যে গাছের ছায়ায় দিন কাটত নিরঞ্জনের, সেই গাছ উপড়ে পড়েই মৃত্যু

প্রত্যক্ষদর্শীদের ভাষ্যমতে, শতবর্ষী ওই গাছের নিচেই নিরঞ্জন দাসের একটি সেলুন ছিল। ওই সেলুনে তিনি চুল কাটতেন। প্রতিদিনের মতো শুক্রবার সকাল থেকে তিনি সেলুনে চুল কাটছিলেন। হঠাৎ গাছটি ভেঙে তাঁর সেলুনের ওপর পড়ে। এতে তিনি গাছের নিচে চাপা পড়ে মারা যান।

যে-গাছের-ছায়ায়-দিন-কাটত

নিরঞ্জনের প্রতিবেশী রাজন মিয়া বলেন, ঘটনাটি অনেক নির্মম। ছোট্ট থেকে প্রতিদিন দেখেছেন, নিরঞ্জন গাছটির নিচে ছোট্ট একটি ঘর তুলে চুল কাটতেন। তিনি কানেও কম শুনতেন। তবে ভালো চুল কাটতেন। গ্রামের বেশির ভাগ মানুষ তাঁর কাছেই চুল কাটতেন। ওই গাছের নিচের পাতা ও ময়লা-আবর্জনা তিনিই পরিষ্কার করতেন। গাছটির ছায়ার কারণে, গরমের মধ্যে বেশির ভাগ মানুষ তাঁর দোকানে চুল কাটতেন আরামে। আর ভাগ্যের কী নির্মম পরিহাস। যে গাছটি তাঁকে আশ্রয় দিয়েছিল, সেই গাছটিই তাঁর প্রাণ কেড়ে নিল।

পৃথিবীতে হামলা করতে পারে ‘এলিয়েনরা’!

আদ্রা ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মোশারফ হোসেন বলেন, অনেক বড় শতবর্ষী গাছ ছিল। তবে শিকড়গুলো উপড়ে গিয়েছিল। গাছের গোড়াতেও মাটি কমে গিয়েছিল। ফলে ঝড়-বৃষ্টি ছাড়াই গাছটি ভেঙে পড়েছে। তবে ওই সেলুনে আরও তিনজন ব্যক্তি ছিলেন। তাঁরা গাছ পড়ার শব্দ পেয়ে, দৌড়ে প্রাণে রক্ষা পান। কিন্তু নিরঞ্জন কানে কম শুনতেন। ফলে বুঝতে পারেননি। তবে গ্রামের সবাই তাঁর মৃত্যুতে শোকাহত। পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি তিনিই ছিলেন। তাঁর মৃত্যুতে পরিবারটি একদম রাস্তায় নেমে গেল।

Source: Prothom alo

Leave a Reply

Translate »