রাজীব গান্ধীর হত্যাকারীকে মুক্তির নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের

ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধী হত্যা মামলার অন্যতম আসামি এ জি পেরারিভালনকে মুক্তির নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। বুধবার (১৮ মে) শুনানি শেষে সুপ্রমি কোর্টের তিন বিচারকের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

ভারতের তামিলনাড়ু রাজ্যের সরকার তার মুক্তির জন্য আগেই আবেদন জানিয়েছিল। বিশেষ অধিকার প্রয়োগ করে সেই আবেদন মঞ্জুর করলেন ভারতের সর্বোচ্চ আদালত। ১৯৯১ সালে ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধী তামিল নাড়ুর এক জনসভায় বোমা বিষ্ফোরণে মারা যান। ওই ঘটনার পরপরই এ জি পেরারিভালনকে গ্রেপ্তার করা হয়। ১৯৯৮ সালে তাকে মৃত্যুদণ্ড দেন আদালত।

ফের টাকার মান কমলো ৮০ পয়সা

কিন্তু পরে সেই রায়ে পরিবর্তন আনা হয়। সংবাদ মাধ্যম জানায়, এ জি পেরারিভালানকে রাজিব গান্ধীকে হত্যার জন্য ব্যবহৃত বোমার ব্যাটারি সংগ্রহ করে দেওয়ায় গ্রেপ্তার হয়েছিলেন। তামিলনাড়ু রাজ্যে একটি নির্বাচনী সমাবেশে ভাষণ দেওয়ার সময় আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণে ১৯৯১ সালে রাজীব গান্ধী নিহত হন। ওই হামলাটি চালিয়েছিলেন শ্রীলঙ্কার লিবারেশন টাইগারস অব তামিল ইলামের এক নারী সদস্য। ১৯৮৭ সালে প্রধানমন্ত্রী থাকাকালীন শ্রীলঙ্কায় ভারতীয় শান্তিরক্ষী পাঠানোর জন্য রাজিব গান্ধীকে হত্যা করা হয়েছিল বলে ধারণা করা হয়। শ্রীলঙ্কার লিবারেশন টাইগারস অব তামিল ইলামের সদস্য ছিলেন এ জি পেরারিভালন। বিদ্রোহী এই সশস্ত্র গোষ্ঠীটি শ্রীলঙ্কায় স্বাধীন তামিল রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার জন্য কাজ করছিল। ২০০৯ সালে শ্রীলঙ্কার সেনাবাহিনীর সঙ্গে লড়াইয়ে বিদ্রোহী এই গোষ্ঠীটি পরাজিত হয়। সূত্র: বিবিসি

Leave a Reply

Translate »