ধর্ম নিয়ে কটুক্তির অভিযোগে প্রবাসীর আত্মীয়স্বজনের বাড়িতে হামলা প্রধানমন্ত্রীর এলাকায় : শ্রী অরবিন্দু রায়।

বিদেশে  বসবাসরত এক বাঙালি হিন্দু যুবক কতৃক  নবী হযরত মুহাম্মদকে নিয়ে কটূক্তি করার অভিযোগে গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় বাড়িঘর ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।

গতকাল রোববার সন্ধ্যায় উপজেলার কান্দি ইউনিয়নের উত্তর কান্দি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার পর ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

ধর্ম নিয়ে কটুক্তির অভিযোগে প্রবাসীর

সম্প্রতি ভারতে অবস্থানরত আবির অধিকারী (২৫) তার ফেসবুক আইডি থেকে দেওয়া এক পোস্টে মহানবীকে কটূক্তি করেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে পাশ্ববর্তী বরিশাল জেলার উজিরপুর উপজেলার সাতলাসহ আশপাশের এলাকার মুসলমানরা একত্রিত হয়ে আবিরদের বাড়ির মাখন লাল অধিকারী, পলাশ অধিকারী ও সন্তোষ অধিকারীর বসতঘর ভাঙচুর করে। খবর পেয়ে কোটালীপাড়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে।

আবির উত্তর কান্দি গ্রামের অনাদী অধিকারীর ছেলে। এদিকে এলাকাবাসী জানিয়েছে, আবির ও তার পরিবার ৭ বছর আগে ভারত চলে যায়। এমনকি তারা তাদের জমিজমাও বিক্রি করে গেছে।

আবির উত্তর কান্দি গ্রামের অনাদী অধিকারীর ছেলে। এদিকে এলাকাবাসী জানিয়েছে, আবির ও তার পরিবার ৭ বছর আগে ভারত চলে যায়। এমনকি তারা তাদের জমিজমাও বিক্রি করে গেছে।

 

১৫ জানুয়ারি ২০২৩ ইং।

অসাম্প্রদায়িক চেতনার দাবীদার ও বর্তমান রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনার নিজ নির্বাচিত এলাকা গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলার কান্দি ইউনিয়নের সাতরিয়া গ্ৰামে ধর্ম অবমাননার মিথ্যা গুজব ছড়িয়ে হিন্দুদের সম্প্রদায়ের ঘরবাড়ি ও দোকানে হামলা ভাংচুর লুটপাট করে শতাধিক উগ্র মৌলবাদী জিহাদি বলে জানা গেছে।

 

আমি এইমাত্র গোপালগঞ্জ জেলার, কোটালিপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সাহেবে ( মোঃ জিল্লুর রহমান ভাই) সাথে ফোনে কথা বললাম।
গ্ৰামে ধর্ম অবমাননার মিথ্যা গুজব ছড়িয়ে হিন্দুদের সম্প্রদায়ের ঘরবাড়ি ও দোকানে হামলা ভাংচুর লুটপাট করে শতাধিক উগ্র মৌলবাদী জিহাদি বলে জানা গেছে
যে ব্যাক্তি ফেজবুকে উল্টা পালটা কমেন্ট করেছে, তাকে পায়নি এবং তাদের ক্ষতিও করেনি।
এখানে যে ছবি পোস্ট দেখতে পাচ্ছেন এগুলো এলাকাবাসীর বাড়ি। ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে এলাকাবাসী।
সেই কথাই আমি কোটালিপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে বললাম যে অপরাধ করেছে সেই ব্যাক্তি সাজা পেলো না অথচ এলাকাবাসীর বাড়ি ঘড় ভাংচুর, লুটপাট করা হলো, এখানে আপনি কি অনুভব করলেন।
এভাবেই যদি চলতে থাকে তাহলে বাংলাদেশে হিন্দুদের বসবাস কতটুকু নিরাপত্তা দিচ্ছেন আপনারা।
তিনি কোন সঠিক উত্তর দিতে পারেননি।
তিনি আরও জানালেন এখন পর্যন্ত থানায় কোন অভিযোগ দায়ের করেননি, অভিযোগ পেলে আমরা আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করবো।
শ্রী অরবিন্দু রায়।
বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন ( BHRC)
আজীবন সদস্য ( বাংলাদেশ)
১৬/০১/২০২৩ ইং

Leave a Reply

%d bloggers like this: