কীটনাশক প্রতি সপ্তাহে সর্বনিম্ন দুবার প্রয়োগ করা উচিত। আমরা কষ্টে মেহেদি চাষ করি। তবে বিভিন্ন দেশের টিউব মেহেদী থাকার কারণে আমরা এখন বাজার পাচ্ছি না। সাভার উপজেলা কৃষি অফিসার মোহাম্মদ শহিদুল ইসলাম জানান, সাভার উপজেলায় প্রায় ১৫ হেক্টর জমিতে মেহেদি চাষ হয়। মেহেদি চাষ লাভজনক হওয়ায় কৃষকদের মধ্যে এর প্রতি আগ্রহ বাড়ছে। মেহেদি চাষের মান অত্যন্ত কম হলেও। প্রতিবছর মেহেদি চাষে কৃষকদের আগ্রহ সবচেয়ে বেশি। তাই আপনিও মেহেদি চাষ করে লাভবান হতে পারেন।

আরও পড়ুন:  রসুনের উপকারিতা ও ক্ষতিকর দিক সমূহ | কাঁচা রসুনের উপকারিতা

মেহেদি পাতার বংশবিস্তার

মেহেদি গাছ বর্ষাকালে প্রাপ্তবয়ষ্ক সাদা বা গোলাপি রঙের ছোট ছোট অসংখ্য ফুল দেখা যায়। এই গুলো লম্বা পুষ্পদন্ডের চারদিকে ছোট বোঁটা বিশিষ্ট ফুল হয়। এই মেহেদি গাছ সর্পগন্ধা ও আকন্দ, ধুতরার মতো একই সময় ফুল ও ফল দেখা যায়। মেহেদি গাছের বীজ প্রায় মটরদানার মতো ধূসর বর্ণের, এর ফলের ভিতর ছোট ছোট ৫৮-৯৫টি বীজ থাকে।

মেহেদি গাছের বংশবিস্তার, বীজ অথবা অঙ্গজভাবে (শাখা কাটিং) বিস্তার সম্ভব। কিন্তু কাটিংয়ের সাহায্যে নতুন চারা উৎপাদন সহজ বলে আমাদের দেশে এ পদ্ধতিই অবলম্বন করা হয়। তবে এ ক্ষেত্রে শতকরা ৭০-৮০টি চারা সহজেই পাওয়া যায়। সাধারণত ৬ মাসের কাটিং রোপণের জন্য উপযুক্ত হয়। এই গাছ থেকে ৪/৫ বছর পাতা আহরণ করা যায়।

মেহেদী পাতার কোথায় পাওয়া যায়

মেহেদি গাছ বাংলাদেশের সর্বত্র বাড়ির আঙিনায় চাষ করা হয়। বাংলাদেশ ছাড়াও যে সব দেশে চাষ হয় সে সব দেশের মধ্যে হলো ভারত, কুর্দিস্থান, লেভেন্ডা, মিশর, পারসিয়া, সিরিয়া এবং আফ্রিকার উঞ্চমন্ডলীয় অঞ্চলে পাওয়া যায়।

ঔষধি ব্যবহার

১) মেন্দি পাতার রস ও সরষে তৈল ঘাড়ে মালিশ করলে ঘাড়ের ব্যথা কমে যায়। একমনকি গরুর ঘাড়ের ব্যাথাও কমে।

২) এ পাতা বেটে নখে ও চুলে লাগালে নখ ও চুল ভাল থাকে।

৩) পায়ের তলায় পাতা বাটার প্রলেপ দিলে চোখে গুটি ওঠে না।

৪) পাতা বেটে পুরানো একজিমায় লাগলে ভাল ফল পাওয়া যায়।

৫) পাতা বেটে হাতে লাগালে লাল হয়। অনেকে পাকা চুলেও ব্যবহার করেন।

৬) ইউনানী চিকিৎসকদের মতে, চুল উঠে যাওয়া বা পাকায় ১টি হরিতকি ও ১০/১২ গ্রাম মেহেদী পাতা একটু থেতো করে ২৫০ মলি গ্রাম পানিতে সেদ্ধ করে ৬০-৭০ মিলি থাকতে নামিয়ে ছেকে ঠান্ডা হলে মাথায় লাগালে উপকার পাওয়া যায়।

৭) শ্বেতপ্রদরে ২৫ গ্রাম মেহেদি পাতা সেদ্ধ করে সেই পানিতে উত্তরস্তি ( ডুশ দেওয়া) দিলে সাদাস্রাব ও অভ্যন্তরের ‍চুলকানি প্রশমিত হয়। স্থানভ্রস্ট জরায়ুর ক্ষেত্রেও উপযুক্ত পদ্ধতি প্রয়োগ করলে অসুবিধা কমে যায়।

৮) শুক্রমেহ রোগে মেহেদি পাতার রস এক চা চামচ দিনে দুবার পানিতে বা দুধের সাথে একটু চিনি মিশিয়ে খেলে এক সপ্তাহের মধ্যে উপকার পাওয়া যায়।

৯) মুখ গলার ক্ষতে পাতা সেদ্ধ পানি মুখে খানিক্ষন রাখলে সেরে যায়।

১০) গ্রীষ্মকালে ঘেমে গিয়ে গায়ে দুর্গন্ধ হলে মেহেদী পাতা ও বেনামূল সেদ্ধ পানিতে গোসল করলে উপকার পাবেন।

১১) কানে পুজ হলে এ পাতার রস ২ ফোটা করে কানে দিলে ৪/৫ দিনে পুজ পড়া বন্ধ হয়ে যায়।

১২) চোখ ওঠায় অল্প কয়েকটা পাতা থেঁতো করে গরম পানিতে ফেলে ছেকে সেই পানির ফোটা চেখে দিলে সেরে যায়। এমনকি চোখেন কোন থেকে পুজের মতো পড়তে থাকলেও এটি ব্যবহার করলেও সেরে যায়।

১৩) প্রাচীনপন্থী বৈদ্য সম্প্রদায়ের মতে শরীরে হিমোগ্লোবিন সঠিক পরিমানে আছে কি না জানার জন্য এটি ব্যবহার করা হয়। মেহেদী পাতা বাটা হাতের তালুতে লাগালে রংটা লালচে আভা দিলে ভাল, না হলে হিমোগ্লেবিন কম আছে বলে ধারণা করা হয়।

১৪) আগের দিনে নবাব-বাদশাহদের অনিদ্রা রোগ হলে মেহেদি ফুলের বালিশে ঘুমানোর পরামর্শ দেয়া হত। এতে আছে লাইলাকের গন্ধ। গন্ধটি পার্থিব সস্তায় সমৃদ্ধ।

 

 

 

মেহেদি পাতার অপকারিতা, মেহেদি পাতার গুড়া, চুলের জন্য মেহেদি পাতার উপকারিতা, সরিষার তেল ও মেহেদী পাতা, মেহেদি গাছের শিকড়, মেহেদি পাতার তেল, মেহেদি বীজ, মেহেদি পাতা কবিতা,

চুলের জন্য মেহেদি পাতার উপকারিতা, মেহেদী ফলের উপকারিতা, কাটা মেহেদি গাছ, মেহেদী পাতার ছবি, মেহেদি গাছ লাগানোর নিয়ম, মেহেদি গাছের শিকড়, মেহেদি পাতার গুড়া, মেহেদি বীজ

Leave a Reply

Translate »